Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১৩ কার্তিক ১৪২৭, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২ হিজরী

কুষ্টিয়ায় চালকল মালিকদের সিন্ডিকেট দেড় মাসে চালের দাম বেড়েছে কেজিতে ৬ থেকে ৯ টাকা

প্রকাশের সময় : ৬ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

কুষ্টিয়া থেকে স্টাফ রিপোর্টার : কুষ্টিয়ার খাজানগর এলাকার চালকল মালিকরা সিন্ডিকেট করে চালের দাম বাড়িয়ে দিয়েছেন। মিল গেটের তুলনায় খুচরা বাজারে দাম বাড়ার প্রবণতা আরো বেশি। মিল মালিকরা কৃষকদের কাছ থেকে বেশি দামে ধান কেনার অজুহাত দেখালেও চালের এমন দাম বাড়ার পেছনে ক্রেতা, খুচরা ব্যবসায়ী, কৃষক নেতারা মিল মালিক ও ফড়িয়াদেরকে দায়ী করেছেন।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কুষ্টিয়ায় মিল মালিকদের সিন্ডিকেটে চালের দাম বেড়েই চলেছে। গত দেড় মাসে দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম কুষ্টিয়ার খাজানগর এলাকায় চালের মোকামে মিনিকেট, কাজললতা ও আটাশ চালের দাম কেজি প্রতি ৬ থেকে ৯ টাকা বেড়েছে। এতে সাধারণ ভোক্তাদের নাভিশ্বাস চরমে পৌঁছেছে।
এর প্রভাব খুচরা বাজারেও পড়েছে। ধানের দাম বাড়ায় মিল মালিকেরা চালের দাম বাড়াচ্ছে। তবে অভিযোগ উঠেছে মিল মালিকেরা ইচ্ছামত চালের দাম বাড়িয়ে দিচ্ছে। মিল মালিক সমিতি সূত্রে জানা গেছে, গত ৩০ সেপ্টেম্বর মিলগেটে মিনিকেট (চিকন) চাল কেজি প্রতি ৪৬ টাকা দরে, কাজললতা ৪৩ টাকা ও আটাশ ধানের চাল ৪০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। কিন্তু গত ১০ আগস্ট মিনিকেট ৪০ টাকা, কাজললতা ৩৪ টাকা ও আটাশ ধানের চাল ৩৪ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছিল। দেড় মাসের ব্যবধানে মিলগেটে মিনিকেট কেজি প্রতি ৬ টাকা, কাজললতা ৯ টাকা ও আটাশ ধানের ৬ টাকা বেড়েছে।
জানা গেছে, কুষ্টিয়ার খাজানগরে ৩৬৪টি সরকারি নিবন্ধিত চালকল রয়েছে। এর মধ্যে অটোরাইস মিলের সংখ্যা ৩১টি। এখান থেকে প্রতিদিন ১৫ টনের দেড়শ’ ট্রাক চাল ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে যায়।
জেলা বাজার কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম বলেন, কৃষকদের ঘরে দশ ভাগও ধান নেই। ব্যবসায়ী ও মিল মালিকরা অনেক আগেই ধান কিনে মজুদ করে রেখেছে। বাজারে চালের দাম বাড়ার প্রবণতা অব্যাহত রয়েছে। বিষয়টি ওপর মহলে জানানো হয়েছে।
বাংলাদেশ অটো মেজর অ্যান্ড হাসকিং মিল মালিক সমিতি কুষ্টিয়া শাখার সাধারণ সম্পাদক ও দাদা রাইস মিলের মালিক জয়নাল আবেদীন সাধু বলেন, মিল মালিকদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ পুরোপুরি সত্য নয়। ফড়িয়া ব্যবসায়ীরা কৃষকদের কাছ থেকে ধান কিনে রাখে। সেই ধান এখন মিল মালিকেরা বেশি দামে কিনছে। আর এতেই দাম বাড়ছে।
সিন্ডিকেটের বিষয়টি অস্বীকার করে তিনি বলেন, তাদের গুদামে তিন মাসের চাল উৎপাদনের মতো ধান মজুদ থাকে।
এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক জহির রায়হান বলেন, বিষয়টি নিয়ে মিল মালিক সমিতির নেতাদের সঙ্গে আলোচনা করা হবে। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। যদি কেউ ইচ্ছামত দাম বাড়িয়ে থাকে, প্রমাণ পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: কুষ্টিয়ায় চালকল মালিকদের সিন্ডিকেট দেড় মাসে চালের দাম বেড়েছে কেজিতে ৬ থেকে ৯ টাকা
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ