Inqilab Logo

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮, ০১ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ০৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪০ হিজরী

হিজরী নববর্ষের গুরুত্ব ও তাৎপর্য

প্রকাশের সময় : ৫ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

সৈয়দ মুহাম্মদ আবু ছালেহ্

হিজরী সনকে এক কথায় ইসলামী সনই বলা যায়। ইসলামী সন তথা হিজরী সন মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলা আলাইহি ওয়াসাল্লামা’র মক্কা থেকে মদিনা হিজরতের ঐতিহাসিক তাৎপর্যময় ঘটনার অবিস্মরণীয় স্মারক। ইসলামের দ্বিতীয় খলিফা হযরত ওমর ফারুক রাদ্বিয়াল্লাহু তা’আলা আনহুর খিলাফতকালে এই হিজরী সনের প্রবর্তন করা হয়। বর্ষ গণনার সূত্রপাত কখন থেকে হয় এনিয়ে মতভেদ থাকলেও অধিকাংশ ঐতিহাসিকদের মতে, বর্ষ গণনার সূচনা হয় প্রাচীন মিসরে অথবা ব্যাবিলনে। আনুমানিক ৪২৪১ [খ্রি.পূ.] সালে সর্ব প্রথম বর্ষ গণনা আরম্ভ হয়। হিজরী সালের মতো চন্দ্র মাস অনুসারেই তখন সময় নির্ণয় করা হতো। পরে সৌর বৎসর গণনার পদ্ধতি প্রবর্তিত হয়। প্রাচীন আরবে যখন মানুষের মধ্যে গোত্রগত বিভাজন ছিল এবং বিভিন্ন গোত্র তাদের নিজস্ব স্বাধীনতায় পরিচালিত হতো, তখন সেখানে নানা ধরনের বর্ষ গণনা ছিল। আরববাসী প্রায় ব্যবসায়ী তাই আন্তর্জাতিক সম্পর্কের জন্য তাদের নিকট তখন একটা আন্তর্জাতিক বর্ষ গণনাও ছিল। যেটা ছিল রোমন সন গণনা। আবার বিস্ময়কর কোন ঘটনাকে কেন্দ্র করেও সময় চিহ্নিত করা হতো। যেমন বহুদিন যাবত ‘আমুল ফীল’ কে কেন্দ্র করে সময় তারিখের হিসাব রাখা হতো। আবরাহার হস্তী বাহিনী আবাবিল পক্ষীর প্রস্তর নিক্ষেপের ফলে যে দিন ধ্বংস হয়েছিল, সেই দিনকে সমগ্র আরববাসী গুরুত্বপূর্ণ একটি দিন হিসেবে চিহ্নিত করেছিল। হযরত নবী করীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর প্রাথমিক চল্লিশ বছর বয়সকাল পর্যন্ত আবরাহার ও তার হস্তী বাহিনীর ধ্বংসের ঘটনাটি সন গণনার মানদ- ছিল।
কখনো কখনো ‘ওকাজের মেলা’ কে সময় গণনার দিক চিহ্ন করা হতো। অর্থাৎ গণনার জন্য সুস্পষ্ট একক কোন পদ্ধতি আরবদের মধ্যে ছিল না। তবে চন্দ্র মাসের হিসেব ছিল, এদের মধ্যে চারটি মাস ছিল আরবদের মাঝে অতি সম্মানিত। কিন্তু দিন গণনা এক কথা এবং কাল নির্দেশনা অন্য কথা। এই কাল নির্দেশনার সুস্পষ্ট এবং সুনির্দিষ্ট পদ্ধতির প্রবর্তন ঘটে মদীনা শরীফে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামার হিজরত করার মাধ্যমে। যদিও মদিনায় হিজরতের মধ্যে দিয়ে আরব মুসলমানদের মাঝে এক অভিনব সাল গণনার পদ্ধতি চালু হয়ে আসছে। কিন্তু বর্তমানের মতো এটি সুসংগঠিত রূপ পেতে অনেক সময় লেগেছে। প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামার জীবদ্দশায় এবং হযরত আবু বকর ছিদ্দীক (রা.)-এর খেলাফত কালে হিজরী সালের ব্যবহার আনুষ্ঠানিকভাবে হয়নি। দ্বিতীয় খলীফা হযরত উমর ফারুক (রা.)-এর খেলাফত কাল ছিলো ইসলামের বিজয় ও সম্প্রসারণের স্বর্ণযুগ। আরবের সীমা পেরিয়ে রোম ও পারস্য পর্যন্ত ইসলামী বিশ্ব সম্প্রসারণের ফলে নতুন এলাকার কর্মচারী-কর্মকর্তা নিয়োগ করে সদর দফতর হতে বিভিন্ন নির্দেশ সম্বলিত চিঠি ইস্যু করা হতো। কর্মকর্তাগণও প্রয়োজনবোধে খলীফার কাছে দিক নির্দেশনার জন্য চিঠি পাঠাতেন। কিন্তু তাতে সুনির্দিষ্ট সন তারিখ না থাকায় বিপাকে পড়তে হতো। হযরত আবু মুসা আশআরী (রা.) একদা এ বলে খলীফা উমর (রা.)-এর দরবারে নিবেদন করলেন “আমীরুল মুমিনীন! আপনার পক্ষ থেকে যে নির্দেশনা। আমরা পেয়ে থাকি, তাতে সন তারিখ না থাকায় কোন সময়ের লিখা তা বুঝা যায় না। ফলে নির্দেশ কার্যকর করতে গিয়ে অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়। অতএব, সন তারিখ নির্ধারণ করা দরকার।” এরপর হযরত উমর (রা.) হিজরীসন প্রবর্তন করেন।
একইভাবে একদিন স্বয়ং খলীফা হযরত উমর (রা.) কোনো এক মোকদ্দমা সম্পর্কীয় চিঠিতে শুধু শাবান মাস লিখা থাকায় ঘটনার সময় নিরূপন করতে গিয়ে বিপাকে পড়েন। দিন দিন রাষ্ট্র ব্যবস্থার ক্রমোন্নতিতে এ সমস্যাটা আরো তীব্রতর হয়ে উঠলো। মুসলমানদের জন্য নির্দিষ্ট একটা সন তারিখ নির্ধারণের প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে ১৭ হিজরীতে হযরত উমর (রা.) বিশিষ্ট সাহাবীদের নিয়ে এ বিষয়ে এক পরামর্শ সভার আয়োজন করেন। কতিপয় সাহাবী রোম ও পারস্যের ধর্মীয় সম্প্রদায়গুলোর অনুসরণীয় সালকে গ্রহণ করার প্রস্তাব দিলে, অধিকাংশ সাহাবীই এ মত পছন্দ করেননি। তৎকালীন বহুল প্রচলিত যাবতীয় সাল গণনার পদ্ধতি বর্জনে সাহাবীদের মাঝে কোন ধরনের গোঁড়ামী ছিলো না, বরং ইতিহাসের পাতায় দেখা যায় যে, অন্যান্য প্রয়োজনে বিজাতীয় অনেক মতামতকে যথেষ্ট মূল্যায়ন করা হতো তখনকার দিনে। কিন্তু এ ক্ষেত্রে হযরত উমর (রা.) ও সাহাবীগণ অনুভব করছিলেন যে, সাল গণনা প্রত্যেক জাতির জাতীয় অস্তিত্বের একটি মৌলিক ভিত্তি। নিজস্ব সন তারিখ একটি জাতির পূর্ণাঙ্গ ইতিহাস। জাতির উত্থান-পতন, জন্ম-মৃত্যু, জয়-পরাজয়, উন্নতি-অগ্রগতির সমুজ্জ্বল ধারাবাহিকতা রক্ষা করে এ সাল।
সূর্যের উদয়-অস্ত যেমন দিন রাতের আগমনী বার্তা নিয়ে আসে, সালের শুরু ও সামাপ্তি তেমনিই ইতিহাস, ঐতিহ্য, কীর্তি, কাহিনী, উপস্থাপন করে জাতিকে নব চেতনায় উজ্জীবিত করে। মূলত যে জাতি নিজেদের পৃথক সন তারিখ সংরক্ষণ করেনি, ক্রমান্বয়ে সংস্কৃতিতে পরাশ্রয়ী হয়ে পড়তে বাধ্য হয়। সুতরাং সাল নির্ধারণের সমসাময়িক যাবতীয় পন্থা বাদ দিয়ে এক অভিনব পদ্ধতির আবিষ্কারের মাঝে আমরা সাহাবীয়ে রাসূল (সা.)-দের প্রজ্ঞা ও দূরদর্শিতার পরিচয় পাই।
পূর্বে উল্লেখ করা হয়েছে যে, যে কোন জাতির যাবতীয় ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে এ সন তারিখই এক সূত্রে গ্র্রথিত করে রাখে। এ কথার দিকে ইঙ্গিত করতে গিয়ে আল বেরুনী তার ‘আল আসারুল বাকীয়া’ নামক গ্রন্থে লিখেছেন, “সাধারণত প্রত্যেক জাতি রাষ্ট্রের গোড়াপত্তন, রাজা বা ধর্মীয় নেতার জন্ম মৃত্যু, সম্রাটের অভিষেক, দেশ বিজয়, প্রাকৃতিক বড় ঘটনা ইত্যাদিকে ভিত্তি করে সাল গণনা করা হতো। রোমীয়, ব্যাবেলনীয়, খ্রিষ্টীয়, ইরানী ও হিন্দুস্থানী ইত্যাদি প্রচলিত প্রাচীন সাল গণনার প্রত্যেকটির সূচনাতে রয়েছে কোন না কোন ঐতিহাসিক ঘটনা। যেমন : সম্রাট ‘বুখতে নছর দ্বারা বাবেলের খ্যাতি বিশ্ব জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছিলো, সেজন্য তার জন্ম তারিখ থেকে ‘বাবেলী সনের’ উৎপত্তি। মিসর ত্যাগ করে ইয়াহুদীরা আযাদী লাভ করেছিল, এ আযাদীর দিনটিই ছিল তাদের সাল গণনার উৎস। বিজয়ী ইসকান্দরের জন্মানুসারে রোমীয়দের আদিসন ছিল “সনে ইসকান্দরী” কিন্তু এরিস্টটলের আগমনে রোমীয় সমাজ ও রাষ্ট্র ব্যবস্থায় এক বৈপ্লবিক ধারা সূচিত হয়। ফলে পুরাতন সন বাদ দিয়ে এরিস্টটলের জন্ম দিনকে ভিত্তি করে নতুন সাল গণনা আরম্ভ হয়। খ্রিষ্টীয় সালের প্রারম্ভ হযরত ঈসা (আ.) এর অলৌকিক জন্ম দিন থেকে। এজন্য এটাকে ‘মীলাদী’ সনও বলা হয়।
ভারত বর্ষে বিভিন্ন ভাষা-ভাষী ও পেশাজীবীদের পৃথক পৃথক সন তারিখ প্রচলিত ছিল। জ্যোতিষীগণ কৃষকদের জন্য নির্ধারণ করতেন “ফসলী সন” এবং রাজা-বাদশাদের জন্য ছিল “আদালতী সন”। শেষে রাজা বিক্রমাদিত্যের জন্মানুসারে ‘বিক্রমাব্দ’ প্রচলিত সনই স্থায়ীত্ব লাভ করে। ইরানেও রাজা-বাদশাগণ নিজেদের জন্ম তারিখ থেকে নতুন সন চালু করতো।”
কিন্তু বিভিন্ন জাতি-গোষ্ঠীর মধ্যে প্রচলিত উল্লেখিত প্রথাসমূহ প্রত্যাখ্যান করে সাহাবীগণ একটা অভিনব পন্থা অবলম্বন করেন। আর তা হচ্ছে মহানবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর হিজরতকে কেন্দ্র করে হিজরিসাল গণনা শুরু করা।
সাহাবায়ে কেরাম (রা.) যেহেতু দ্বীনে ইসলামের অনুসারীদের তথা মুসলমানদের আদর্শের প্রতীক। তাই সর্বস্তরের মুসলমানদের এ হিজরী সালের প্রতি গুরুত্বারোপ করা উচিত। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য যে বর্তমান মুসলমানরা এ হিজরী সনকে ভুলতে বসেছে। তারা নিজেদের জীবনের সামগ্রিক কর্মকা-ে বিজাতীয় সনকে গুরুত্ব দিচ্ছে।
পরিশেষে আমি ১৪৩৭ হিজরী সনের সূচনালগ্নে সবাইকে শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ জানাই এবং জীবনের সকল ক্ষেত্রে হিজরী সনের প্রতি গুরুত্বারোপ করার জন্য আন্তরিকভাবে আহ্বান জানাই।
ষ লেখক : অধ্যক্ষ, ওয়াছিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসা



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।