Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ জুলাই ২০২০, ৩১ আষাঢ় ১৪২৭, ২৩ যিলক্বদ ১৪৪১ হিজরী

ভারতের অসহযোগিতায় কাশ্মীরে কর্মকান্ড চালানো যাচ্ছে না

পাকিস্তান-ভারত উত্তেজনা কমাতে মধ্যস্থতায় আগ্রহ প্রকাশ করে মুনের অভিযোগ

প্রকাশের সময় : ২ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : কাশ্মীর ইস্যু নিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন। জাতিসংঘের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাদের নিয়ে এক বৈঠকে বান কি মুন বলেন, ভারতের অসহযোগিতার জন্য জাতিসংঘের মিলিটারি অবজারভার গ্রুপ ইন ইন্ডিয়া-পাকিস্তান (ইউএনএমওজিআইপি) কাশ্মীরে সম্পপূর্ণভাবে কর্মকা- পরিচালনা করতে পারছে না। নিয়ন্ত্রণ রেখায় পাকিস্তান অংশে জাতিসংঘের নিয়ন্ত্রণ আনতে পারলেও ভারত অংশে জাতিসংঘ নিয়ন্ত্রণ আনতে পারেনি। গত শুক্রবার জাতিসংঘে নিযুক্ত পাকিস্তানের স্থায়ী প্রতিনিধি মালিহা লোদি জাতিসংঘের মহাসচিবের সঙ্গে বৈঠক শেষে এই তথ্য জানিয়েছেন। মালিহা লোডি আরো জানান, ভারতের বিরোধিতায় জাতিসংঘের কর্মকা-ের বিস্তৃতি বাড়ানো যাচ্ছে না বলে দুঃখ প্রকাশ করেছেন মুন। কাশ্মীরে যা ঘটছে স্বাধীনভাবে তার প্রকৃত ঘটনা পর্যবেক্ষণ শেষে তা জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে জমা দেওয়ার দাবি জানান তিনি। খবরে বলা হয়, ভারতের কারণেই কাশ্মীরে সহিংসতা চলছে বলে অভিযোগ করেন মালিহা। এই বিষয়ে সমাধানের জন্য জাতিসংঘের মহাসচিব ভারত ও পাকিস্তানের প্রতিনিধিদের আলোচনায় বসার আহ্বান জানান। পাকিস্তানের দুই সৈন্য নিহতের জন্য জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন নিন্দা জানিয়েছেরন বলে জানান মালিহা। ভারতকে অভিযুক্ত করে মালিহা বলেন, কাশ্মীর সমস্যা সমাধানে আলোচনার জন্য ভারতের পক্ষ থেকে শর্তযুক্ত করায় আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তা হুমকির মধ্যে পড়েছে। ভারতের পক্ষ থেকে নিয়ন্ত্রণ রেখায় মিত্যা সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের দাবি নতুন করে পাকিস্তনের মধ্যে উত্তেজনা ছড়াচ্ছে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় বিশেষ করে জাতিসংঘ এই অঞ্চলে হুমকি ও নিরাপত্তার অবজ্ঞা করতে পারে না। এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়া উচিৎ বলে তিনি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের শীর্ষ কূটনৈতিকদের ভারতের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও গুজবের জন্য হস্তক্ষেপ করার আহ্বান জানান। এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে এই অঞ্চলে আরো বিপজ্জনক পরিস্থিতির তৈরি হবে বলে জানান মালিহা। কাশ্মীরের আন্দোলনকারীদের থেকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দৃষ্টি ফেরাতেই ভারত গুজব ছড়াচ্ছে। ভারতের নিরাপত্তা বাহিনীর কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘন প্রতিরোধ করতে জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুনের কাছে আহ্বান জানান মালিহা।
অপর এক খবরে বলা হয়, জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি-মুন ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে বিদ্যমান অস্থিরতা কমাতে মধ্যস্ততা করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত ব্যক্তিগতভাবে তার সঙ্গে দেখা করে এ বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার আহ্বান জানালে তারই প্রেক্ষিতে গত শুক্রবার এ কথা জানান মুন। মুন বলেন, এ বিষয়ে উভয় পক্ষেরই সর্বোচ্চ সংযম থাকতে হবে এবং পরিস্থিতির উন্নতিতে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে হবে। কূটনৈতিক পদ্ধতিতে সংলাপের মাধ্যমে ভারত ও পাকিস্তানের এই সংকট নিরসন করতে হবে বলেও মত প্রকাশ করেন তিনি। বান কি-মুনের সঙ্গে তার কার্যালয়ে সাক্ষাৎ করার পর পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত মালিহা লোধি সাংবাদিকদের বলেন, পুরো অঞ্চলের জন্যই ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এ ক্ষেত্রে তিনিই (মুন) পারেন মধ্যস্ততা করে সংকট নিরসন করতে। ভারতকে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা বিনষ্ট করার মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি করার দায়েও দায়ী করেন লোধি। উল্লেখ্য, ব্রিটিশ শাসন থেকে মুক্ত হওয়ার পর ভারত ও পাকিস্তান তিনটি বড় বড় যুদ্ধ করেছে যার দুইটিই কাশ্মীরকে কেন্দ্র করে। সাম্প্রতিক কালে কাশ্মীর ইস্যু নিয়েই আবারও বিবাদে জড়িয়েছে এই দুই রাষ্ট্র। ডন, মেইল অনলাইন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারতের অসহযোগিতায় কাশ্মীরে কর্মকান্ড চালানো যাচ্ছে না
আরও পড়ুন