Inqilab Logo

সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮, ১৯ সফর ১৪৪৩ হিজরী

জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকলেও মিলবে টিকা

১৮ বছর বয়সীরা ৮ আগস্ট থেকে টিকা নিতে পারবেন

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২ আগস্ট, ২০২১, ১২:০১ এএম

করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষার জন্য আগামী ৮ আগস্ট থেকে ১৮ বছর বয়সীরাও টিকার জন্য নিবন্ধন করতে পারবেন। ১৮ বছরের বেশি অথচ এনআইডি কার্ড নেই, তাদের বিশেষভাবে নিবন্ধন করে টিকা দেয়া শুরু হবে ৭ আগস্ট। গত শনিবার সন্ধ্যায় নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এ কথা জানান তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। ওই পোস্টে তিনি জানান, যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র নেই তারাও করোনার টিকা পাবেন। এর আগে গত শনিবার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে জাপান থেকে আসা উপহারের অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার দ্বিতীয় চালান গ্রহণ শেষে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এনআইডি না থাকলেও বিশেষ ব্যবস্থায় টিকা দেয়া হবে বলে জানান।

গতকালও সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আগামী ৭ আগস্ট থেকে সারাদেশের ইউনিয়ন পর্যায়ে করোনার টিকাদান কর্মসূচি শুরু হবে। এক সপ্তাহের মধ্যে এক কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দেয়া হবে। জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকলেও বিশেষ ব্যবস্থায় দেয়া হবে বয়স্কদের টিকা। এই টিকা প্রদানের ক্ষেত্রে বয়স্কদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। এমনকি বয়স্করা যদি শুধুমাত্র এনআইডি কার্ড নিয়েও টিকাদান কেন্দ্রে আসেন, তারপরও তাদের টিকা দেয়া হবে। কারণ করোনাভাইরাসে বয়স্করাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন। তারাই বেশি মারা যাচ্ছেন। আমরা মৃত্যুর হার কমাতে চাই। তাই এ কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছি। একই সঙ্গে দ্রুতই টিকা প্রদানের পরিকল্পনা আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হবে। এর আগে, শনিবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের মাঠ প্রশাসন শাখার উপসচিব মোহাম্মদ রেজাউল করিম সাক্ষরিত এক চিঠিতে জানানো হয়েছে, ১৮ বছরের বেশি অথচ এনআইডি কার্ড নেই, তাদের বিশেষভাবে নিবন্ধন করে টিকা দেয়া শুরু হবে ৭ আগস্ট।

এদিকে, ৭ আগস্ট থেকে সারা দেশে ১৬ হাজার ১৫৩টি টিকাকেন্দ্রের মাধ্যমে কোভিড টিকার ক্যাম্পেইন শুরু করতে যাচ্ছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। ৭ আগস্ট থেকে সারা দেশে কোভিড টিকার ক্যাম্পেইন পরিচালনার জন্য বিশদ পরিকল্পনা করেছে স¤প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচি- ইপিআই। এই ক্যাম্পেইন চলার সময় কেন্দ্রে সাথে সাথে নিবন্ধন করে টিকা দেয়া হবে। পরিকল্পনা অনুযায়ী, প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে টানা তিন দিন টিকা দেয়া হবে। সকাল ৮ টা থেকে শুরু করে ৩টা পর্যন্ত একেকদিন ২০০ ডোজ করে টিকা দেয়া হবে।

দেশে প্রথম ৫৫ বছরের ওপরে সবার টিকা দেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছিল এ বছরের ২৭ জানুয়ারি থেকে। পরে তা নামিয়ে আনা হয় ৪০ বছরে। চলতি মাসের শুরুতে ওই বয়সসীমা আরো কমিয়ে নামানো হয় ৩৫ বছরে, এরপর নামে ৩০ বছরে। গত বৃহস্পতিবার তা নামিয়ে ২৫ বছর করা হয়।

সবাইকে টিকার আওতায় আনতে ধারাবাহিকভাবে বয়সসীমা কমিয়ে আনা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক প্রফেসর ডা. এবিএম খুরশীদ আলম। তিনি বলেন, সুরক্ষা অ্যাপটা ম্যানেজ করে আইসিটি বিভাগ। আমরা তাদের বলেছি বয়সসীমা ১৮ বছর পর্যন্ত করার জন্য। এটা তারা ধাপে ধাপে করছে। একবারে ১৮ বছর পর্যন্ত করে দিলে তাদের ওপর চাপ পড়বে। এজন্য ধীরে ধীরে বয়সসীমা কমাচ্ছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: করোনাভাইরাস


আরও
আরও পড়ুন