Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার ১৯ জুন ২০১৯, ৫ আষাঢ় ১৪২৬, ১৬ শাওয়াল ১৪৪০ হিজরী।

সিরিয়ায় সরকারি বাহিনীর উপর হামলা চালানো উচিত যুক্তরাষ্ট্রের

উত্তরাঞ্চলে নিরাপদ মানবিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠায় উভয় প্রার্থীর অভিন্ন মত

প্রকাশের সময় : ৭ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের রানিংমেট মাইক পেন্স বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের উচিত সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালানো। তিনি অভিযোগ করে বলেন, সিরিয়ার আলেপ্পো পুনর্দখলে রাশিয়া আসাদ সরকারকে অব্যাহতভাবে সমর্থন দিলে গেলেও এ ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের কোন পদক্ষেপ নেই। ডেমোক্রেটিক পার্টির ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী টিম কেইনের সঙ্গে বিতর্ক চলাকালে তিনি এমন মন্তব্য করেন। রিপাবলিকান পার্টির ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী বলেন, আসাদ সরকারের সমর্থনে রাশিয়া আলেপ্পোতে নৃশংস হামলায় অংশ নেয়া কিংবা সিরিয়া সরকারকে অব্যাহতভাবে সমর্থন দিয়ে গেলেও লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালাতে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বাহিনীকে ব্যবহার করা উচিত। সিরিয়ার সেনাবাহিনী দুই সপ্তাহ আগে বিদ্রোহীদের দখলকৃত আলেপ্পোর পূর্বাঞ্চল পুনর্দখল করতে রাশিয়ার সমর্থনে সামরিক প্রক্রিয়া জোরদারের ঘোষণা দেয়।
যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন নির্বাচনে উভয় দলের ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে নিরাপদ মানবিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার ব্যাপারে মত প্রকাশ করেন। পেন্স ও কেইন উভয়েই সিরিয়া সরকারের প্রতি রাশিয়ার সমর্থন এবং পশ্চিমা দেশগুলোর সঙ্গে মস্কোর মুখোমুখি অবস্থানের সমালোচনা করেন। তবে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনকে প্রশংসা করে এর আগে ট্রাম্প ও পেন্সের বক্তব্য নিয়ে তারা তীব্র বিতর্কে জড়ান। কেইন বলেন, ডোনাল্ড ট্রাম্প বারবার ভøাদিমির পুতিনের প্রশংসা করেছেন। এটা স্পষ্ট যে পুতিনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ রাশিয়ার ওলিগার্সের সঙ্গে তার ব্যবসায়িক স্বার্থ রয়েছে। ট্রাম্পের রানিংমেট মাইক পেন্সও দাবি করে থাকেন প্রেসিডেন্ট ওবামার চেয়ে ভøাদিমির পুতিন ভালো নেতা। মাইক পেন্স এ অভিযোগ পুরোপুরি ভুল বলে তা প্রত্যাখ্যান করেন। তিনি বলেন, হিলারি যখন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন তখন রাশিয়ার সামরিক বাহিনী আগ্রাসী ছিল। ওবামার প্রথম মেয়াদে মস্কোর সঙ্গে সম্পর্কের উন্নতি ঘটানোর নীতির সমালোচনা করেন মাইক পেন্স। তিনি বলেন, হিলারি ক্লিনটন বলেছিলেন, রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্ক পুনরুদ্ধার তার প্রথম অগ্রাধিকার। তার এ সম্পর্ক পুনরুদ্ধারের ফল হচ্ছে ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসন। এএফপি, টিএ এএসআইআর।     



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন