Inqilab Logo

শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৩ আশ্বিন ১৪২৮, ১০ সফর ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

বিভ্রান্তি দূর করতে গরুর গোশত খেতে বললেন বিজেপির মন্ত্রী

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩ আগস্ট, ২০২১, ১২:০৩ এএম

ভারতে গো-কল্যাণে গো গোশত নিষিদ্ধ করার সপক্ষে অবস্থান নিতে দেখা যায় ছোট বড় সব দলের নেতাকেই। কিন্তু দলের অবস্থান থেকে একেবারে উল্টো পথে হাঁটলেন মেঘালয়ের মন্ত্রী বিজেপি নেতা সানবর শুল্লাই। চিকেন, মাটন বা মাছ নয়, রাজ্যের মানুষকে গো গোশত খেতে উৎসাহিত করলেন তিনি। তার দাবি, খামোকা তাদের দলকে নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে। তা দূর হওয়া প্রয়োজন। মেঘালয়ের পড়শি রাজ্য আসামে গো গোশত নিয়ে কড়াকড়ি চালু করতে উদ্যোগী হয়েছে সেখানকার বিজেপি সরকার। অমুসলিম এলাকায় গোশতের দোকান থাকা চলবে না- এ মর্মে বিধানসভায় বিলও এনেছেন মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। কিন্তু মেঘালয়ে তেমন হওয়ার আশঙ্কা নেই বলে জানিয়েছেন সানবর। সংবাদমাধ্যমে তিনি বলেন, আমি তো চিকেন, মাটন, মাছের থেকে গো গোশত খেতেই উৎসাহিত করি মানুষকে। সংখ্যালঘুদের মধ্যে একটা বিভ্রান্তি তৈরি হয়েছে যে মেঘালয়েও গোহত্যা বিরোধী আইন তৈরি করবে বিজেপি। এ বিভ্রান্তি দূর হওয়া প্রয়োজন। এক সপ্তাহ আগেই পশুপালন মন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েছেন সানবর। তার বক্তব্য, ভারত একটি গণতান্ত্রিক দেশ। যার যা ইচ্ছে খাবেন। শুধু তাই নয়, প্রতিবেশী রাজ্যে গো-হত্যা নিষিদ্ধ আইন চালু হলেও সেখান থেকে মেঘালয়ে গরু-বাছুরের আমদানি যাতে বন্ধ না হয়, তা নিয়ে হিমন্তর সাথে কথাও বলবেন বলে জানিয়েছেন সানবর। বিজেপি যেখানে বরাবরই গো গোশত বিরোধী, সেখানে সানবরের এ মনোভাবের পিছনে রাজনৈতিক অঙ্ক কাজ করছে বলে মনে করছেন বিরোধীরা। তাদের মতে, ২০২৩ সালে রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন। কনরাড সাংমা এবং আঞ্চলিক দলগুলোর বলে বলীয়ান না হয়ে, সেখানে দলের ভিত মজবুত করতে চায় বিজেপি। কিন্তু মেঘালয়ের একটা বড় অংশের মানুষ, যারা গো গোশত খান, তারা বিজেপির গো গোশত নিষিদ্ধ রীতির সাথে ভালোভাবেই পরিচিত। সানবর সেই ভাবমর্যাদা ভেঙে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করছেন বলে মত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদেরও। এবিপি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ