Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯, ১২ চৈত্র ১৪২৫, ১৮ রজব ১৪৪০ হিজরী।

নেত্রকোনায় মহিলা লীগের কমিটি নিয়ে চরম হট্টগোল চেয়ার ভাঙচুর সাংবাদিকদের উপর হামলা : আহত ৩

প্রকাশের সময় : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

নেত্রকোনা জেলা সংবাদদাতা : বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রকোনা জেলা শাখার ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে নতুন কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে গতকাল শুক্রবার দুপুরে স্থানীয় পাবলিক হলে চরম হট্টগোল, চেয়ার ছোড়াছুড়ি ও সাংবাদিকদের উপর হামলার ঘটনা ঘটেছে।
দলীয় নেতাকর্মী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বেলা সাড়ে ১১টায় দিকে জাতীয় সংগীতের সাথে পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন শুরু হয়। কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পিনু খান এমপি পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে সম্মেলন উদ্বোধন করেন।
জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের আহŸায়ক কামরুন্নেছা আশরাফ দীনা’র সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় এমপি। প্রধান বক্তা ছিলেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক এমপি আসমা জেরিন ঝুমু। এছাড়াও সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন নেত্রকোনা জেলা আওয়ামী লীগরে সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ মতিয়র রহমান খান, কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক কামরুন্নেছা মান্নান। এছাড়া মঞ্চে ছিলেন পৌর মেয়র আলহাজ নজরুল ইসলাম খান, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক নূর খান মিঠু এবং সাবেক পৌর মেয়র প্রশান্ত কুমার রায়।
প্রথম অধিবেশন শেষে কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি আসমা জেরিন ঝুমু সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্ব কাউন্সিল অধিবেশনে কামরুন্নেছা আশরাফ দীনাকে সভাপতি, হাবিবা রহমান খান শেফালীকে সাধারণ সম্পাদক, আয়শা খানমকে যুগ্ম সম্পাদক ও ফেরদৌসী আক্তারকে সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে নাম ঘোষণা করে নেত্রকোনা জেলা কমিটি ঘোষণা করেন। এ সময় দলের কিছু নেতাকর্মী এ সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে চরম হট্টগোলের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্ধের সামনেই মঞ্চে চেয়ার ছুড়িাছুড়ি ও চেয়ার ভাঙচুর শুরু করে। এ সময় কেন্দ্রীয় নারীনেত্রীসহ বিভিন্ন উপজেলা ও গ্রাম থেকে আসা মহিলা নেতাকর্মীরা প্রাণভয়ে দিক-বিদিক ছুটোছুটি শুরু করে। এ সময় সাংবাদিকরা তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালন কালে উশৃঙ্খল কর্মীরা সাংবাদিকদের ধাওয়া করে প্রথম আলো’র জেলা প্রতিনিধি পল্লব চক্রবর্তীর উপর হামলা চালিয়ে তাকে মারধর করে। এ ঘটনায় প্রেসক্লাবের সাবেক সম্পাদক ইত্তেফাকের প্রবীন সাংবাদিক শ্যামলেন্দু পাল ও মোহনা টিভির প্রতিনিধি মলয় সরকার আহত হয়। গুরুতর আহত পল্লব চক্রবর্তীকে নেত্রকোনা আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার পরপরই জেলা প্রেসক্লাবে উপমন্ত্রী আরিফ খান জয় সাংবাদিকের উপর হামলার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেন এবং দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস প্রদান করেন। নেত্রকোনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খান মোহাম্মদ আবু নাসের দ্রæত হাসপাতালে গিয়ে আহত সাংবাদিকের খোঁজ খবর নেন।
এ ঘটনার প্রতিবাদে সাংবাদিকরা তাৎক্ষণিক প্রেসক্লাবে বসে পেশাগত দায়িত্ব পালনে বাঁধা ও মারধর করার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান। তারা ২ ঘন্টার মধ্যে সাংবাদিকদের উপর হামলার সাথে জড়িতদের খুঁজে বের করে দ্রæত গ্রেফতার পূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ