Inqilab Logo

রোববার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১ আশ্বিন ১৪২৮, ১৮ সফর ১৪৪৩ হিজরী

যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে বাস্তুহারা আফগান দোভাষীরা

স্বপ্ন ও আশাভঙ্গের কাহিনি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৪ আগস্ট, ২০২১, ১২:০২ এএম

ছয় বছর অপেক্ষার পর জিয়া গাফুরি ২০১৪ সালে পরিবার নিয়ে আমেরিকায় পাড়ি জমাতে সক্ষম হন। কাবুলে তাদের বাসস্থান ছেড়ে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী ও তাদের ছোট তিন সন্তানকে নিয়ে তিনি আমেরিকার মাটিতে পা রাখেন।
আফগানিস্তানে আমেরিকান বিশেষ বাহিনীতে দীর্ঘ ১৪ বছর দোভাষী হিসাবে কাজ করার পুরস্কার হিসাবে তাদের পাঁচজনের হাতে আমেরিকান ভিসা তুলে দেয়া হয়। কিন্তু পুরস্কারের সেখানেই ইতি। আমেরিকায় পৌঁছানোর পর জিয়া সহায়সম্বলহীন বাস্তুহারা এক মানুষে পরিণত হন। সহৃদয় এক স্বেচ্ছাসেবী তাকে একটা আশ্রয় শিবিরে পাঠিয়ে দেন। বলেন সেখানে তাকে ও তার পরিবারকে নতুন জীবন গড়ে তুলতে হবে। সাত বছর পর সেই স্মৃতি এখনও তার ক্ষোভ উস্কে দেয়।

গাফুরি এখন থাকেন নর্থ ক্যারোলাইনায়। সেখান থেকে বিবিসিকে তিনি বলেন, তার মনে আছে সেসময় ছেলেমেয়েদের চোখের দিকে তাকাতে তার বুক ভেঙে যেত। তাদের আমেরিকায় নিয়ে যাবার জন্য ক্ষমা চাইতেন। তবে ৩৭ বছর বয়সী জিয়া গাফুরি বলেন, তার সহকর্মী যারা দোভাষী ছিলেন, তাদের মধ্যে তিনি নিজেকে ভাগ্যবান মনে করেন, কারণ শেষ পর্যন্ত তিনি আমেরিকায় পালাতে পেরেছিলেন।

পশ্চিমা বাহিনী যখন দেশ থেকে তালেবানকে উৎখাত করতে ২০০১ সালে আফগানিস্তানে অভিযান শুরু করল, তখন থেকে আমেরিকান এবং মিত্র জোটের সৈন্যদের জন্য হাজার হাজার আফগান দোভাষী, ফিক্সার এবং তাদের গাইড হিসাবে কাজ করেছে। যা শেষ পর্যন্ত আমেরিকার দীর্ঘতম লড়াইয়ে রূপ নেয় তা শুরু হবার দুই দশক পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এ বছর ১১ই সেপ্টেম্বরের মধ্যে আফগানিস্তান থেকে আমেরিকান সৈন্য প্রতাহারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন- এমনকি তার অর্থ যদি তালেবানের ক্ষমতায় ফিরে আসা হয় তার পরেও। বাইডেন প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন দোভাষীদের গণহারে আফগানিস্তান থেকে সরিয়ে আনার কাজ শুরু হবে অগাস্ট মাসে। প্রথম দলটিতে রয়েছেন আড়াই হাজার দোভাষী। তাদের মধ্যে ২০০ আফগান শুক্রবার আমেরিকায় পৌঁছেছেন, যেখানে তাদের ভিসার আবেদন সম্প‚র্ণ করে নতুন জীবন শুরু করতে হবে।

আমেরিকান সেনাবাহিনীতে দোভাষী হিসাবে কাজ করেছিলেন ৫০ হাজার আফগান। তাদের কাজের স্বীকৃতি হিসাবে ২০০৮ সাল থেকে ৭০ হাজার আফগান দোভাষী ও তাদের পরিবারের সদস্যদের আমেরিকায় বসবাসের জন্য বিশেষ অভিবাসন ভিসা দেয়া হয়েছে। এখনও দেশ থেকে বের হওয়ার জন্য অপেক্ষা করছে ২০ হাজার দোভাষী ও তাদের পরিবার। এই ভিসা প্রক্রিয়া জটিল এবং দীর্ঘসূত্রিতার বেড়াজালে আবদ্ধ। পাশাপাশি রয়েছে আমেরিকান সৈন্যরা বিশ বছরের যুদ্ধ শেষে আফগানিস্তান ত্যাগ করার পর দেশের ভেতর তালেবানের দ্রæত অগ্রযাত্রা।

আমেরিকানদের সাথে কাজ করার কারণে এই দোভাষীরা চিহ্ণিত হয়ে গেছেন এবং তাদের জীবন গুরুতর ঝুঁকির মুখে। ২০০৯ সাল থেকে আমেরিকান ভিসার অপেক্ষায় থাকা আনুমানিক ৩০০ জন দোভাষী মারা গেছেন। ভিসা পাওয়ার প্রক্রিয়া এত জটিল ও দীর্ঘ হওয়ায় ক্ষুব্ধ জিয়া। ‘এই দোভাষীরা আমেরিকা আর আফগানিস্তান- এই দুই দেশকে সাহায্য করতে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করেছে। এখন তারা তাদের ব্যাপারে চোখ বন্ধ করে রেখেছে- ওরা ওখানে মরলে মরুক,’ তিনি বলেন।

মার্কিন কংগ্রেসে ২০০৮ সালে প্রণীত নতুন অভিবাসন ভিসা ব্যবস্থার সুযোগ নিয়ে আমেরিকায় চলে যাবার জন্য ভিসার আবেদন করেন জিয়া গাফুরি। নিজেদের জীবন বিপন্ন করে আফগানিস্তান ও ইরাকে আমেরিকান সৈন্যদের সাথে যেসব দোভাষী কাজ করেছেন তাদের জন্য এই ভিসা চালু করে আমেরিকা। তার ভিসা পেতে লেগেছিল ছয় বছর। তিনি বলেন, এই গোটা প্রক্রিয়াটি ছিল তার ভাষায় ‘জঘন্য’। তিনি বলেন এই দীর্ঘ সময় লাগার কোন যুক্তিগ্রাহ্য ব্যাখ্যা নেই। ‘আমাদের সম্পর্কে সব তথ্য আমেরিকানদের তথ্য ভান্ডারে ছিল। পররাষ্ট্র দপ্তর আমাদের কার্যকলাপ সম্পর্কে সম্পূর্ণ ওয়াকিবহাল ছিল। কাজেই কেন এর জন্য এত সময় লাগবে তা ব্যাখ্যার অতীত’।
জিয়া শেষ পর্যন্ত তার পরিবার নিয়ে শার্লটে নিজের একটা অ্যাপার্টমেন্ট ভবনে উঠতে পেরেছেন। সেখানে নির্মাণ শিল্পের শ্রমিক হিসাবে তাকে কাজ করতে হয়েছে। পরে একটি মুদির দোকানে কাজ নিয়েছেন। তার নিজের জীবনের নিরাপত্তা, তার সন্তানদের নিরাপদে স্কুলে যাতায়াত করতে পারা এবং তার স্ত্রীর বাইরে বের হওয়া ও কাজ করার স্বাধীনতাই তার কাছে বড় প্রাপ্তি।

জিয়া গাফুরি বলছেন তার মত হাজার হাজার যেসব দোভাষী এখনও আফগানিস্তানে পড়ে আছে, তাদের জন্য পরিস্থিতি বদলায়নি। তিনি ২০১৯ সালে ইন্টারপ্রেটিং ফ্রিডম ফাউন্ডেশান নামে একটি সহায়তা সংস্থা গড়ে তুলেছেন। তার মত যেসব দোভাষীর জীবন আফগানিস্তানে বিপন্ন, যারা আমেরিকায় ভিসা প্রত্যাশী তাদের তিনি নিজের অভিজ্ঞতার আলোকে সাহায্য করছেন। এদের বেশিরভাগই জটিল আমলাতান্ত্রিক বেড়াজালে আটকে পড়েছেন। বছরের পর বছর অপেক্ষায় তাদের মনোবল ভেঙে পড়ছে। আরেক ধাপ জটিলতা হল, শুধুমাত্র কাবুলের দোভাষীদের সরানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এরর অর্থ হল, রাজধানীর বাইরে যারা রয়ে গেছেন সেসব এলাকা দ্রুত তালেবানের দখলে চলে যাওয়ায় তাদের জীবনের ঝুঁকি ক্রমশই বাড়ছে।

এপ্রিল মাসে আমেরিকা সৈন্য প্রত্যাহারের ঘোষণা দেবার পর থেকে তালেবান নিয়ন্ত্রিত জেলাগুলোর সংখ্যা ৭২ থেকে বেড়ে ২২১এ দাঁড়িয়েছে বলে জানাচ্ছে ওয়াশিংটন ভিত্তিক সংস্থা ফাউন্ডেশান ফর দ্য ডিফেন্স অফ ডেমোক্রাসি। যেসব প্রদেশের তালেবানের দখলে চলে যাবার বড়রকম আশঙ্কা রয়েছে, যেমন কান্দাহার এবং হেলমান্দ, সেখানে থাকত হাজার হাজার মার্কিন সৈন্য এবং তাদের দোভাষীরা। এই দোভাষীদের এখন ধরা পড়ার এবং মৃত্যুর প্রবল ঝুঁকি রয়েছে।

দোভাষীদের ‘প্রাণের বিরাট ঝুঁকি’ রয়েছে বলে স্বীকার করেছেন অবসরপ্রাপ্ত কর্নেল মাইক জ্যাকসন। ‘কয়েক দশক ধরে আমাদের দোভাষীদের হত্যা করা হয়েছে। যারা পড়ে আছে তাদের জন্য দেশ থেকে বেরন কতটা সহজ হবে সেটাও একটা বড় প্রশ্ন’, তিনি বলছেন। আমেরিকার পররাষ্ট্র দপ্তর গোটা প্রক্রিয়া তরান্বিত করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। কিন্তু এই প্রতিশ্রুতিও অনেক সাবেক সৈন্য ও দোভাষীদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি করেছে।
‘আমরা যে একদিন চলে যাব এটা তো কোন বিস্ময়কর ব্যাপার নয়। এটা হঠাৎ করে ঘটেনি। আমাদের সময় থাকতে ঠিকমত পরিকল্পনা নেয়া উচিত ছিল। এখন এমন আচরণ দেখানো হচ্ছে যেন একটা আপদকালীন পরিস্থিতির মধ্যে আমরা পড়ে গেছি’, বলছেন আফগানিস্তানে দীর্ঘদিন মোতায়েন আমেরিকান সেনা জো কাসাবিয়ান।

জিয়া গাফুরির মতে এটা নিছক একসময়ের স্থানীয় সহকর্মীদের ফেলে দেয়া। ‘কিছুই তো বদলায়নি’, বলছেন তিনি। তালেবান তো তাদের মতাদর্শ বদলায়নি, তাদের প্রশাসনিক ধরন পাল্টায়নি। আমেরিকানরা এখন সবকিছু গুটিয়ে নিয়ে তাদের সৈন্যদের ঘরে পাঠিয়ে দিচ্ছে, তিনি বলছেন। ‘আমাদের ব্যাপারে তার হাত ধুয়ে ফেলতে চাইছেন’, বলছেন জিয়া গাফুরি। সূত্র : বিবিসি বাংলা।



 

Show all comments
  • HM Abdul Kaium ৪ আগস্ট, ২০২১, ৩:২৮ এএম says : 0
    ভিনজাতির জন্য স্বজাতির সাথে গাদ্দারির ফল তার চেয়েও খারাপ হওয়া দরকার
    Total Reply(0) Reply
  • Abraham Linkhon ৪ আগস্ট, ২০২১, ৩:২৯ এএম says : 0
    কলার লোভ দেখিয়ে এখন মুলা ঝুলিয়ে দিয়েছে আমেরিকানরা। লোভে পাপ পাপে মৃত্যু।
    Total Reply(0) Reply
  • HM Al Amin ৪ আগস্ট, ২০২১, ৩:৩০ এএম says : 0
    নিজ জাতির বিরুদ্ধে যারাই দালালি করে ওদের এমন কেন এর চেয়েও নিকৃষ্ট বিচার দুনিয়াতে হয়েছে হবে, ওরা মুনাফেক ওদের জন্য দুনিয়া আখেরাত সব যায়গায় লাঞ্চনা বঞ্চনা অবধারিত।
    Total Reply(0) Reply
  • Saiful Islam ৪ আগস্ট, ২০২১, ৩:৩০ এএম says : 0
    আবারো প্রমাণ হলো মির্জাফররা কখনো শান্তি পায় না। যারা তাদের স্ব-জাতির সাথে বেইমানী করে বিদেশি কে সহায়তা করে তাদের কে তো দেশ ছাড়া হতেই হবে। এটা প্রকৃতির প্রতিশোধ
    Total Reply(0) Reply
  • Abu Saleh Muhammad Musa ৪ আগস্ট, ২০২১, ৩:৩১ এএম says : 0
    যুগ যুগ ধরে এমনটাই হয়ে আসছে এবং হবে। বিশ্বাসঘাতকার শাস্তি তো পেতেই হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • Hasan Mia ৪ আগস্ট, ২০২১, ৩:৩১ এএম says : 0
    বিশ্বাস ঘাতকদের পরিনতি এমন নিদারুণ অপমানেরই হয়!
    Total Reply(0) Reply
  • Mim ৪ আগস্ট, ২০২১, ৪:৪৬ এএম says : 0
    Lovey pap, papey mrittu. Oti chalaker golai dori
    Total Reply(0) Reply
  • নুরুল ইসলাম ৪ আগস্ট, ২০২১, ৭:০১ এএম says : 0
    ওর চেহারা, ওর মানষিক পরিবর্তন,ওর আচরণ সবটাই খৃষ্টান বির্ধমী এবং মুশরিকদের মতোই হয়েগেছে। ওর জন‍্য সুসংবাদ "মান তাশাব্বাহা বিকওমীহিম ফাহুয়া মিনহুম'। আল্লাহ্ ওকে তওবা করার তওফীক দিন। আমীন।।
    Total Reply(0) Reply
  • মুহামমাদুললাহআইয়ূবী ৪ আগস্ট, ২০২১, ৭:০৫ এএম says : 0
    আফসোস আফগান দের মাঝে মির্জাফর ভাবতে পারছিনা ওদের ফাঁসীহোক
    Total Reply(0) Reply
  • Imran ৪ আগস্ট, ২০২১, ১০:০৭ এএম says : 0
    যারা স্বজাতির সাথে বেঈমানী করতে পারে, এদের পৃথিবীর কেউ বিশ্বাস করে না।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আফগানিস্তান


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ