Inqilab Logo

বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১১ কার্তিক ১৪২৮, ১৯ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

ইংল্যান্ডকেই এগিয়ে রাখছেন সালাউদ্দিন

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১২ জুলাই, ২০২১, ১২:০২ এএম

ইউরোর শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে ইংল্যান্ড ও ইতালি। ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে আজ বাংলাদেশ সময় রাত ১টায় শুরু হবে ম্যাচটি। এ ম্যাচে স্বাগতিক ইংল্যান্ডকেই এগিয়ে রাখছেন বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) চারবারের সভাপতি, সাবেক তারকা ফুটবলার কাজী মো. সালাউদ্দিন। ম্যাচের আগে দু’দলের সম্ভাবনা নিয়ে তিনি গতকাল সাংবাদিকদের জানান, এবার ইউরোর একটা উপভোগ্য ফাইনালই দেখবেন ফুটবলপ্রেমীরা। ইতালির মাঝমাঠ শক্তিশালী হলেও ইংল্যান্ডের আক্রমণভাগের খেলোয়াড়রা দ্রুতগতির। ম্যাচের ভাগ্য যে কোন সময় বদলে দেয়ার মতো একাধিক খেলোয়াড় আছে তাদের। তাছাড়া দু’দলের রক্ষণভাগই বেশ জমাট।
সালাউদ্দিন বলেন,‘স্বাগতিক হিসেবে মানসিকভাবে কিছুটা এগিয়ে থেকেই ফাইনালে মাঠে নামবে ইংল্যান্ড। ১৯৬৬ সালের পর বড় কোন টুর্নামেন্টের শিরোপা পাওয়া হয়নি দলটির। দীর্ঘ ৫৫ বছরের শিরোপা খরা কাটিয়ে প্রথমবারের মত ইউরোপীয়ান চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে ওঠার স্মৃতিটাও স্মরণীয় করে রাখতে চাইবে ইংলিশরা।’ তিনি যোগ করেন,‘ফাইনালে মাঝমাঠে ইতালি প্রাধান্য দেখাতে চাইবে নিঃসন্দেহে। তবে ইংল্যান্ডের আক্রমণের সেরা সম্ভাবনা তৈরি হতে পারে মাঠের দু’পাশ দিয়ে। যেখানে তাদের দুই ফুলব্যাক আছেন দুর্দান্ত ফর্মে। এছাড়া ইংল্যান্ডের সাইডবেঞ্চ দারুণ সমৃদ্ধ। কাকে রেখে, কাকে দলে নেবেন তার সিদ্ধান্ত নিতে বেশ ভাবতে হয় ইংলিশ কোচ সাউথগেটকে।’
ইতালির ডিফেন্ডার এমেরসন পালমিয়েরি এখন পর্যন্ত খুব একটা খারাপ খেলেননি। তবে আক্রমণে লরেন্সো ইনসিনিয়ের সঙ্গে মিলে অতটা ভয়ঙ্কর নন তিনি। অপর দিকে ইংল্যান্ডের রয়েছে লেফট ব্যাক লুক শ এবং ফরোয়ার্ড রাহিম স্টার্লিংয়ের বিপজ্জনক জুটি। সালাউদ্দিন মনে করেন, তাদের সামলাতে ইতালি রাইট ব্যাক জিওভানি দি লরেন্সোকে দিতে হবে কঠিন পরীক্ষা। তিনি বলেন,‘ইংল্যান্ডের রাইট ব্যাক কাইল ওয়াকারের শক্তি ও গতি দলের আক্রমণে বাড়তি শক্তি যোগাবে বলে আমার বিশ্বাস।’ বাফুফে সভাপতি আরও বলেন,‘ইংল্যান্ড ফরোয়ার্ড হ্যারি কেইন সাধারণত প্রতিপক্ষের মার্কিংয়ে থাকাদের চেয়ে দূরে থেকে আক্রমণে ওঠেন। তার উদ্দেশ্য থাকে ডিফেন্ডাররা যেন তাদের জায়গা ছেড়ে বের হয়ে আসে। এতে কেইনের সতীর্থদের জন্য ফাঁকা জায়গা তৈরি হয়। ফলে সহজেই বল পেয়ে প্রতিপক্ষ রক্ষণে ঝাঁপিয়ে পড়েন তারা।’
ইউরোর এবারের আসরে ইংল্যান্ডের দুই ডিফেন্ডার হ্যারি ম্যাগুইয়ার ও জন স্টোনস দুর্দান্ত ফর্মে আছেন। পুরো টুর্নামেন্টে মাত্র একটি গোল হজম করা ইংলিশ রক্ষণভাগের বিরুদ্ধে ইতালি ফরোয়ার্ড চিরো ইম্মোবিলকে দিতে হবে কঠিন পরীক্ষা। ইতালির আক্রমণ বেশি কার্যকর হয় তখন যখন দুই পাশের খেলোয়াড়রা চাপ বাড়ায় এবং তাতে ফাঁকা জায়গা তৈরি হয়। ফলে ইম্মোবিল আটকে গেলেও উঠে আসা অন্যরা সুযোগ কাজে লাগাতে পারেন। ডান পাশের ফেদেরিয়ো চিয়েসা এবং বাম পাশের লরেন্সো ইনসিনিয়ে প্রায়ই মাঝ বরাবর দিয়ে আক্রমণে যান আর বারেল্লাও যখন তাদের সঙ্গে যোগ দেন তখন ইতালির আক্রমণের ধার বেড়ে যায়। তবে সালাউদ্দিনের প্রশ্ন- ইতালি কি পারবে ইংল্যান্ডের রক্ষণে ভাঙ্গন ধরাতে?



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: সালাউদ্দিন


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ