Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮, ০২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

গৃহস্থের বাড়িতে কোরবানির গোশত ও দই খেয়ে ডাকাতি অজ্ঞান অবস্থায় দুই নারী উদ্ধার

প্রকাশের সময় : ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ঝিনাইদহ জেলা সংবাদদাতা : ঝিনাইদহ সদর উপজেলার ল²ীপুর গ্রামে ৩ বাড়িতে ডাকাতি হয়েছে। ডাকাতরা স্বর্ণ, টিভি, মোবাইল, নগদ টাকাসহ কয়েক লাখ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে। রোববার দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। গতকাল সোমবার সকালে ডাকাত দলের নির্যাতনের শিকার দুই নারীকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। এরা হলো ওই গ্রামের সবুজের স্ত্রী সুমাইয়া (২০) ও তার মা সুন্দরী বেগম (৫০)। তাদেরকে মুমূর্ষু অবস্থায় ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের উপর পাশবিক নির্যাতন করা হয়েছে কিনা তা পুলিশ তদন্ত করে দেখছে। ঝিনাইদহের বেতাই পুলিশ ক্যাম্পের তদন্ত কর্মকর্তা এস,আই মো: তারিকুল ইসলাম তারিক জানান, ঘটনার সময় ৭/৮ জনের একদল দুর্বৃত্ত অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে গভীর রাতে ল²ীপুর গ্রামের কবীর, আবদুল ও সবুজের বাড়িতে হানা দেয়। তারা পরিবারের সদস্যদের জিম্মি করে স্বর্ণ, নগদ টাকাসহ ঘরের মালামাল লুট করে নিয়ে যায় । সকালে খবর পেয়ে সুমাইয়া ও সুন্দরী বেগম নামের দুই নারীকে অজ্ঞান অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। তাদের ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। খাবারের সাথে বিষ মিশিয়ে তাদের খাওয়ানো হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।
ঘটনার সময় সবুজের বাড়িতে কোনো পুরুষ মানুষ ছিলেন না বলেও নিশ্চিত করেছেন পুলিশ ক্যাম্পের আইজি। এদিকে গ্রাম্য সূত্র জানায়, ডাকাত দল প্রথমে কবীর ও তার ভাই আবদুলের বাড়িতে হানা দেয়। এরপর তারা সবুজের বাড়িতে যায়। সবুজের পুরুষশূন্য বাড়িতে ডাকাত দলের সদস্যরা ফ্রিজ থেকে গোশত ও দই বের করে মজা করে খায়। এর পরে সুমাইয়া ও সুন্দরী বেগমকে খাবারের সাথে কিছু মিশিয়ে অজ্ঞান করে। যাওয়ার সময় ঘরে থাকা নগদ টাকা মোবাইল টিভিসহ মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। সকালে খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকায় নতুন করে ডাকাত আতংক সৃষ্টি হয়। ডাকাত দলকে ধরার জন্য অভিযান শুরু করেছে পুলিশ। এলাকাবাসী জানায়, গান্না ইউনিয়নে একটি চিহ্নিত চক্র ডাকাতি, ছিনতাই ও গরু চুরির সাথে জড়িত।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।