Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২ আশ্বিন ১৪২৬, ১৭ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।
শিরোনাম

কোচের কথায় চাপমুক্ত অভিষেক নিজেকে অলরাউন্ডার ভাবেন মোসাদ্দেক

প্রকাশের সময় : ৪ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

বিশেষ সংবাদদাতা : গত বছর ঘরোয়া প্রথম শ্রেনীর ক্রিকেটে দু’দুটি ডাবল সেঞ্চুরিতে এসেছেন নজরে। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-২০তে অভিষেক হলেও পারেননি মেলে ধরতে সেভাবে ২০ বছর বয়সী অল রাউন্ডার মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। সর্বশেষ প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগে অল রাউন্ড পারফর্ম করে আবাহনীর শিরোপা পুনরুদ্ধারের এই নায়ক ওয়ানডে অভিষেক সিরিজেই ধরেছেন নিজেকে মেলে। অভিষেক ইনিংসটি তার হার না মানা ৪৫ রানের। ওই ইনিংসটি এবং দশম জুটিতে ৪৩ রানের পার্টনারশিপে নেতৃত্ব না দিলে স্কোর ২’শ পর্যন্ত টেনে নেয়াই যে দু:সাধ্য ছিল বাংলাদেশ দলের। অভিষেক ম্যাচে বোলিংয়েও ধরেছেন মেলে ( ২/৩৫)। এমন অল রাউন্ড পারফরমেন্সে কোচের উৎসাহটাকেই প্রেরনা হিসেবে দেখছেন মোসাদ্দেকÑ‘অভিষেক ম্যাচের আগে কোচ আমাকে বলে দিয়েছিলেন যে ‘প্রথম ম্যাচ, পারফরম্যান্স নিয়ে চিন্তা করো না। তোমার স্বাভাবিক খেলাটা খেলো, উপভোগ করো। আবাহনীতে যেভাবে খেলেছো, সেভাবেই খেলার চেষ্টা করো। এখানে তোমার পরফরম্যান্স গুরুত্বপূর্ণ নয়, আজকের ম্যাচটা উপভোগ করো। কোচের কথা শুনে আমিও উপভোগ করার চেষ্টা করেছি।’
বোলিংয়ের সময় অধিনায়ক মাশরাফির টিপসও অক্ষরে অক্ষরে পালনে সচেস্ট ছিলেন বলে জানিয়েছেন মোসাদ্দেকÑ‘ মাশরাফি ভাই বলেছিলেন যে জায়গা মতো বল কর, ডট বল করার চেষ্টা কর। আমি চেষ্টা করেছি রান আটকাতে। তাই ওই সময়টায় সফল হতে পেরেছি।’
ঘরোয়া ক্রিকেটে পুরোদস্তুর মিডল অর্ডার। কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে দলের কম্বিনেশনের কারনে সাত নম্বরের আগে ব্যাটিংয়ের সুযোগ নেই। তা মেনে নিচ্ছেন মোসাদ্দেক। তারপরও নিজেকে অল রাউন্ডার হিসেবেই ভাবেন মোসাদ্দেকÑ‘আসলে তো অলরাউন্ডার হিসেবেই দলে সুযোগ পেয়েছি। ব্যাটিং ছিল প্রথম অংশ। পরে বোলিংয়ে। ব্যাটিংয়ে কি করেছি, সেটা ফিল্ডিংয়ে নামার পর ভুলে গেছি যে এখন আমার কাজ বোলিং ও ফিল্ডিং। বোলিংয়ে আমার যেটা কাজ, সেটা করার চেষ্টা করেছি। ’
নিজেকে মেলে ধরার আত্মবিশ্বাসটা অর্জন করেছেন এই তরুন প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লীগ থেকে, তা মনে করছেন মোসাদ্দেক সৈকতÑ‘ প্রিমিয়ার লিগ শেষ করার পর থেকেই আমার মনে হচ্ছিলো আমি আত্মবিশ্বাসী। আসলে আমি যখন প্রিমিয়ার লিগে ভালো খেললাম, তখন আমার মনে হয়েছিল যে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খেললেও এরকম সময়ে ব্যাটিং করতে হতে পারে। মানসিক প্রস্তুতি ওইরকম ছিল যে লোয়ার অর্ডারে ব্যাট করতে হবে। এটা খুব ভালো হয়েছে যে আফগানিস্তানের সঙ্গে সুযোগ পেয়েছি। এবং শুরুটা ভালো হয়েছে বলে আন্তর্জাতিক ম্যাচের জন্য আত্মবিশ্বাস আগের চেয়ে বেড়েছে।’
ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আসন্ন ওয়ানডে সিরিজে বাংলাদেশকেই ফেভারিট মনে করছেন এই অল রাউন্ডারÑ‘ অবশ্যই ইংল্যান্ড আফগানিস্তানের চেয়ে অনেক ভালো দল। অনেক প্রতিদ্বদ্বীতাপূর্ণ খেলা হবে। যেহেতু ছযটি সিরিজ টানা জিতেছি, আমরা সিরিজ জয়ের লক্ষ্যেই নামব। আমাদের কন্ডিশনে আমরা অনেক ফেবারিট। ’ ২ সিরিজের মধ্যে ৬ দিনের বিরতিতে নিজেদেরকে ভালভাবে প্রস্তুত করার সুযোগ পাচ্ছেন বলে মনে করছেন মোসাদ্দেকÑ‘আফগানিস্তান সিরিজ শেষ করার পর ওই সিরিজ কারো মাথায় এখন আর নেই। সিরিজ শেষ করার পর যখন আলাপ আলোচনা হয়, তখন বুঝতে পারি যে আগের সিরিজ মাথায় নেই। এখন সব আলোচনা ইংল্যান্ড সিরিজ নিয়ে। সবাই ব্যক্তিগত ভাবে পরিকল্পনা করছে হয়ত যে কিভাবে খেলবে। আমিও ভাবছি যে সুযোগ পেলে কি করব। সেভাবেই প্র্যাকটিস করছি। ২-৩ দিন গ্যাপ পেলে সেটা চাপ হয়ে যেত। ৬-৭ দিন বিরতি পাওয়ায় খুব ভালো হয়েছে। বাড়তি অনুশীলনের সুযোগ পাচ্ছি। আমাদের কয়েকজন প্রস্তুতি ম্যাচও খেলবে। প্রতিপক্ষকে জানার জন্য ভালো সুযোগ হবে এটা। ভিডিও ক্লিপসগুলো পেলে তাদের দুর্বল জায়গা বুঝতে পারব এবং বুঝব দেশের মাটিতে তাদের বিপক্ষে কিভাবে খেলব।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন