Inqilab Logo

শুক্রবার, ২২ অক্টোবর ২০২১, ০৬ কার্তিক ১৪২৮, ১৪ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

নিউজিল্যান্ডের ‘বিশ্বাসঘাতকতায়’ হতবাক আফগান সহযোগীরা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৭ আগস্ট, ২০২১, ৭:৪৪ পিএম

আফগানিস্তান থেকে সেনা, নাগরিক ও সহযোগীদের সরিয়ে নেয়ার অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করেছে নিউজিল্যান্ড। তবে তাদের সাথে সহযোগিতা করা অনেক আফগান দোভাষী বাড় পড়ে গিয়েছেন। কাবুলে আটকা পড়ে তারা আতঙ্কিত হয়ে বলেছেন যে, এটি নিউজিল্যান্ড সরকারের ‘সম্পূর্ণ বিশ্বাসঘাতকতা’।

বৃহস্পতিবার রাতে কাবুল থেকে যাত্রীদের নিয়ে সংযুক্ত আরব আমিরাতে (ইউএই) পৌঁছায় নিউজিল্যান্ডের একটি ফ্লাইট। আফগানিস্তান ছেড়েছেন দেশটির সব সেনাসদস্য। এই মুহূর্তে কাবুল বিমানবন্দরে নিউজিল্যান্ডের আর কোনো নাগরিক অবস্থান করছেন না। তবে কাবুল শহরে কয়েকজন এখনো রয়ে গেছেন। তারা নিউজিল্যান্ডের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন। আফগানিস্তানে আর কোনো উড়োজাহাজ পাঠানো হবে না বলে জানিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন।

দ্য গার্ডিয়ান আলি নামের একজন আফগান দোভাষী এর সাথে কথা বলেছিল, যিনি মিত্রবাহিনীকে সহায়তা করার জন্য তালেবানদের প্রতিশোধের আশঙ্কায় নিউজিল্যান্ডে পুনর্বাসন ভিসার জন্য অনুমোদিত হয়েছিলেন। তিনি কাবুলে থাকেন এবং আফগানিস্তানে নিউজিল্যান্ড বাহিনীকে সাহায্যকারী অন্যান্য ৩৭ জন অনুবাদক, দোভাষী এবং অন্যান্য লোকের একটি গ্রুপের সাথে যোগাযোগ করছেন। তিনি বলেন, তাদের কাউকেই সরানো হয়নি। নিউজিল্যান্ড সরকার তাদের প্রত্যাহার শেষ মিশন করেছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এটা মর্মান্তিক খবর। আমি মোটেও বিশ্বাস করতে পারছি না। না আমি বিশ্বাস করতে পারছি না।’ তিনি বলেন, ‘আমাদের কি হবে? ভিসা পাওয়া এবং সরাসরি (নিউজিল্যান্ডের জন্য) কাজ করা ৩৭ জনের কি হবে? আমার বার্তা হল আমাদের পিছনে ফেলে না যাওয়া। এটি সম্পূর্ণ বিশ্বাসঘাতকতা। সরকার অন্য উপায় খুঁজতে পারে।’

শুক্রবার সকালে প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন ঘোষণা করেন, সন্ত্রাসী হামলার চলমান হুমকির কারণে নিউজিল্যান্ড কাবুলে আরও ফ্লাইট বন্ধ করছে। বৃহস্পতিবার কাবুল বিমানবন্দরে সহিংস হামলায় ব্যাপক হতাহতের পর এই ঘোষণা দেয়া হয়। আলী বলেন, ‘আফগানরা যারা কাবুলে পিছনে পড়েছিল তারা আতঙ্কিত হয়ে আছে। তাদের বিশ্বাস যে, দেশ গৃহযুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে রয়েছে। ভয় বাড়ছে, মানুষ যেকোনো উপায়ে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব দেশ থেকে বেরিয়ে আসার জন্য সবকিছু বিক্রি করছে। আপনি প্রত্যেকের চোখে শঙ্কা এবং হতাশা দেখতে পারেন।’

শুক্রবার প্রতিরক্ষা বাহিনীর পাশাপাশি এক সংবাদ সম্মেলনে আরডার্ন বলেন, হামলার সঙ্গে সঙ্গে লোকজনকে সরিয়ে নেয়ার পথ এখন বন্ধ হয়ে গেছে। আফগানিস্তানে নিউজিল্যান্ডের ভিসাপ্রাপ্ত কতজন থেকে গিয়েছেন আর সেফট্রাভেলে নিবন্ধিতদের মধ্যে কতজন বেরিয়ে আসতে পেরেছিলেন তা আরডার্ন জানতেন না। ‘কিন্তু আমি বলতে পারি, আমরা নিশ্চিতভাবে জানি, আমরা সবাইকে বের করিনি,’ তিনি বলেছিলেন। তিনি আরও বলেন, ‘নিউজিল্যান্ড ভিসাধারীদের দেশে আনার চেষ্টা ছেড়ে দেয়নি। এটি কঠিন হবে এবং এতে বেশি সময় লাগতে পারে, কিন্তু যাদের বাড়িতে আসা দরকার তাদের আমরা আনতে ছাড়ছি না।’

আলি, অন্যান্য আফগান কর্মী এবং অনুবাদকদের সাথে, কাবুলের পতনের আগে কয়েক মাসে নিউজিল্যান্ডে আসার জন্য বেশ কয়েকটি আবেদন করেছিলেন। নিউজিল্যান্ডের গণমাধ্যমে সেই আবেদনগুলো ব্যাপকভাবে প্রকাশিত হয়েছিল। সরকার তাদের বারবার প্রত্যাখ্যান করেছে। অভিবাসন মন্ত্রী ক্রিস ফাফোই গ্রুপকে বলেছিলেন যে, সরকার সাবেক সহযোগীদের সহায়তা ‘প্রসারিত’ করতে চাইছে না। সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান।



 

Show all comments
  • Rownakul ahsan ২৭ আগস্ট, ২০২১, ৮:৪৮ পিএম says : 0
    I Don't belive Nuziland government can do that. Bea cause they are very kind and pisful. After this Incident is anybody believed anything.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আফগানিস্তান-নিউজিল্যান্ড
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ