Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১২ কার্তিক ১৪২৮, ২০ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

ইন্দো-প্যাসিফিকে ব্যাপক প্রভাব পড়বে

চীনের সক্ষমতা বৃদ্ধিতে ভারত

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০০ এএম

চীনের ব্যাপক উত্থান এবং সম্প্রসারণ ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরকে উল্লেখযোগ্যভাবে প্রভাবিত করবে। ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির জেজি ক্রফোর্ড অরেশন ২০২১ -তে দেয়া বক্তব্যে এই মন্তব্য করেন ভারতের।

জয়শঙ্কর বলেন, ‘আমরা আন্তর্জাতিক সম্পর্কের একটি নতুন পর্বে প্রবেশ করেছি, এবং চীনের পুনরুত্থানের সম্পূর্ণ প্রভাব বড় শক্তির চেয়ে বেশি অনুভূত হবে। যেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, একটি প্রবল শক্তি হিসেবে, বোঝার জন্য সংগ্রাম করছে, সেখানে প্রভাব বিস্তার ও ক্ষমতার নতুন প্রকাশের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে চীন।’ তিনি বলেছিলেন, ‘প্রতিযোগিতার এ সমসাময়িক রূপগুলোতে জড়িত থাকার সময় এটির সহজাত দুর্বলতা এবং কাঠামোগত সীমাবদ্ধতা রয়েছে। তিনি আরো উল্লেখ করেন, যে চীনের সম্প্রসারণের বৈশ্বিক প্রভাব রয়েছে কারণ এটি বিশ্বকে চালিত করার অন্যতম কারণ হবে। জয়শঙ্কর বলেন, ‘আমরা পরবর্তীতে কী ঘটবে তার রূপরেখা বের করতে চাই, ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলটি এর মূল অংশ হবে এমন কোন প্রশ্ন নেই। যদিও গত কয়েক দশকে এশিয়া ইউরোপের চেয়ে বেশি গতিশীল হয়েছে, তবে তার আঞ্চলিক স্থাপত্য অনেক বেশি রক্ষণশীল।’ গত বছর ভারতীয় এবং চীনা বাহিনীর মধ্যে গালওয়ান উপত্যকার সংঘর্ষ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে ‘সম্পূর্ণ ভিন্ন দিকে’ নিয়ে গিয়েছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, চীনের সাথে সম্পর্ক পরিচালনার চ্যালেঞ্জ ভারতের জন্য ‘খুব, খুব বেশি’।

গত বছর ১৫ ও ১৬ জুন গালওয়ান উপত্যকায় সহিংস মুখোমুখি সংঘর্ষে ২০ জন ভারতীয় সেনা এবং অনির্দিষ্ট সংখ্যক চীনা সৈন্য প্রাণ হারায়, যখন চীনা সেনারা পূর্ব লাদাখের উত্তেজনার সময় প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবরএকতরফাভাবে স্থিতাবস্থা পরিবর্তনের চেষ্টা করেছিল। জয়শঙ্কর বলেন, ১৯৭৫ সালের পরে যখন ভারতীয় এবং চীনা বাহিনীর মধ্যে তুলনামূলকভাবে ছোট সংঘর্ষ হয়েছিল, তখন সীমান্তে কোনও প্রাণহানি হয়নি। তিনি বলেন, ‘তবুও আমরা গত বছর যা দেখেছিলাম তা ছিল সম্পূর্ণ বিপরীত। কোন কারণ ছাড়াই সীমান্তে খুব যুদ্ধংদেহীভাবে চীনের সামরিক উপস্থিতি ছিল।’

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী ১৯৮৮ সালে চীন গিয়েছিলেন, সীমান্ত শান্তিপূর্ণ এবং শান্ত হবে তার উপর ভিত্তি করে সম্পর্ক তৈরি করেছিলেন। তিনি বলেন, ‘আমরা এমন একটি ধারাবাহিক চুক্তির মাধ্যমে এটি করেছি যা আত্মবিশ্বাস তৈরি করেছিল, যা বলেছিল যে আপনার সেনাবাহিনীকে সীমান্তে আনবেন না।’ তিনি আরও বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সংস্থার সংস্কারের প্রতিরোধ আমাদের আরও ব্যবহারিক এবং অবিলম্বে সমাধান খুঁজতে বাধ্য করে। যার কারণে কোয়াড গঠিত হয়েছে।’ সূত্র : জিঞ্জার নিউজ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত

১৬ অক্টোবর, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ