Inqilab Logo

রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ০১ কার্তিক ১৪২৮, ০৯ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আবারও ইস্যু হচ্ছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের মানসিক স্বাস্থ্য : একটি সিএনএন বিশ্লেষণ

অনলাইন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১:৫২ পিএম | আপডেট : ২:৩৯ পিএম, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১

আবারও বড় ইস্যু হচ্ছে ডোনাল্ড ট্রাম্পের মানসিক স্বাস্থ্য।সিএনএনের সিনিয়র সম্পাদদক ক্রিস সিল্লিজ্জা এব্যাপারে একটি বিশ্লেষণধর্মী লেখা প্রকাশ করেছেন। তার মতে, আপনি হয়তো একটি সত্যকে মিস করছেন যে, বব উডওয়ার্ড এবং রবার্ট কোস্টার তাদের লেখা নতুন বইয়ে অভিযোগ করেছেন, দেশের শীর্ষ জেনারেল বিশ্বাস করতেন যে, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যথেষ্ট মানসিক অসুস্থ ছিলেন। যেখানে তার উপর হস্তক্ষেপ করার প্রয়োজন ছিল, যাতে চীনের সাথে অযৌক্তিকভাবে ট্রাম্পের দ্বারা যুদ্ধ শুরু না হয়। ইনকিলাব পাঠকদের জন্য এই লেখাটি অনুবাদ করেছেন মোহাম্মদ আবদুল অদুদ।

হ্যাঁ, "পেরিল" এর মতানুসারে এটি আসলে ঘটেছিল। "উডওয়ার্ড এবং কোস্টা লিখেছেন যে, [জয়েন্ট চিফ চেয়ারম্যান মার্ক] মিলি,তাকে হামলায় গভীরভাবে হতবাক। মিলি নিশ্চিত ছিলেন যে, ট্রাম্প নির্বাচনের পরে মারাত্মক মানসিক অবনতিতে ছিলেন। ট্রাম্প এখন পাগলামী ছাড়া, কর্মকর্তাদের সাথে চিৎকার এবং অন্তহীন নির্বাচনী ষড়যন্ত্র সম্পর্কে তার নিজস্ব বাস্তব অবস্থা প্রকাশ করেন। লেখকরা লিখেছেন, মিলি চিন্তিত যে ট্রাম্প হয়তো 'দুর্বৃত্ত' হয়ে যেতে পারে।

 

বই অনুসারে, মিলি তার উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বলেছিলেন,আপনারা কখনই জানেন না যে, প্রেসিডেন্টের ট্রিগার পয়েন্ট কী? এক মিনিটের জন্য এটি সম্পর্কে চিন্তা করুন। প্রেসিডেন্টের শীর্ষ সামরিক উপদেষ্টা মিলি, যিনি সন্দেহ-উদ্বিগ্নতায় এই সময়ের মধ্যে ট্রাম্পের সাথে যথেষ্ট সময় কাটিয়েছিলেন, তিনি বিশ্বাস করেছিলেন যে, তিনি তার নির্বাচনের পরাজয়ের কারণে "গুরুতর মানসিক অবনতির মধ্যে" ছিলেন।


কথা হল: মিলি একমাত্র ব্যক্তি নন, যিনি নির্বাচনের পরিপ্রেক্ষিতে ট্রাম্পের আচরণে পরিবর্তন লক্ষ্য করেছিলেন। হাউসের সংখ্যালঘু নেতা কেভিন ম্যাকার্থি, প্রেসিডেন্টের একজন অনুগত মিত্র, তিনিও একই রকম অনুভব করেছিলেন। আবার, উডওয়ার্ড ও কোস্টার বইয়ে আলোকপাত করেছে যে, বাইডেনের অভিষেকের আগের রাতে ট্রাম্পের সাথে ম্যাকার্থির একটি ব্যক্তিগত ফোনকলের বিবরণ দেওয়া হয়েছে। উডওয়ার্ড এবং কোস্টার মতে, ম্যাকার্থি ট্রাম্পকে বলেছিলেন, 'আমি জানি না গত দুই মাসে আপনার কী হয়েছে।...গত চার বছর ধরে আপনি যেমন ছিলেন, তেমনটি এখন নেই।
লেখকদের মতে ম্যাকার্থির ভাষ্য, তখন ম্যাকার্থি বারবার ট্রাম্পের কাছে বাইডেনকে কল করার জন্য অনুরোধ করেন। বলেন, যদি ফোন করেন, তাহলে আপনি ভাল কাজ করছেন এবং বাইডেন আপনার উত্তরাধিকার হতে চান। জো বাইডেনকে কল করুন। এটা আমার জন্য হলেও করুন। অব্যাহতভাবে তিনি বলেন, আপনাকে তাকে ফোন করতে হবে। জো বাইডেনকে কল করুন।
কেবল দেশের শীর্ষ জেনারেলই নয়, কংগ্রেসের দুই শীর্ষ রিপাবলিকান এবং ট্রাম্পও ভক্তও- বিশ্বাস করেছিলেন যে, নির্বাচন ট্রাম্পের মানসিক স্বাস্থ্যের কিছুটা পরিবর্তন করেছে। অন্তত মিলির ক্ষেত্রে, যিনি বিশ্বাস করেছিলেন যে, ট্রাম্পের মানসিক স্বাস্থ্য সেই পর্যায়ে নেমে এসেছে, যেখানে তার উপর হস্তক্ষেপ করার প্রয়োজন ছিল, যাতে চীনের সাথে অযৌক্তিকভাবে ট্রাম্পের দ্বারা যুদ্ধ শুরু না হয়।
অর্থাৎ, তার অবস্থা অতীতের দৃষ্টিতে ভয়ঙ্কর। কারণ, এটা এমন নয় যে, ট্রাম্প তার প্রথম মেয়াদের বেশিরভাগ সময় ধরেই ধারাবাহিকতা এবং স্বাভাবিক মানসিক আচরণ করতেন। এখন পুরোপুরি বিপরীত। কিন্তু মিলি এবং ম্যাকার্থি বিশ্বাস করতেন যে, ক্ষমতার শেষ মাসগুলোতে ট্রাম্পের মানসিক পরিস্থিতি অনেক খারাপ হয়ে গিয়েছিল। তা থেকে বোঝা যায় যে, আমরা যে কেউ ভাবতেও পারতাম না, তার চেয়েও বেশি বিপর্যয়ের কাছাকাছি ছিলেন তিনি। (এবং সেখানে প্রচুর লোক ছিলেন- বিশেষ করে জানুয়ারির পরে- যারা বিশ্বাস করেছিল যে, আরও ধ্বংসাত্মক ফলাফলের সম্ভাবনা খুবই বাস্তব!)কিন্তু, এটি অতীতের দৃষ্টিতে ভয়ঙ্কর হওয়ার চেয়েও বেশি। কারণ, ডোনাল্ড ট্রাম্প চলে যাননি। এমনকি কাছেও নয়।

ক্যালিফোর্নিয়ার গভর্নর গ্যাভিন নিউজম মঙ্গলবার রাতে তার বিজয় বক্তৃতায় বলেন, আমি প্রচারণার পথে অনেকবার এটা বলেছি, আমরা হয়তো ট্রাম্পকে পরাজিত করেছি, কিন্তু এই দেশে ট্রাম্পিজম মরবে না। এটা কোনো পক্ষপাতদুষ্ট বক্তব্য নয়। এটি একটি বাস্তবতা। ট্রাম্প ক) প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের কাছে ২০২০ সালের নির্বাচনে কখনোই পরাজয় স্বীকার করেননি এবং খ) বড় মিথ্যাকে জোর দিয়ে বলতে থাকেন যে, এই বিশ্বাসকে সমর্থন করার জন্য প্রকৃতপক্ষে কোনো প্রমাণ না থাকা সত্ত্বেও যে, নির্বাচনে ভোট একরকম ভোট চুরি হয়েছে। সম্প্রতি সোমবার রাতের মতো, ট্রাম্প ক্যালিফোর্নিয়া প্রত্যাহার সম্পর্কে সন্দেহ বপন করতে একই ব্লুপ্রিন্ট ব্যবহার করছিলেন।
ট্রাম্প তার সেভ আমেরিকা পিএসি থেকে পাঠানো এক বিবৃতিতে জিজ্ঞাসা করেছিলেন, "সত্যিই কি কেউ বিশ্বাস করেন যে, ক্যালিফোর্নিয়ায় নির্বাচনে কারচুপি হয়নি?" লক্ষ লক্ষ সাধারণ এবং লক্ষ লক্ষ মেইল-ইন ব্যালট যা আরেকটি বিশাল নির্বাচনী কেলেঙ্কারিতে পরিণত করবে, যা ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের কেলেঙ্কারির চেয়ে ভিন্ন, কিন্তু কম স্পষ্ট নয়!"
সুতরাং এটি একজন প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্টের মানসিক স্বাস্থ্যের উদ্বেগের গল্প নয়। বরং এটি মানসিক স্বাস্থ্যের উদ্বেগের বিষয়, যা নেতৃস্থানীয় কর্মকর্তারা এমন একজন ব্যক্তির বিষয়ে প্রকাশ করেছেন, যিনি বিনাপ্রশ্নে রিপাবলিকান পার্টির নেতা এবং বর্তমান ২০২৪-এর আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে মনোনীত প্রার্থী। যা আমাদের সকলেরই চিন্তা করা উচিত।



 

Show all comments
  • Md Monir Bhuiyan ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:৪৪ পিএম says : 0
    ট্রাম্পের মাথায় একটু সমস্যা আছে মনে হয়।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ট্রাম্প


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ