Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৭ জুন ২০১৯, ১৩ আষাঢ় ১৪২৬, ২৩ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

ইমরান খানকে নিয়ে টক অব দ্য কুমিল্লা খুনের মামলার আসামি জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী!

প্রকাশের সময় : ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

সাদিক মামুন, কুমিল্লা থেকে : কুমিল্লা শহর ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুল ইসলাম খুনের প্রধান আসামী মাসুদ পারভেজ খান ইমরান ব্যবসায়ি প্রতিনিধি দলের হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতিসংঘ সফরের সঙ্গী হয়েছেন। একটি খুনের মামলার আসামী যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হওয়া নিয়ে গত দু’দিনে অনলাইন ও প্রিন্ট মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরে কুমিল্লাসহ সারাদেশে সমালোচনার ঝড় ওঠে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও খুনের মামলার আসামী প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হওয়া নিয়ে বিভিন্ন মন্তব্য স্থান পেয়েছে।
কুমিল্লা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি ও কুমিল্লা জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম আহŸায়ক মাসুদ পারভেজ খান ইমরান এবং তার ছোট ভাই নসরুল্লাহ খান আরমান কুমিল্লা শহর ছাত্রলীগ সভাপতি সাইফুল ইসলাম খুনের মামলার আসামী। সম্প্রতি নগরীর ঠাকুরপাড়া এলাকায় একটি বাড়ির সেপটিকট্যাঙ্কি থেকে যুবলীগ নেতা টিটুর হাড়গোড় কঙ্কাল উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ। যুবলীগ নেতা টিটু হত্যা মামলায় ইমরানের ছোট ভাই আরমান খানকেও আসামী করা হয়। কুমিল্লায় বিভিন্ন সময় হত্যাকাÐ, অস্ত্র মামলা, অপহরণসহ শিক্ষা বাণিজ্যে জড়িয়ে আলোচনা-সমালোচনার জায়গায় ওঠে এসেছে আফজল খান পরিবার। সেই পরিবারের বড় ছেলে ইমরান গত বছরের এপ্রিলে ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল হত্যা মামলার প্রধান আসামী। বর্তমানে মামলাটি সিআইডি তদন্ত করছে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সহকারী পুলিশ সুপার জালাল উদ্দিন জানান, ‘মামলা তদন্ত চলছে। চার্জশীট দেয়া হয়নি। আর প্রধান আসামী মাসুদ পারভেজ খান ইমরানকে এখনো গ্রেফতার করা যায়নি। সাইফুল হত্যা মামলায় তিনি জামিনে রয়েছেন কিনা এমন তথ্য আমাদের জানা নেই।’
কুমিল্লা চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি ছাত্রলীগ নেতা সাইফুল খুনের প্রধান আসামী ইমরান গত ১৭ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ৯টায় আমিরাত এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে দশদিনের সফরে ব্যবসায়ি প্রতিনিধি দলের হয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের উদ্দেশে ঢাকা বিমানবন্দর ত্যাগ করেন। সেখানে পৌঁছে তিনি প্রধানমন্ত্রীর অন্যান্য সফরসঙ্গীদের মধ্যে ব্যবসায়ি প্রতিনিধি দলের নেতাদের সাথে, ছাত্রলীগ সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের সাথে এবং প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের সময় জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশন কক্ষে সেলফি তুলে নিজের ফেইসবুক আইডিতে পোস্ট করেছেন। এসব ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেইসবুক) প্রকাশের পর বিভিন্ন মন্তব্য ওঠে আসে। একটি খুনের মামলার অন্যতম আসামী প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হয় কিভাবে। ফেইবুকের বদৌলতে বিভিন্ন অনলাইন ও প্রিন্ট মিডিয়ায় গত দু’দিনে ইমরানের ওইসব ছবি দিয়ে খবর প্রকাশ হয়। আর এ খবরে কুমিল্লাসহ সারাদেশে আলোচনা-সমালোচনার ঝড় ওঠে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কুমিল্লা সদর আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য আকম বাহাউদ্দিন বাহার বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রবক্তা সজীব ওয়াজেদ জয় তো আর ইমরানের রেকর্ড জানেন না। এখন ইমরান একটি খুনের মামলার আসামী হয়ে কিভাবে জাতিসংঘের কার্ড পেয়েছে তা তদন্ত করে দেখা দরকার। কারা খুনের আসামী ইমরানকে কার্ডের ব্যবস্থা করে দিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা নেয়া উচিত। ইমরান গ্রেফতার এড়াতে পুলিশকে ইনফ্লুয়েঞ্জ করার জন্য জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নাম বিক্রি করছে।’
প্রসঙ্গত, গত বছরের ১১ এপ্রিল দুপুরে কুমিল্লা টাউনহল মিলনায়তনে জেলা ছাত্রলীগের কর্মী সমাবেশ শেষে রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক মুজিবের অনুসারি ছাত্রলীগের একটি গ্রæপের নেতাকর্মীরা তাকে ধরে নিয়ে ছুরিকাঘাতে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। পরদিন ১২ এপ্রিল সকালে নগরীর একটি হাসপাতালে তার মৃত্যু ঘটে। ওই রাতে কোতোয়ালী মডেল থানায় মাসুদ পারভেজ খান ইমরান, তার ছোট ভাই নসরুল্লাহ খান আরমান, শহর ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক সুমন দাস, সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক রিয়াজ মাহমুদসহ ২২ জনের নাম উল্লেখ করে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। এ বছরের জানুয়ারি মাসে জাহাঙ্গীর নামে এজাহারভুক্ত এক আসামীকে সদর দক্ষিণ থানা পুলিশ গ্রেফতার করে। সাইফুল খুনের পর বেশিরভাগ আসামী ঢাকায় রেলমন্ত্রীর আশ্রয়ে ছিলেন বলে জাতীয় পত্রিকায় সচিত্র সংবাদও প্রকাশ হয়েছিল।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন