Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ আগস্ট ২০২০, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৭, ২০ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী

১১ লাখ হতদরিদ্র দারিদ্র্যমুক্ত প্রকল্পটি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বৈষম্যহীন সমাজ, শেখ হাসিনার মধ্যম আয় ও উন্নত বাংলাদেশ গড়ার সহায়ক শক্তি -রাঙ্গা

প্রকাশের সময় : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : গ্রামীণ পশ্চাৎপদ অতিদরিদ্র জনগোষ্ঠীকে দারিদ্র্যমুক্ত কর্মসূচির আওতায় ১১ লাখ হতদরিদ্রকে দারিদ্র্যমুক্ত করা হয়েছে। পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের তত্ত¡াবধানে ইকোনমিক এমপাওয়ারমেন্ট অব দ্য পুওরেস্ট ইন বাংলাদেশ (ইইপি)/সিঁড়ি প্রকল্পের আওতায় দেশের বিভিন্ন এলাকায় এ কার্যক্রম বাস্তবায়িত হয়। ব্রিটিশ, এসডিসি ও বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে ১০১২ কোটি ৬৫ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রকল্পটি ৩০ জেলার ১১৫টি উপজেলায় প্রায় ৪ লাখ হতদরিদ্র পরিবারকে দারিদ্র্যশূন্য করতে ফেব্রæয়ারি, ২০০৮ হতে সেপ্টেম্বর ২০১৬ মেয়াদে কাজ করেছে।
গতকাল রাজধানীর হোটেল রেডিসনে প্রকল্পের সমাপনী সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রকল্পের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এইমন্ টেইলরের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে এলজিআরডি ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মো: মসিউর রহমান রাঙ্গা এবং অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের অতিরিক্ত সচিব আনন্দ চন্দ্র বিশ্বাস, প্রকল্প পরিচালক ও অতিরিক্ত সচিব ভবেশ চন্দ্র পোদ্দার, ডিএফআইডি প্রতিনিধি অ্যালেক্স ম্যাকলিন ও এসডিসি প্রতিনিধি সিরোকো মেসেরলি। প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশের চর, হাওড়, বাওর, জলাবদ্ধ, সমুদ্র উপকূলবর্তী ঘূর্ণিঝড়প্রবণ, পার্বত্য ও কর্মসংস্থানবিহীন এলাকার ১১ লাখ হতদরিদ্রকে দারিদ্র্যমুক্ত করেছে। এ প্রকল্পটি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের ক্ষুধা, দারিদ্র্যমুক্ত ও বৈষম্যহীন সমাজ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয় ও ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ গড়ার রূপকল্পের সহায়ক শক্তি।
তিনি প্রকল্পটি সফলভাবে বাস্তবায়ন করায় ব্রিটিশ ও সুইজারল্যান্ড সরকারসহ সংশ্লিষ্ট দাতাগোষ্ঠীকে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করে ভবিষ্যতে এ ধরনের জনকল্যাণকর আরো প্রকল্প গ্রহণের আহŸান জানান।
উল্লেখ্য, দরিদ্রবান্ধব ইইপি প্রকল্পটি উপকারভোগীর বিনামূল্যে স্বাস্থ্যসেবা, পুষ্টি, ওষুধপত্র, গবাদি পশু, রিকশা-ভ্যান ও ব্যবসায়ে অফেরতযোগ্য মূলধন প্রদান করেছে। এছাড়া তাদের আয়বর্ধক বিভিন্ন বিষয়ে প্রাথমিকভাবে প্রশিক্ষিত করেছে। প্রকল্পের আওতায় যুক্তরাজ্যের ক্যামব্রিজ ও বাথ বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশকে দারিদ্র্যশূন্যকরণের ওপর গবেষণাকর্ম সম্পাদন করে তা প্রতিফলন ঘটিয়েছে। পরে কারিগরি পর্ব ও মুক্তালোচনা অনুষ্ঠিত হয়। এতে আলোচক ছিলেন অর্থনীতিবিদ প্রফেসর ইসমাইল হোসেন, ড. জুলফিকার আলী, অ্যারোমা দত্ত ও যুক্তরাজ্যের বাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ড. জো ডিভাইন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ