Inqilab Logo

বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৩ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরী

মাগুরায় মধুমতি নদীর ভাঙ্গনের তীব্রতা বৃদ্ধি মানুষের মাঝে আতংক

মাগুরা থেকে স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ১৮ জুলাই, ২০২১, ২:২৮ পিএম

মহম্মদপুরে মধুমতি নদীর পানি অস্বাভাবিক ভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় নদী ভাঙনের তীব্রতা ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। এতে মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার মানচিত্র থেকে ক্রমাগত হারিয়ে যাচ্ছে চরপাচুড়িয়া, মহেষপুর, হরেকৃষ্ণপুর, আড়মাঝি, রায়পুর, রুইজানি ও ভোলানাথপুর গ্রাম।

গত দুই বছরে বর্ষা মৌসুমে মধুমতির ভাঙনে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে এই উপজেলার ৪৫ টি পরিবারের শতাধিক ঘর-বাড়ি। এ বছর ভাঙনের মুখে রয়েছে অসংখ্য দোকান-পাটসহ হাজার হাজার একর ফসলি জমি। চলতি বর্ষা মৌসুমে উপজেলার ৬টি গ্রামের ২-৩ কি.মি. এলাকা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এদিকে নদীর তীব্র ভাঙন রোধে এলাকাবাসীর আবেদনের প্রেক্ষিতে মাগুরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সরোয়ার জাহান সুজন, উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আবু আব্দুল্লাহেল কাফী, ইউএনও রামানন্দ পাল বৃহস্পতিবার বিকেলে ভাঙন কবলিত স্থান পরিদর্শন করেন। এ সময় তারা ভাঙন রোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিলেও এখনও কোনো কার্যক্রম শুরু হয়নি। এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।

রুইজানি এলাকায় দেখা গেছে, গত কয়েক দিনের ভাঙনে কাশিপুর গ্রামের ছোরন মিয়া, পান্নু মিয়া, ধনি মোল্যা, ইসলাম শেখ ও জাহাঙ্গীর মোল্যার বাড়ি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। তারা কেউ কেউ অন্যের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছেন আবার কেউ রাস্তার পাশে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। অন্যদিকে পানি বৃদ্ধির কারণে নদী ভাঙন ক্রমাগত বেড়েই চলছে। ভাঙন ভয়াল আকার ধারণ করায় নদী তীরবর্তী বসবাসকারীদের মধ্যে চরম আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। এ ছাড়া উপজেলার চরপাচুড়িয়া, মহেষপুর, কাশিপুর, ভোলানাথপুর, আড়মাঝি, হরেকৃষ্ণপুর, চরপাচুড়িয়া ও রুইজানি নদী তীরবর্তী এলাকার ভাঙনকবলিত অধিবাসীদের এখন দিন কাটছে চরম আতঙ্কে। এসব গ্রামের মসজিদ,মন্দির, ঈদদগাহসহ হাজার হাজার একর ফসলি জমি ও বসত-বাড়ি বেশি ভাঙনের কবলে পড়েছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, নদীর ভয়াবহ ভাঙন রোধে কার্যকারী পদক্ষেপের আবেদন জানালেও ভূমিকা রাখছেন না স্থানীয় জনপ্রতিনিধি বা উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ।

এদিকে, গোপালনগর থেকে পাল্লা পর্যন্ত প্রায় পাঁচ কি.মি. নদীর মাঝ বরাবর বিশাল চর জেগে উঠায় স্রোতপ্রবাহ বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। এতে প্রবল বেগে নদী তীরে ঢেউ আঁচড়ে পড়ে নদীর ভাঙন বৃদ্ধি পাচ্ছে । সেই সঙ্গে নদী তীরবর্তী গ্রাম গুলো ক্রমেই ভাঙনের কবলে পড়ে নিশ্চিহ্ন হচ্ছে।

এ ব্যাপারে মহম্মদপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রামানন্দ পাল ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে বলে জানান। তাছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মধ্যে খাদ্য সহযোগিতা দেওয়ার ব্যাপারে তালিকা প্রণয়ন করা হচ্ছে।


মাগুরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সরোয়ার হোসেন সুজন জানান, নদী ভাঙন রোধে কাশিপুর এলাকায় প্রায় দেড় কোটি টাকা ব্যয়ে ১৫০ মিটার বাধ নির্মাণ কাজ ইতি মধ্যেই শেষ করা হয়েছে বলে জানান। গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় ভাঙনরোধে জিও ব্যাগ ফেলানোর জন্য নতুন করে বরাদ্দ পাওয়া গেছে এবং দুই এক দিনের মধ্যে কাজ শুরু হবে বলে জানান। তাছাড়া ভোলানাথপুর এলাকায় জিও ব্যাগ ফেলানোর প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি নতুন করে বাধ নির্মাণ করতে পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ে বরাদ্দ চেয়ে চিঠি পাঠান হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভাঙ্গন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ