Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১২ কার্তিক ১৪২৮, ২০ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

যুক্তরাজ্যের নতুন আইনে আফগান শরণার্থীরা ‘অপরাধী’?

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৭:০৭ পিএম

লন্ডনে জাতিসংঘের শরণার্থী প্রধান বলেছেন, নতুন জাতীয়তা এবং সীমানা বিল প্রবর্তনের ফলে আফগান শরণার্থীরা ‘অপরাধী’ হিসাবে চিহ্নিত হতে পারেন। যুক্তরাজ্যে ইউএনএইচসিআর’র প্রতিনিধি রোজেলা পাগলিউচি-লর এমপিদের বলেছিলেন যে, সরকার এমন পরিস্থিতিতে নিজেকে খুঁজে পেতে পারে যেখানে তারা আফগানদের বন্দী করছে যারা যুক্তরাজ্যে আশ্রয় চায় কারণ তারা অবৈধ পথে যাতায়াত করে।

ব্রিটিশ হোম অ্যাফেয়ার্স সিলেক্ট কমিটির সামনে হাজির হয়ে, পাগলিউচি-লর বলেন, ‘আমি এটাকে ব্যঙ্গাত্মক মনে করি যে, সত্যিকার অর্থে, কাবুলে বিমান থেকে ঝুলতে দেখে আমরা যেসব মানুষদের দ্বারা খুব প্রভাবিত হয়েছিলাম, আলোচনা করছিলাম যে তাদেরকে কিভাবে সেখান থেকে বের করে আনা যায়। এখন সেই একই মানুষরা যদি নিজেদের চেষ্টায় সেখান থেকে বের হয়ে এখানে আসতে পারে, তাহলে, নতুন বিল অনুযায়ী তারা চার বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হতে পারেন এবং তারপর তাদেরকে নিজেদের দেশে ফেরত পাঠানোর চেষ্টা করা হতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘তারা সেখানে থাকাকালীন আমরা তাদের সম্পর্কে যেভাবে উদ্বিগ্ন, তাতে বিড়ম্বনার কিছু আছে, কিন্তু যখন তারা যুক্তরাজ্যে আসবে তখন আমরা তাদের নিয়ে বিবেচনা করতে প্রস্তুত নই।’ কমিটির পর্যায়ে থাকা বিলের উল্লেখিত উদ্দেশ্যগুলো হলো, আশ্রয় ব্যবস্থাকে সুষ্ঠু করা, যুক্তরাজ্যে অবৈধ প্রবেশ বন্ধ করা এবং দেশে থাকার অধিকার নেই এমন লোকদের অপসারণ করা। এর অর্থ এই যে, যে কেউ অবৈধ পথে যুক্তরাজ্যে প্রবেশ করবে, যেমন চ্যানেল জুড়ে একটি ছোট নৌকা দ্বারা, তাদের দাবি অগ্রহণযোগ্য বলে ঘোষণা করা যেতে পারে, চার বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে, পাবলিক ফান্ডের কোন আশ্রয় নেই, এবং তাদের পরিবারের সদস্যদের তাদের সাথে যোগ দিতে বাধা দেয়া হবে।

ইউএনএইচসিআর দাবি করে যে, বিলটি একটি বৈষম্যমূলক দ্বি-স্তরের আশ্রয় ব্যবস্থা তৈরি করবে যা ১৯৫১ সালের শরণার্থী কনভেনশন লঙ্ঘন করে। কমিটির প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, শরণার্থীদের সহায়তা করার জন্য এপ্রিল মাসে চালু হওয়া বিদ্যমান সরকারি স্কিম - আফগান স্থানান্তর ও সহায়তা নীতি, এবং আফগান নাগরিক পুনর্বাসন প্রকল্প - প্রবেশ করা কঠিন প্রমাণ করছে। কিছু ক্ষেত্রে, আফগানিস্তানে লুকিয়ে থাকা আবেদনকারীদের পুনরায় আবেদন জমা দিতে বলা হচ্ছে বলে একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানিয়েছেন।

স্বরাষ্ট্র দপ্তরের একজন মুখপাত্র বলেছেন, ‘আফগান নাগরিক পুনর্বাসন প্রকল্প ঝুঁকিপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় হিসাবে চিহ্নিত ব্যক্তিদের সুরক্ষা প্রদান করবে। এটি যুক্তরাজ্যের অন্যতম উচ্চাভিলাষী পুনর্বাসন প্রকল্প এবং প্রথম বছরে প্রায় ৫ হাজার এবং আগামী বছরগুলোতে ২০ হাজার অভিবাসীকে স্বাগত জানাবে। ‘অভিবাসনের জন্য আমাদের নতুন পরিকল্পনা ভাঙা আশ্রয় ব্যবস্থা ঠিক করবে এবং এই ধরনের নিরাপদ ও আইনী পথের মাধ্যমে মানুষকে স্বাগত জানাবে। এটি সিস্টেমের অপব্যবহার রোধ করবে, অবৈধ প্রবেশ এবং এর সাথে জড়িত অপরাধ দমন করবে।’

আফগান শরণার্থীদের হোম অফিসের প্রতিশ্রুত ‘উষ্ণ অভ্যর্থনা’ সম্বোধন করে শরণার্থী পরিষদের প্রধান নির্বাহী এনভার সলোমন বলেন, অবৈধভাবে আগতদের জন্য ‘প্রতিকূল পরিবেশ’ দেয়ার জন্য বিভাগের পূর্বের প্রতিশ্রুতির কারণে এটি প্রদান করা কঠিন হতে পারে। স্থানীয় সরকার সমিতির চেয়ারম্যান জেমস জেমিসন বলেন, বর্তমানে হোটেলে অবস্থানরত আফগান শরণার্থীদের দ্রুত আবাসনে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ গুরুতর সমস্যার সম্মুখীন হয়েছে। অনেকেরই ছয় বা সাতজনের বড় পরিবার এবং তাদের বড় বাড়ির প্রয়োজন হবে, যার অপ্রতুলতা রয়েছে।’ আবাসনের ব্যবস্থা করাই বড় সমস্যা বলে তিনি উল্লেখ করেন। সূত্র: দ্য গার্ডিয়ান।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: যুক্তরাজ্য-আফগানিস্তান
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ