Inqilab Logo

সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৫ আশ্বিন ১৪২৮, ১২ সফর ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

মির্জাগঞ্জে বন্ধ মাদ্রাসার শ্রেণীকক্ষ যেন গোয়ালঘর

মির্জাগঞ্জ (পটুয়াখালী) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ২৮ জুলাই, ২০২১, ১:৩৩ পিএম

মির্জাগঞ্জে শিক্ষক -কর্মচারীর গোয়ালঘরে পরিণত হয়েছে মাদ্রাসা। করোনা সংক্রমণে সারা দেশের ন্যায় পাঠদান কার্যক্রম বন্ধ থাকলেও শ্রেণিকক্ষে বাঁধা আছে গরু ও ছাগল।

বুধবার (২৮ জুলাই) উপজেলার আমড়াগাছিয়া ইনিয়নের আমড়াগাছিয়া ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসায় একটি কক্ষে গরু বাঁধা, আরও দুটি কক্ষের বেঞ্চের উপরে ও নিচে বসে পাতা খাচ্ছে ছাগল এমনই চিত্র দেখা যায়।

খোঁজ নিয়ে যানা যায়, করোনার কারণে মাদ্রাসা বন্ধ থাকার সুযোগে শেণিকক্ষ দখল করে গোয়ালঘর তৈরি করেন শিক্ষক কর্মচারীরা । মাদ্রাসার একটি কক্ষে নিয়মিত গরু বাধেন নাইটগার্ড শাহীন বিশ্বাস, অন্য ২ কক্ষে রয়েছে এলাকার বারেক বিশ্বাস ও মাদ্রাসার সহকারী ক্বারি মোঃ আফজাল বিশ্বাসের ছাগল । মাদ্রাসা বন্ধের শুরু থেকেই শ্রণিকক্ষে গরু ছাগল বেঁধে পালন করছে শিক্ষক - কর্মচারীরা।

মাদ্রাসার নাইটগার্ড মোঃ শাহীন বিশ্বাস গরু বাঁধার কথা স্বীকার করে বলেন, আজকেই গরু বাধছি। কতৃপক্ষ কিছু বলেনা। ছাগলগুলো আফজাল হুজুর ও বারেক বিশ্বাসের ।
সহকারী ক্বারি মোঃ আফজাল হোসেনের মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি অসুস্থ্য। এ বিষয়ে কিছু জানিনা।
জানতে চাইলে মাদ্রাসার সুপার (ভারপ্রাপ্ত) মাওলানা মোঃ ইউসুফ বলেন, আমি অনেক বার তাদের নিষেধ করেছি। কিন্তু আমার কথা শুনে না।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোসাঃ তানিয়া ফেরদৌস বলেন, সরেজমিনে প্রতক্ষ্য করার জন্য মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে বলা হয়েছে। ঘটনার সত্যতা পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার কাজী সাইফুদ্দীন ওয়ালীদ বলেন, ঘটনা স্থলে গিয়ে বিষয়টির সত্যতা পাওয়া গেলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে আলাপ করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ