Inqilab Logo

সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০২ কার্তিক ১৪২৮, ১০ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

শেষ কর্মদিবসে সচিবদের উপস্থিতি বেশি

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২০ জুলাই, ২০২১, ১২:০৭ এএম

ঈদুল আজহার আগে শেষ কর্মদিবস ছিল গতকাল সোমবার। করোনার কারণে মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী এবং উপমন্ত্রীরা না থাকলেও প্রশাসনের প্রাণ কেন্দ্র সচিবালয়ে অফিস করেছেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব, তথ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবরা। তবে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতি আগের মতো ছিল না। এর মধ্যে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী অফিস করেছেন। শেষ কর্মদিবস হওয়ায় উপস্থিত কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সহকর্মীদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন।

গতকাল সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ ঘুরে দেখা গেছে, অনেক কক্ষই ফাঁকা। কোনো কোনো কক্ষে স্বাভাবিকের চেয়ে কম কর্মচারীদের অফিস করতে দেখা গেছে। আগামীকাল বুধবার দেশে মুসলমানদের দ্বিতীয় বড় ধর্মীয় উৎসব ঈদুল আজহা উদযাপিত হবে। সে অনুযায়ী আজ মঙ্গলবার, বুধবার ও বৃহস্পতিবার সরকারি ছুটি থাকবে। এরপর আগামী শুক্রবার সকাল ৬টা থেকে শুরু হবে নতুন কঠোর বিধিনিষেধ।

সচিবালয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়, স্থানীয় সরকার বিভাগ, বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়, খাদ্য মন্ত্রণালয়, ভ‚মি মন্ত্রণালয়, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ঘুরে দেখা গেছে, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপিস্থিতি কম।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম সকাল থেকে অফিস করেছেন। শেষ কর্মদিবসে প্রশাসনের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের সচিবরা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিবের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেছেন।

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ গতকাল অফিস করেছেন। দুপুরের পরে আজিমপুর ও মতিঝিল এলাকায় সরকারি আবাসন প্রকল্প পরির্দশন করেছেন। তবে এ মন্ত্রণালয়ের অনেক কর্মকর্তার কক্ষ ছিল ফাঁকা।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (মন্ত্রিসভা ও রিপোর্ট অনুবিভাগ) মো. আব্দুল বারিক ইনকিলাবকে বলেন, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের কোন কর্মকর্তা কর্মচারী ঈদের ছুটি নিতে পারছে না। তারা সকলেই অফিস করছেন। আগামী ২৫ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও মাঠ প্রশাসনের সাথে পালাক্রমে করোনাভাইরাস বিস্তার রোধকল্পে সার্বিক কার্যাবলী/চলাচলে বিধি-নিষেধকালীন দায়িত্ব পালন করবেন।
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, করোনার কারণে আমাদের অফিস করতে হচ্ছে। ঈদের ছুটি নাই। তবে কয়েক দিন ধরে স্বাভাবিকভাবে অফিস চললেও আজ উপস্থিতি অকেটাই কম। অনেকে এসেই চলে গেছেন। কেউ কেউ অনলাইনে অফিসের কাজ করছেন। কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উপস্থিতি কম থাকলেও সচিবালয়ে গাড়ি রাখার স্থানগুলো গাড়িতে পূর্ণ থাকতে দেখা গেছে।

পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন, জনসাধারণের যাতায়াত, ঈদ-পূর্ববর্তী ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনা, দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থা এবং অর্থনৈতিক কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে সরকার গত ১৪ জুলাই মধ্যরাত থেকে আগামী ২৩ জুলাই সকাল ৬টা পর্যন্ত বিধিনিষেধ শিথিল করেছে। এ সময়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সরকারি ও বেসরকারি অফিসসহ সবকিছুই খোলার অনুমতি দেয়া হয়েছে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে ৫ আগস্ট দিবাগত রাত ১২টা পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধও ঘোষণা করেছে সরকার। এ সময়ে সরকারি বেসরকারি অফিস, শিল্প কারখানাসহ সারাদেশে সব ধরনের গণপরিবহন চলাচল বন্ধ রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ঈদুল আজহা

২০ জুলাই, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ