Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৪ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরী

মেসির অশ্রুসজল বিদায়

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৯ আগস্ট, ২০২১, ১২:০০ এএম

যেন আবেগ আর স্মৃতির এক ঝড় বয়ে গেল তার ওপর দিয়ে। মাত্র ১৩ বছর বয়সে যে আঙিনায় পা পড়েছিল, দিনে দিনে গড়ে উঠেছিল অটুট বন্ধন, সেটার ছেদ পড়ে গেছে। বার্সেলোনার পক্ষ থেকে দুদিন আগে জানিয়ে দেওয়া হয়, লিওনেল মেসি আর থাকছেন না ন্যু ক্যাম্পে। আর্জেন্টাইন এই মহাতারকার সঙ্গে চুক্তি নবায়ন করতে পারছে না তারা। তবে সর্বকালের অন্যতম সেরা এই ফুটবলার নিজে মুখ ফুটে কিছু বলেননি এই কদিন। অবশেষে মেসি বিদায় জানালেন তার শৈশবের ক্লাবকে, যে ঠিকানার সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে। বিদায়ের আনুষ্ঠানিকতা সারতে গতকাল সংবাদ সম্মেলনে এসে তাই আবেগ ধরে রাখতে পারলেন না লিওনেল মেসি। আর বন্ধন ছিন্ন হওয়ার দুঃখে তিনি ভেঙে পড়লেন কান্নায়।

কথা বলার শুরু থেকেই ছলছল করছিল চোখ। ধরে আসছিল গলা। ছোট্ট বিদায়ী বক্তৃতার শেষে আর ধরে রাখতে পারেননি নিজেকে, চোখ বেয়ে নামে অশ্রæধারা। উপস্থিত সবাই তখন দাঁড়িয়ে, চেয়ারে বসা কেবল মেসির তিন ছেলে। তারা হয়তো ঠিক মতো বুঝতেও পারেননি ঠিক কী হচ্ছে। বার্সেলোনার সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ শেষ হওয়ায় গত ১ জুলাই থেকে ‘ফ্রি এজেন্ট’ হয়ে যান মেসি। তবে অনেকের প্রত্যাশা ছিল ৩৪ বছর বয়সী এই ফরোয়ার্ড থেকে যাবেন কাম্প নউয়ে। লম্বা সময় ধরে চলা আলোচনার শেষও হয়েছিল চাওয়া প‚রণের ইঙ্গিত দিয়ে। কিন্তু গত বৃহস্পতিবার বার্সেলোনা জানিয়ে দেয়, লা লিগার ফিন্যান্সিয়াল ফেয়ার প্লের নিয়মের বাধার কারণে মেসির সঙ্গে চুক্তি করা সম্ভব নয়।

এতদিনের প্রিয় ঠিকানাকে বিদায় জানাতে গতকাল বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে এসে মেসি মেলে ধরলেন স্মৃতির ঝাঁপি। প্রিয় সমর্থকদের যে মাঠ থেকে বিদায় জানাতে পারলেন না, এই আপেক্ষও ঝরল তার কণ্ঠে, ‘আমি সবসময় বিনয়ের সঙ্গে চলেছি। সবাইকে শ্রদ্ধা করেছি এবং এখানে যারা আছে, তাদের সঙ্গেও একই আচরণ করেছি। ক্লাবকে অনেক কিছু দেওয়ার বাইরেও আশা করি, এই অনুভ‚তিটুকু আমার সঙ্গে থাকবে। অনেক সুন্দর মুহ‚র্তের মধ্য দিয়ে গিয়েছি। বাজে মুহ‚র্তও ছিল। এগুলোই আমাকে বেড়ে উঠতে সাহায্য করেছিল। প্রথম যেদিন এখানে এসেছিলাম, সেই দিন থেকে শেষ পর্যন্ত আমি এই ক্লাব এবং এই জার্সির জন্য সবটুকু নিংড়ে দিয়েছি। কখনও ভাবিনি আমাকে এভাবে বিদায় বলতে হবে। মাঠ থেকে সবাইকে বিদায় বলতে পারলে ভালো লাগত।’

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে গত মৌসুমে দর্শকহীন স্টেডিয়ামে খেলতে হয়েছে। বার্সেলোনা সমর্থকদের সেই উৎসব, উল্লাস, মেসি-মেসি চিৎকার কোনো কিছুই শোনা হয়নি। কোভিড-১৯ এখনও পিছু ছাড়েনি। মেসিরও তাই বার্সেলোনার সমর্থকদের সেই শোরগোল শোনা হলো না, ‘শেষবারের মতো সবার স্বতঃফুর্ত করতালি শুনতে পারলে ভালো লাগত। মহামারীর সময়ে আমি এটাকে খুব মিস করেছিলাম। নিজের নামে হর্ষোল্লাস শুনতে চেয়েছিলাম। যদি কল্পনা করি, তাহলে ভরা গ্যালারি থাকত এবং আমি মনমতো বিদায় বলতে পারতাম। কিন্তু শেষটা এভাবেই হলো। কিন্তু আমি এই বছরগুলোয় পাওয়া ভালোবাসার জন্য ধন্যবাদ দিতে চাই। আমার প্রতি সবার ভালোবাসা সবসময় একইরকম ছিল এবং আমি ক্লাবের ভালোবাসা সবসময় উপলব্ধি করেছি।’

শারীরিক কিছু প্রতিবন্ধকতার কারণে মেসির হয়তো ফুটবলার হয়ে ওঠাই হতো না। বার্সেলোনাকে পাশে পেয়েই তিনি তা পেরেছেন। হয়ে উঠেছেন আজকের মহাতারকা। তাইতো মেসির প্রতি বার্সেলোনার যেমন কতৃজ্ঞতার শেষ নেই, তেমনি ক্লাবের প্রতি অকৃত্রিম ভালোবাসা আছে আর্জেন্টাইন তারকার মনেও। শোনালেন, ভবিষ্যতে কোনোদিন নতুন পরিচয়ে আবারও ফিরতে চান প্রিয় আঙিনায়, ‘আশা করি, যে কোনোভাবেই হোক না কেন আগামীতে এখানে ফিরতে পারব। যেকোনো ভাবেই হোক না কেন, এখানে ফিরে অবদান রাখতে চাই যে ক্লাবটি বিশ্বের সেরা হয়ে থাকতে পারে। এই মুহ‚র্তে অনেক কিছুই মনে পড়ছে না, আমি সেরা অবস্থায় নেই... ধন্যবাদ সারা বিশ্বকে।’

আগের দিন সংবাদ সম্মেলনে এসে বার্সেলোনা সভাপতি হুয়ান লাপোর্তা বলেছিলেন, মেসি যেভাবে চায় তাকে সেভাবেই শ্রদ্ধা জানানো হবে। মেসি অবশ্য সবটা ছেড়ে দিলেন ভক্ত-সমর্থকদের ওপর, ‘এখন না, তবে এই মানুষগুলোর জন্য আমি যে কোনো কিছু করতে প্রস্তুত।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মেসি

১১ আগস্ট, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন