Inqilab Logo

শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২ আশ্বিন ১৪২৮, ০৯ সফর ১৪৪৩ হিজরী

ফেনীতে চাঁদা না দেয়ায় গরু ব্যবসায়ী খুন, ফেঁসে যাচ্ছেন কাউন্সিলর

ফেনী জেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১৬ জুলাই, ২০২১, ৭:০২ পিএম

ফেনী পৌরসভার সুলতান এলাকায় গরু ছিনতাই চক্রের হাতে প্রাণ গেল শাহজালাল (৩০) নামের এক গরু ব্যবসায়ীর। গতকাল বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে এ ঘটনা ঘটে। আজ শুক্রবার সকালে পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালামের বিরুদ্ধে খুনের অভিযোগ উঠেছে। পুলিশ কালামের সহযোগী সাগরকে আটক করেছে।

নিহতের পরিবার জানায়, শাহজালাল নামে ঐ গরু ব্যবসায়ী ব্যবসার উদ্দেশ্যে নিজ জেলা কিশোরগঞ্জ থেকে ট্রাক ভর্তি ১৫টি গরু নিয়ে বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে ফেনীর সুলতানপুরে আসে। এলাকার ক্যাডেট কলেজ সংলগ্ন আহসান মিয়ার বাড়িতে গরুর ট্রাক পৌঁছার খবর পেয়ে স্থানীয় ওয়ার্ল্ড কাউন্সিলর কালাম তার বাহিনী নিয়ে ছুটে আসেন। এসময় কালাম বলেন, আমি এ এলাকার কাউন্সিলর। আমার অনুমতি ছাড়া এলাকায় গরুভর্তি ট্রাক কেন আনলি। একপর্যায়ে কালাম ও ক্যাডার বাহিনী গরুভর্তি ট্রাকের চাবি চায়। কিন্তু গরু বেপারী শাহজালাল চাবি দিতে অস্বীকৃতি জানায়। কালাম ও তার বাহিনীর শোর চিৎকার ও গাল মন্দের আওয়াজ শুনে শাহজালালের চাচাতো ভাই মো. আল-আমিন ঘর থেকে বের হয়। আল আমিন শাহজালালকে তার ভাই পরিচয় দিয়ে গরুগুলো ব্যবসার উদ্দেশ্যে এলাকা থেকে এনেছে বলে জানায়। খবর শুনে কালাম আরো বেপরোয়া হয়ে আল আমিনকে মারধর শুরু করেন। তার স্ত্রী সুমি কালামের হাতে পায়ে ধরে আল-আমিনকে ছাড়িয়ে নেন। তাৎক্ষনিক ঘটনা জানাজানি হলে কাউন্সিলর ও তার সহযোগীরা ক্ষোভে শাহজালালকে মোটর সাইকেলে তুলে নিয়ে যায়। কিছুদূর যাবার পর তারা গুলির আওয়াজ শুনতে পায়। আজ সকালে তার লাশ ওই এলাকায় একটি জমিতে পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। স্বজনদের ধারণা কাউন্সিলর কালাম এ হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে। নিহত শাহজালাল (৩০) কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ থানার সাগুলি গ্রামের আবদুল জব্বার এর ছেলে।
এ ঘটনায় নিহতের চাচাতো ভাই আনোয়ার হোসেন বাদী হয়ে ফেনী মডেল থানায় ফেনী পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক আবুল কালামকে প্রধান আসামি করে তার বাকী দুই সহযোগী রাজু ও নাইম সহ তিনজনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন।

এদিকে পুলিশ সুপার খোন্দকার নুরুন্নবী (পিপিএম, বিপিএম) ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ফেনী মডেল থানার পরিদর্শক নিজাম উদ্দিন জানান, হত্যার ঘটনায় নিহতের চাচাতো ভাই বাদী হয়ে কাউন্সিলর সহ তিনজনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন। রহস্য উদঘাটনে কাজ করছে পুলিশ। অপরাধী যেই হোক তাকে আটক করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ফেনী


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ