Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৭ মে ২০২২, ০৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ১৫ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

আওয়ামী লীগ আমলেই গুমের সংস্কৃতি চালু হয়েছে

মানববন্ধনে মির্জা ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৩১ আগস্ট, ২০২১, ১২:০০ এএম

আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দেশে গুমের সংস্কৃতি চালু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এ সংস্কৃতি বন্ধ করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সরকারকে রাজনৈতিকভাবে পরাজিত করার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

গতকাল সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আন্তর্জাতিক গুম দিবস উপলক্ষে বিএনপির মানবাধিকার সেল আয়োজিত মানববন্ধনে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, এ কেমন দেশ কেমন রাষ্ট্র কেমন সরকার আমরা বানালাম, যেখানে আমাদের সন্তানেরা নিখোঁজ হয়ে যাবে। যাদের খুঁজে পাওয়া যাবে না এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর লোকেরা তাদের তুলে নিয়ে গেলেও সরকার তার কোনো জবাব দেবে না। তিনি বলেন, বাংলাদেশের মানুষের কাছে ‘গুম’ শব্দটি পরিচিত ছিল না। এই ফ্যাসিবাদী সরকার ক্ষমতা দখলের পর থেকে এই শব্দটি চালু হয়েছে। যারাই একটু প্রতিবাদী সচেতন তাদের স্তব্ধ করে দেয়া হয় এবং গণতান্ত্রিক অধিকার আদায়ের জন্য যখনই আন্দোলন করে কেউ, তখনই তাদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয়, গুম করে দেওয়া হয়। সরকারের কাছে গেলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে গেলে তারা বলেন- ‘আমরা কিছুই জানিনা’।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ১৯৭১ সালে আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছিলাম একটি মানবতার সমাজ গঠন করতে সক্ষম হবো বলে, গণতন্ত্রের পক্ষের একটি রাষ্ট্র আমরা তৈরি করতে পারবো বলে। যেখানে মানুষের অধিকারগুলো প্রতিষ্ঠিত হবে। অথচ সেই অধিকারগুলো আজ অবৈধ সরকার কেড়ে নিচ্ছে। বুলেট এবং পিস্তল দিয়ে মানুষের কণ্ঠকে স্তব্ধ করতে চাইছে। আট থেকে দশ বছর ধরে যাদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না, ঘুম হওয়া সেইসব পরিবারের দায়িত্ব আজকে কে নেবে?

মির্জা ফখরুল বলেন, আট-নয় বছরে আমাদের অনেক নেতাকর্মী গুম হয়ে গেছে। গুম হওয়া ইলিয়াস আলীর (বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক) মেয়ে এখনো দরজার দিকে তাকিয়ে থাকে, কখন তার বাবা ফিরে আসবে। তার বাবা ফিরে আসে না। এই যে ছোট ছোট বাচ্চাদের আহাজারি আপনারা শুনলেন, আমরা তো আমাদের চোখের পানি ধরে রাখতে পারি না। অসহায়ত্বের একটি বেদনা-যন্ত্রণা আমাদের কুঁড়ে কুঁড়ে খায়। আমরা এখান থেকে মুক্তি চাই। আমরা অবশ্যই আমাদের এ মানুষগুলোকে ফিরে পেতে চাই। পরিবারগুলোও যেন তাদের নিখোঁজ স্বজনদের ফিরে পায়।

গুম হওয়া ব্যক্তিদের পরিবারের অসহায়ত্বের দায় সরকারকেই নিতে হবে মন্তব্য করে তিনি বলেন, এই পরিবারগুলোর অসহায়ত্বের দায় কে নেবে? এখানে অনেকে আছেন যে, ৯ বছর ১০ বছর ধরে তাদেরকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। সাবেক এমপি সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আলী, ঢাকার কমিশনার চৌধুরী আলমসহ আজকে আমাদের পাঁচশরও অধিক নেতা-কর্মী গুম হয়ে গেছেন ৭/৮/৯ বছর ধরে। আপনারা (সরকার) বলেন যে, এখানে এগুলো (গুম) হয় না। তা হলে গেল কোথায়? দায়িত্ব তো আপনাদের। খুঁজে বের করে তাদেরকে তাদের পরিবারের কাছে একে একে ফেরত দিন। এটা অবশ্যই আপনাদেরকে দিতে হবে। অন্যথায় ইতিহাসের কাঠগড়ায় আপনাদেরকে তার জবাব দিতে হবে। জনগণের আদালতে আপনাদের বিচার করা হবে।

মানববন্ধনে অংশ নেওয়া পরিবারের সদস্যদের অনেকেই নিখোঁজ প্রিয়জনের ছবি হাতে মানববন্ধনে অংশ নেন।
বিএনপির মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আসাদুজ্জামানের সভাপতিত্বে ও সহ সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুলের সঞ্চালনায় দলের সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স, গুম হওয়া আনোয়ার হোসেনের মেয়ে রাইসা, মো. সোহেলের মেয়ে সাবা, মো. কাউসারের মেয়ে মীম, সেলিম রেজার বোন রেহানা আখতার মুন্নী, সাজেদুল ইসলাম সুমনের বোন আফরোজা ইসলাম আঁখি ও খালেদ হোসেনের মেয়ে শাম্মী আখতার নিপা মানববন্ধনে বক্তব্য দেন।#



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ