Inqilab Logo

সোমবার, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ০৯ কার্তিক ১৪২৮, ১৭ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

বেতনের শীর্ষে মেসি

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০০ এএম

বিশ্বের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত ফুটবলার কে? এ সিংহাসন প্রায়ই হাতবদল হয়। আপাতদৃষ্টিতে যে কেউ ভাবতে পারেন, বিশ্বের সেরা তিন ফুটবলার হিসেবে যাঁদের বিবেচনা করা হয়, তাঁদের মধ্যেই কেউ হয়তো ঘুরে ফিরে এ সিংহাসনে বসবেন! ব্রিটেনের সাপ্তাহিকী রেডিও টাইমসের করা এ বছর সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত খেলোয়াড়দের তালিকায় শীর্ষ দশে আছেন লা লিগার তিন খেলোয়াড়, এই তালিকায় অনুমিতভাবেই আছেন পিএসজির লিওনেল মেসি, কিলিয়ান এমবাপ্পে আর নেইমার।
পারিশ্রমিকের এই অঙ্কের মধ্যে কর বিবেচনা করা হয়নি। বোনাস কিংবা অন্যান্য ভাতাও হিসেব করা হয়নি। স্পনসরশিপ এবং বিভিন্ন এনডোর্সমেন্ট থেকে যাঁরা প্রচুর আয় করেন, তাদের এই তালিকার বাইরে রাখা হয়েছে। শুধু ‘বেসিক বেতন’টাই হিসেব এ তালিকায়। আসুন দেখে নেই-
১. লিওনেল মেসি (পিএসজি)
নতুন ক্লাব কিন্তু মর্যাদা একই- বিশ্বের সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত খেলোয়াড়। পিএসজিতে যোগ দিয়েছেন মেসি। সেখানে তার সাপ্তাহিক পারিশ্রমিক ১৩ লাখ ২৫ হাজার ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ১১ কোটি ৩২ লাখ ১৯ হাজার টাকা। একমাত্র খেলোয়াড় হিসেবে সপ্তাহে ১০ লাখ ডলারের বেশি আয় করেন মেসি। বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় হিসেবে বিবেচিত হওয়ায় মেসির এই আয়ের অঙ্ক নিয়ে অবাক হওয়ার কিছু নেই।
২. নেইমার (পিএসজি):
শীর্ষ দশে জায়গা পাওয়া পিএসজির দ্বিতীয় খেলোয়াড়। পিএসজিতে নেইমারের সাপ্তাহিক বেতন ৮ লাখ ৩৬ হাজার ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ৭ কোটি ১৪ লাখ ৩৪ হাজার টাকা। নেইমার বেতনে এগিয়ে থাকলেও সব মিলিয়ে আয়ে রোনালদোকে ধরতে পারেননি। পর্তুগিজ তারকার মতো স্পন্সর এবং অন্যান্য ভাতাদি থেকে বিশাল অঙ্কের আয় নেই নেইমারের।
৩. লুইস সুয়ারেজ (অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ):
অনেকে বলেন, লুইস সুয়ারেজের ধার আগের মতো নেই। কিন্তু অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদে গিয়ে ৩৪ বছর বয়সেও নিজের পারিশ্রমিকের যৌক্তিকতা প্রমাণ করে চলছেন উরুগুয়ে তারকা। অ্যাটলেটিকোয় তার সাপ্তাহিক বেতন প্রায় ৬ কোটি ৭৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা। বার্সা ছেড়ে আতলেতিকোয় গিয়ে দারুণ করছেন সুয়ারেজ। গত মৌসুমে ক্লাবটির লিগ জয়ে দুর্দান্ত ভ‚মিকা রাখেন তিনি।
৪. আঁতোয়ান গ্রিজমান (অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ):
কাল দলবদলের শেষ দিনে বার্সেলোনা ছেড়ে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদে ফিরেছেন আঁতোয়ান গ্রিজমান। তার আগে বার্সেলোনায় সপ্তাহে ৭ লাখ ৯৩ হাজার ডলার পারিশ্রমিক পেতেন ফরাসি তারকা। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ৬ কোটি ৭৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা।
৫. গ্যারেথ বেল (রিয়াল মাদ্রিদ):
রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে বনিবনা না হওয়ায় সা¤প্রতিক সময়ে বেলের সুনামে কিছুটা হলেও কালিমা লেগেছে। কার্লো আনচেলত্তি রিয়াল মাদ্রিদের কোচ হয়ে আসার পর রিয়ালে দ্বিতীয় সুযোগ পেয়েছেন বেল। ক্লাবটিতে তার সাপ্তাহিক বেতন ৬ লাখ ৯০ হাজার ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ৫ কোটি ৮৯ লাখ ৫৯ হাজার টাকা।
৬. কিলিয়ান এমবাপ্পে (পিএসজি):
পিএসজির শীর্ষ তিন তারকার মধ্যে এমবাপ্পের পারিশ্রমিকই সর্বনিম্ন। এরপরও তিনি তালিকার শীর্ষে দশে জায়গা করে নিয়েছেন। ফরাসি ক্লাবটিতে তার সাপ্তাহিক পারিশ্রমিক ৫ লাখ ৬৬ হাজার ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ৪ কোটি ৮৩ লাখ ৬৩ হাজার টাকা। কাল শেষ হওয়া দলবদলের মৌসুমে রিয়াল মাদ্রিদে যাওয়ার পথে ছিলেন এমবাপ্পে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা আলোর মুখ দেখেনি। এই মৌসুম শেষেই পিএসজির সঙ্গে চুক্তির মেয়াদ ফুরোবে তার। তখন বিনা ম‚ল্যেই যেতে পারবেন রিয়ালে। এমবাপ্পে যেখানেই যোগ দিন না কেন, আগামী কয়েক বছর যে তিনি শীর্ষ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত খেলোয়াড়দের তালিকায় থাকবেন, সে কথা এখনই বলা যায়।
৭. ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড):
জুভেন্টাস থেকে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডে যোগ দেওয়ার পর বেতনের তালিকায় বেশ পিছিয়েছেন ৩৬ বছর বয়সী রোনালদো। জুভেন্টাসে থাকতে তার পারিশ্রমিক (ইউনাইটেডে যা পাবেন) দ্বিগুণেরও বেশি ছিল। কিছুদিন আগে ইংলিশ ক্লাবটিতে যোগ দেওয়া রোনালদোর সাপ্তাহিক বেতন ৫ লাখ ৩১ হাজার ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ৪ কোটি ৫৩ লাখ ৭৩ হাজার টাকা। ইংল্যান্ডে কেভিন ডি ব্রæইনার সঙ্গে রোনালদো যৌথভাবে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিকপ্রাপ্ত খেলোয়াড়। রোনালদো বিশ্বে জনপ্রিয় খেলোয়াড়দের একজন। স্পনসর এবং অন্যান্য খাত থেকে বছরে তার আয় প্রায় ৪৭ কোটি ডলার।
৮. কেভিন ডি ব্রæইনা (ম্যানচেস্টার সিটি):
ম্যানচেস্টার সিটিতে কেভিন ডি ব্রæইনাই সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পেয়ে থাকেন। নতুন চুক্তিতে তিনি ইংলিশ ফুটবলে যৌথভাবে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পান। ম্যানচেস্টারের ক্লাবটিতে তার সাপ্তাহিক পারিশ্রমিক ৫ লাখ ৩১ হাজার ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ৪ কোটি ৫৩ লাখ ৭৩ হাজার টাকা। ২০১৫ সালে সিটিতে যোগ দেওয়ার পর থেকে ক্লাবটির মাঝমাঠের কান্ডারি হয়ে আছেন বেলজিয়াম তারকা।
৯. ডেভিড ডি গিয়া (ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড):
একমাত্র স্প্যানিশ খেলোয়াড় হিসেবে এ তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন ডি হেয়া। গোলকিপারদের মধ্যে তার আয়ই সর্বোচ্চ। ২০১১ সালে গোলকিপারের জন্য ব্রিটিশ ট্রান্সফার রেকর্ড ভেঙে তাঁকে আতলেতিকো মাদ্রিদ থেকে নিয়ে আসে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড। ওল্ড ট্র্যাফোর্ডের ক্লাবে তার সাপ্তাহিক পারিশ্রমিক ৫ লাখ ১৭ হাজার ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা প্রায় ৪ কোটি ৪১ লাখ ৭৬ হাজার টাকা।
১০. রবার্ট লেভান্দোভস্কি (বায়ার্ন মিউনিখ):
বুন্দেসলিগা থেকে জায়গা করে নেওয়া একমাত্র খেলোয়াড়। বায়ার্নে তার সাপ্তাহিক বেতন ৪ লাখ ৮৩ হাজার ডলার। বাংলাদেশি মুদ্রায় অঙ্কটা ৪ কোটি ১২ লাখ ৭১ হাজার টাকা প্রায়। লেভা এবার বায়ার্ন ছাড়ি ছাড়ি করেও ছাড়তে পারেননি। বুন্দেসলিগায় বিদেশি খেলোয়াড়দের মধ্যে এই পোলিশ স্ট্রাইকারই সর্বোচ্চ গোলদাতা। জার্মানির ক্লাব ফুটবলে ১১ বছরের ক্যারিয়ারে ৯ বার বুন্দেসলিগা জিতেছেন তিনি। এর মধ্যে ২ বার জিতেছেন বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের হয়ে, বাকি ৭ বার বায়ার্নের হয়ে।



 

Show all comments
  • Ahmed Bin Sarkis ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:৫১ এএম says : 0
    জিনিষ যেটা ভালো দাম তার একটু বেশি।এ নিয়া রাজনীতি করার কিছু নাই
    Total Reply(0) Reply
  • Zubaer Ahmmed ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:৫২ এএম says : 0
    অন্য গ্রহের প্লেয়ার আসতে যাইতে রকেট ভাড়ার ও একটা ব্যাপার আছে এইটা নিয়া রাজনীতি করার কিছু নাই
    Total Reply(0) Reply
  • Mahamud Hasan ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:৫২ এএম says : 0
    যাই হোক বেতন দিয়ে তো আর সেরা বিবেচনা করা যায় না, আমার কাছে মেসি আর রোনালদো দুজনই সেরা
    Total Reply(0) Reply
  • রং পেন্সিল ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:৫৩ এএম says : 0
    মেসি হলো সবার সেরা ফুটবলার এটা সবাই জানে,,এটা নিয়ে জগড়া করে কোনো লাভ নাই,,,মেসিকে ফুটবলের জাদুঘড় বলা হয়৷৷,,, মে
    Total Reply(0) Reply
  • Sribas Biswas ২ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৮:২১ পিএম says : 0
    কোনো খেলোয়াড়কে টাকার অঙ্কে দেখে বিবেচনা করা আমার পক্ষে শোভা পায় না কারণ নিম্ন আয়ের খেলোয়াড়রাও সে অবস্হানে পৌছাতে অনেক কষ্ট করেছেন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মেসি

১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১
১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১
২ সেপ্টেম্বর, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ