Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৩ কার্তিক ১৪২৮, ১১ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

ভারত-পাকিস্তান পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধের আশঙ্কা ক্ষীণ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৭:৪৪ পিএম

ভারত ও পাকিস্তানের সামরিক অভিজ্ঞরা দুই পারমাণবিক প্রতিবেশীর মধ্যে একটি পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধের আশঙ্কা ক্ষীণ বলে মনে করছেন। ১৯৬৫ সালের যুদ্ধের ৫৬ তম বার্ষিকীতে তারা এটি একটি ‘অকল্পনীয়’ ধারণা বলে অভিহিত করেছেন। তারা কাশ্মীর ইস্যু সহ দীর্ঘদিন ধরে বিতর্কিত সমস্যা সমাধানে ‘রাজনৈতিক পদক্ষেপের’ আহ্বানও জানিয়েছেন।

আনাদোলু এজেন্সিকে দেয়া সাক্ষাতকারে ভারতের লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অবঃ) এইচএস পানাগ, যিনি ১৯৭১ সালের যুদ্ধে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে একজন তরুণ অধিনায়ক হিসেবে অংশগ্রহণ করেছিলেন, তিনি বলেন যে, ‘পারমাণবিক কারণ’ একটি পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধের আশঙ্কা ব্যাপকভাবে হ্রাস করেছে। ‘১৯৯৮ সালে, উভয় দেশ পারমাণবিক শক্তি হয়ে উঠেছিল। এখন পারমাণবিক দেশগুলো পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধ করে না, কারণ পারমাণবিক ক্ষমতা কিছু সময়ে কার্যকর হয়।’

তিনি বলেন, ‘জাতিগুলোর মধ্যে যুদ্ধ এবং দ্বন্দ্ব অব্যাহত থাকে এবং সেগুলো কখনো শেষ হয় না ... কিন্তু পারমাণবিক অস্ত্রের আধুনিক যুগে সর্বাত্মক যুদ্ধের ধারণা শেষ হয়ে গেছে। এটা আর হতে পারে না। যুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে এবং এর সীমাবদ্ধতাও রয়েছে।’ ভারত একই কারণে পাকিস্তানকে আক্রমণ করা থেকে বিরত রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, পাকিস্তানকে ‘ভারতের পক্ষে নির্ণায়কভাবে পরাজিত করা সম্ভব হবে না’। ব্রিগেডিয়ার এমপিএস বাজওয়া, একজন সেনা অভিজ্ঞ, যিনি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ১৯৯৯ সালে কার্গিল সংঘর্ষের সময় একটি ভারতীয় ব্রিগেডের কমান্ড করেছিলেন, তিনি বলেন, ‘এটা খুবই অসম্ভব কারণ উভয় দেশই পারমাণবিক সশস্ত্র এবং তারা স্পষ্টতই বুঝতে পেরেছে যে এটি কোন বিকল্প নয়।’

পানাগের মতামতকে প্রতিধ্বনিত করে লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অবঃ) তালাত মাসুদ, যিনি ১৯৬৫ এবং ১৯৭১ সালে ভারতের বিরুদ্ধে দুটি যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। তিনি পারমাণবিক উপাদানকে সরিয়ে রাখলেও একটি পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধের আশঙ্কা প্রত্যাখ্যান করে বলেন, ‘হ্যাঁ, পারমাণবিক সক্ষমতা একটি ফ্যাক্টর কিন্তু যদি তারা পারমাণবিক নাও হয়, তাহলে এই যুগে পূর্ণাঙ্গ যুদ্ধে যাওয়ার কোন মানে হবে না।’ মাসুদ ১৯৬৫ সালে একটি সাঁজোয়া ডিভিশনে দায়িত্ব পালন করেছিলেন এবং একটি ভয়াবহ ট্যাংক যুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন। উভয় পক্ষের শত শত ট্যাঙ্ক নিয়ে যুদ্ধটি উত্তর-পূর্ব শিয়ালকোট জেলার কাছে পাকিস্তান-ভারত সীমান্তে অবস্থিত চবিন্দা গ্রামে সংঘটিত হয়েছিল, যা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর দ্বিতীয় বৃহত্তম ট্যাংক যুদ্ধ হিসেবে বিবেচিত হয়।

‘(সর্বাত্মক যুদ্ধের ক্ষেত্রে) আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন করা ছাড়াও আপনি আপনার দেশকে ১৫-২০ বছর পিছনে ঠেলে দেবেন। আপনার লোকদের জন্য পরিস্থিতি আরও কঠিন হবে, অর্থনীতি ভেঙে পড়বে এবং বিষয়গুলি আরও জটিল হয়ে উঠবে’, তিনি বলেন, এটি একটি ‘বুদ্ধিমান’ এবং ‘কল্পনাপ্রসূত’ ধারণা নয় যে দুটি দেশ যুদ্ধে যাওয়ার মতো ‘ভুল’ করবে।

অবসরপ্রাপ্ত মেজর ইকরাম সেহগাল, যিনি পাইলট ছিলেন এবং ১৯৬৫ ও ‘৭১ সালের যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেছিলেন, তিনিও সর্বাত্মক যুদ্ধের আশঙ্কা উড়িয়ে দেন। ‘সর্বাত্মক যুদ্ধের অর্থ, এটি পারমাণবিক সংঘর্ষে পরিণত হতে পারে। এবং সেই ক্ষেত্রে, বিজয়ী এবং পরাজিত কেউই আর থাকবে না।’ সেহগাল আনাদোলু এজেন্সিকে বলেছিলেন।

পারমাণবিক অস্ত্রধারী কয়েকটি নির্বাচিত দেশের মধ্যে রয়েছে পাকিস্তান ও ভারত। পাকিস্তানের অনেক আগে ভারত ১৯৭৪ সালে পারমাণবিক ক্লাবে যোগ দেয় এবং ইসলামাবাদকেও অনুসরণ করতে প্ররোচিত করে। ১৯৮০ এর দশকে পাকিস্তানও নীরবে তার পারমাণবিক সক্ষমতা গড়ে তুলেছিল, যখন ভেঙে পড়া সোভিয়েত ইউনিয়নের বিরুদ্ধে প্রথম আফগান যুদ্ধে তারা যুক্তরাষ্ট্রের মিত্র ছিল। স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইনস্টিটিউটের মতে, বর্তমানে ভারতের কাছে ৮০ থেকে ১০০ টি পারমাণবিক ওয়ারহেড রয়েছে, আর পাকিস্তানের কাছে ৯০ থেকে ১১০ টি রয়েছে। সূত্র: ট্রিবিউন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত-পাকিস্তান


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ