Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৬ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

দিনাজপুরে মা ও ছেলে অপহরণ মামলায় উল্লেখ নেই পদবি

দিনাজপুর অফিস : | প্রকাশের সময় : ২৭ আগস্ট, ২০২১, ১২:০৩ এএম

দিনাজপুরের চিরিরবন্দরে মা-ছেলেকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবির ঘটনায় আটক সিআইডি’র রংপুর কার্যালয়ের এএসপি সারোয়ার, এ এস আই ও কনস্টেবল ও মাইক্রোবাসের চালক হাবিবুর রহমানসহ পুলিশের হাতে আটক সোর্স ফসিউল আলম পলাশসহ মোট দশজনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় অজ্ঞাত কয়েকজনের কথা বলা হয়েছে। মামলার বাদী হয়েছেন অপহৃত হওয়া ছেলে জাহাঙ্গীর আলম। তবে মামলার এজাহারে সিআইডি রংপুরে এএসপি, এ এস আই ও কনস্টেবলের পরিচয় ও পদবী কোনটাই উল্লেখ করা হয়নি।

মামলার এজাহারে জানা গেছে, ২৪ আগস্ট সর্বশেষ তারা দশমাইল থেকে দিনাজপুরগামী রাস্তায় আসতে বলে। টাকা নিয়ে মাইক্রোবাসের সামনে কামরুল আসতে মাইক্রোতে উঠতে গড়িমসি করে। এসময় আসামিরা কামরুলের সাথে আরো লোকজন ও পুলিশও আছে বুঝতে পেরে তারা মাইক্রো ঘুরিয়ে পালানোর চেষ্টা করে। তাদেরকে ধাওয়া করে দশমাইল এলাকায় ব্যারিকেড সৃষ্টি আটক করা হয়। আসামীদের স্বীকারোক্তি মোতাবেক দিনাজপুর পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের সামনে থেকে নেয়া মোটরসাইকেলসহ পলাশকে পুলিশ আটক করে। তবে আশ্চর্যজনক হলেও সত্য যে, তাদের আটক করার সময় সিআইডি’র এএসপিসহ অন্যান্যদের কাছে সিআইডি’র লোগোসহ বেল্ট দেখতে পায় জানালেও এজাহারে তার উল্লেখ করা হয়নি। এমননি এজাহারে এএসপিসহ অন্যান্যদের পিতার নাম ও ঠিকানা উল্লেখ থাকলেও সিআইডি’র পরিচয় উল্লেখ করা হয়নি।

এজাহারে উল্লেখিত আসামিরা হলো, মো. ফুসিউল আলম পলাশ, মো. সারোয়ার কবির সোহাগ, মো. হাসিনুর রহমান, মো. আহসান উল ফারুক, মো. হাবিব মিয়া, মো. আরেফিন শাহ, মো. সোহেল, মো. রিয়াদ, মো. সুমন, মো. জাহিদ। এদিকে চিরিরবন্দর থানা পুলিশের কাছ থেকে তদন্তভার ডিবি পুলিশের কাছে হস্তান্তরের পর গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ডিবি’র ওসি মোস্তাফিজার রহমানের নেতৃত্বে ৮ সদস্যের একটি দল চিরিরবন্দরের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মা ও ছেলে অপহরণ
আরও পড়ুন