Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০৫ ফাল্গুন ১৪২৫, ১১ জামাদিউস সানি ১৪৪০ হিজরী।

আগ্রাসন মোকাবিলায় সব ধরনের ব্যবস্থাই নেয়া হবে : নওয়াজ

চলমান পরিস্থিতি আলোচনায় নিরাপত্তা কমিটি ও সর্বদলীয় বৈঠক আহ্বান। চার প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী এবং শীর্ষ সেনা কর্মকর্তাদের বৈঠকে তলব

প্রকাশের সময় : ২ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ বলেছেন, নিয়ন্ত্রণ রেখায় যেকোনো সহিংসতা ও আগ্রাসন থেকে জনগণ এবং আঞ্চলিক অখ-তার সুরক্ষা নিশ্চিত করতে তার সরকার সবধরনের ব্যবস্থা নেবে। গত শুক্রবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভার এক বৈঠকে অংশ নিয়ে তিনি একথা বলেন। নওয়াজ বলেন, যেকোনো আগ্রাসন থেকে আমরা আমাদের মাতৃভূমিকে সুরক্ষা করব। গোটা জাতি আমাদের সশস্ত্র বাহিনীর সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে আছে। ভারতীয় নৃশংসতা দিয়ে কাশ্মীরি জনগণের আকাক্সক্ষাকে দমানো যাবে না। জম্মু ও কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখায় ভারতের সঙ্গে যে উত্তেজনা চলছে তা নিয়ে ওই বৈঠকে আলোচনা করা হয়। সেসময় নওয়াজ আরো অভিযোগ করেন, ভারতীয় আগ্রাসন আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য হুমকি তৈরি করেছে। ভারতের আগ্রাসন প্রতিহত করতে পাকিস্তান সরকার ও জনগণ ঐক্যবদ্ধ রয়েছে বলেও হুঁশিয়ার করেন তিনি।
উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার সকালে ভারতীয় সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, বুধবার রাতে নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে ভারতের সেনারা সন্ত্রাসী ঘাঁটিগুলোতে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালিয়েছে। ওই অভিযানে ৯ পাকিস্তানি সেনা ও ৩৫ থেকে ৪০ জঙ্গি নিহত হয়েছে বলেও দাবি করা হয়। সার্জিক্যাল স্ট্রাইক দিয়ে এমন সামরিক অভিযানকে বোঝানো হয়, যে অভিযানে সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যবস্তুর বাইরে আশপাশের অবকাঠামো কিংবা জনসাধারণ হামলার শিকার হয় না বলে দাবি করা হয়। ঘটনার পর থেকে দুই সেনাসদস্য নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করে পাকিস্তান দাবি করে আসছে এটি সার্জিক্যাল স্ট্রাইক ছিল না, সীমান্ত সংঘর্ষ বা আন্তঃসীমান্ত গোলাগুলির ঘটনা ছিল। পাকিস্তান ভূখ-ে এধরনের অভিযান চালানো হলে একই কায়দায় এর জবাব দেয়ারও হুঁশিয়ারি দেয়া হয় পাকিস্তানের পক্ষ থেকে।
আরেক খবরে বলা হয়, কাশ্মীর নিয়ে ভারতের সঙ্গে চলমান পরিস্থিতিতে সর্বদলীয় বৈঠক ডেকেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। একইসঙ্গে জাতীয় নিরাপত্তা কমিটি এবং প্রাদেশিক কর্মপরিকল্পনা কমিটির বৈঠকও আহ্বান করেছেন তিনি। আসছে সপ্তাহেই এই বৈঠকগুলো অনুষ্ঠিত হবে। এজন্য চার প্রাদেশিক মুখমন্ত্রী এবং সেনাবাহিনীর শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তাদেরও তলব করা হয়েছে। গত শুক্রবার পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে সংবাদমাধ্যমে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে। দেশটির প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম এ খবর দিয়েছে। সংসদীয় দলগুলোর প্রধানদের নিয়ে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে আগামীকাল সোমবার। নিরাপত্তা কমিটির বৈঠক হবে মঙ্গলবার। সব বাহিনীর প্রধান ও উপপ্রধানরা এতে অংশ নেবেন। এর আগে জরুরি বৈঠকে বসে পাকিস্তানের মন্ত্রিপরিষদ। এতে সভাপতিত্ব করে নওয়াজ শরিফ। তিনি বলেন, জনগণকে রক্ষা এবং নিয়ন্ত্রণ রেখার বিধি ভঙ্গের জন্য প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নেয়া হবে। নওয়াজ বলেন, যে কোনো আগ্রাসন থেকে আমরা আমাদের মাতৃভূমিকে রক্ষা করব। পুরো জাতি কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে সশস্ত্র বাহিনীর সঙ্গে রয়েছে। ডন, ওয়েবসাইট।



 

Show all comments
  • Mizanur Rohman Vuiya ২ অক্টোবর, ২০১৬, ৯:৫৬ এএম says : 2
    All Muslim desh Pakistan ar support korbe
    Total Reply(0) Reply
  • জার্জিস ২ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:৫১ পিএম says : 1
    এতে প্রতিহিংসা বাড়া ছাড়া কোন লাভ হবে না।
    Total Reply(0) Reply
  • নাজিম ২ অক্টোবর, ২০১৬, ১:১১ পিএম says : 1
    এবার সার্ক সম্মেলনে সকলের উপস্থিতির মাধ্যমে এটা সমাধান করা যেতো।
    Total Reply(0) Reply
  • Tania ২ অক্টোবর, ২০১৬, ১:১৫ পিএম says : 0
    dekha jak ki hoy
    Total Reply(0) Reply
  • Rofiq ২ অক্টোবর, ২০১৬, ১:১৬ পিএম says : 0
    ভারতীয় আগ্রাসন আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তার জন্য হুমকি তৈরি করেছে।
    Total Reply(0) Reply
  • Nannu chowhan ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, ৭:৪২ এএম says : 0
    The sarcc was establish by late president ziaur rahman fully supported by late nepals king birendro to solve the problem with the frame work of spirit of the sarcc,india now pocketed the sarcc.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ