Inqilab Logo

রোববার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪ আশ্বিন ১৪২৮, ১১ সফর ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

তালেবানের বিরুদ্ধে বিমান হামলা চালিয়ে যাবে যুক্তরাষ্ট্র

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ জুলাই, ২০২১, ৭:২২ পিএম

আগামী ৯ সেপ্টেম্বরের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে সব মার্কিন সেনা দেশে ফিরে যাবে। কিন্তু তার আগে আফগান বাহিনীর সমর্থনে এবং তালেবানের বিরুদ্ধে বিমান হামলা চলাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। এবার এক সর্বোচ্চ মার্কিন সেনা কর্তা জানিয়েছেন, আগামী সপ্তাহগুলোতেও বিমান হামলা অব্যাহত থাকবে। তবে অগাস্টের পরও বিমান হামলা হবে কি না, তা তিনি জানাননি।

যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর বাহিনী যখন আফগানিস্তান ছেড়ে চলে যাচ্ছে, তখন তালেবান একের পর এক এলাকা দখল করে নিচ্ছে। তাদের সঙ্গে এঁটে উঠতে পারছে না আফগান সেনা। সম্প্রতি তালেবান আরো সক্রিয় হয়েছে। তারা গ্রামের দিকের এলাকা দখল করে এবার আঞ্চলিক রাজধানীগুলি ঘিরে ফেলেছে। এ বিষয়ে কাবুলে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় মার্কিন জেনারেল কেনেথ ম্যাকেঞ্জি একটি প্রশ্ন এড়িয়ে গেছেন। সেটা হলো, ৩১ অগাস্টের পরেও কি অ্যামেরিকা এই বিমান হামলা চালাবে? তিনি শুধু বলেছেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র আফগান সেনাকে সমর্থন জানিয়ে যাবে। সেই সমর্থন সাধারণভাবে আকাশপথেই হবে।’

ম্যাকেঞ্জি বলেছেন, ‘গত কয়েকদিন ধরে তালেবানের বিরুদ্ধে অ্যামেরিকার বিমান হামল চলছে। যদি তালেবান আক্রমণ চালিয়ে যায় তাহলে আগামী সপ্তাহগুলিতে তা আরো বাড়ানোর জন্য আমরা প্রস্তুত।'' ম্যাকেঞ্জি জানিয়েছেন, ''আগামী দিন ও সপ্তাহগুলি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।’ তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি না, এটা একটা সহজ রাস্তা। কিন্তু আমি এটাও মনে করি না যে, আফগানিস্তানে গৃহযুদ্ধ হবে।’

এদিকে গত রোববারেও কান্দাহারের পাশে লড়াই হয়েছে। গত মাসে সেখান থেকে ২২ হাজার পরিবার বাড়ি ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে চলে গেছেন। কান্দাহারে ছয় লাখ ৫০ হাজার মানুষ থাকেন। এটা আফগানিস্তানের দ্বিতীয় সব চেয়ে বড় শহর। ১৯৯৬ থেকে ২০০১ পর্যন্ত এই শহর ছিল তালেবানের ক্ষমতার মূল কেন্দ্র। ম্যাকেঞ্জি স্বীকার করে নিয়েছেন, কান্দাহারে মার্কিন বিমান হানা হয়েছে।

মানবাধিকার সংগঠন হিউম্যান রাইটস ওয়াচ জানিয়েছে, তালেবান সাধারণ মানুষের উপর অত্যাচার করছে। তবে তালেবান নেতারা তা স্বীকার করেননি। কিন্তু মানবাধিকার সংগঠনের দাবি, যেভাবে সাধারণ মানুষকে আটক করা হচ্ছে, মারা হচ্ছে, তার থেকেই বোঝা যাচ্ছে, তাদের উপর অত্যাচার চালানো হচ্ছে। ভয় পেয়ে সাধারণ মানুষ তাই ঘর ছাড়ছেন বলেও জানিয়েছে এই মানবাধিকার সংগঠন। সূত্র : এএফপি, রয়টার্স।



 

Show all comments
  • মোঃ+দুলাল+মিয়া ২৬ জুলাই, ২০২১, ৯:১৫ পিএম says : 0
    .. তেদের কি দরকার বিমান হামলা চালানোর,তেদের বাবার দেশ না কি,তাদের দেশ তাদের বেপার তাহারা কি করবে তাদের জনগণ নিয়ে তাহারা বসবাস করবে খাবে তাদের কি আসে যায়,জলদি জান নিয়ে নিজের দেশে চলে যা,অন্যথায় গাড় ভেংগে রক্ত কুততাকে খাওয়াইবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আফগানিস্তান-যুক্তরাষ্ট্র


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ