Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৪ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরী

বাকৃবির লেকে মিলছে ক্ষতিকর সাকার মাছ

রাকিবুল হাসান, বাকৃবি থেকে : | প্রকাশের সময় : ৫ জুলাই, ২০২১, ১২:০১ এএম

পুরো নাম সাকার মাউথ ক্যাটফিশ। অনেকে সাকার মাছ নামে চেনে। বৈজ্ঞানিক নাম হিপোসটোমাস প্লেকোসটোমাস। অ্যাকুরিয়ামে চাষযোগ্য বিদেশি প্রজাতির এই ক্ষতিকর মাছটি এখন দেখা মিলছে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) জলাশয়ে। সম্প্রতি বিশ^বিদ্যালয়ের ইশা খাঁ লেকে এই মাছটির সন্ধান পাওয়া গেছে। জানা যায়, সাকার মাছের পাখনা খুব ধারালো। অন্য মাছের সাথে লড়াই করার সময় ধারালো পাখনার আঘাতে সহজেই অন্য মাছের দেহে ক্ষত তৈরি হয় এবং পরবর্তীতে পচন ধরে সেগুলো মারা যায়। সাকার মাছ রাক্ষুসে প্রজাতির না হলেও প্রচুর পরিমাণে খাবার ভক্ষণ করে। এতে পুকুরে অন্য মাছের খাদ্যের অভাব দেখা দেয়। গবেষকদের তথ্য মতে, সাকার মাছের প্রভাবে মিয়ানমার ও আরব আমিরাতের মৎস্য চাষীরা ব্যাপক লোকসানের মুখে পড়েছে। বাংলাদেশে কয়েক বছর আগে উপকূলীয় জেলাগুলোতে প্রথম এই মাছের দেখা মিলে। তবে এখন বাংলাদেশ কৃষি বিশ^বিদ্যালয়ের (বাকৃবি) জলাশয়গুলোতে প্রায়ই দেখা যাচ্ছে এই মাছ। বাংলাদেশ কৃষি বিশ^বিদ্যালয়ের ফিশারিজ ম্যানেজমেন্ট বিভাগের প্রফেসর ড. হারুনুর রশীদ বলেন, সাকার মাউথ ক্যাটফিশ মাছটি সহজেই দ্রুত বংশ বিস্তার করতে সক্ষম। অনেকে শুরুর দিকে অ্যাকুরিয়াম মাছ হিসেবে পালন করলেও পরবর্তীতে মাছটি বড় হয়ে গেলে তখন পুকুর বা ডোবায় ছেড়ে দেয়। এ সব জায়গা থেকে মাছটি দ্রুত বংশ বিস্তার শুরু করে।

তিনি আরও বলেন, মাছটি খেতে সুস্বাদু না হওয়ায় সাধারণত কেউ মাছটি খায় না এবং বাজারেও মাছটির কোনো চাহিদা নেই। মাছটি ভক্ষণে কোনো স্বাস্থ্য ঝুঁকি আছে কিনা সে বিষয়ে এখনো কোনো গবেষণা হয়নি বলেও তিনি জানান।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বাকৃবি


আরও
আরও পড়ুন