Inqilab Logo

বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৪ কার্তিক ১৪২৮, ১২ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

ড্রোন হামলায় নিহত আফগানের প্রশংসায় মার্কিন সহকর্মীরা, পেন্টাগনের দাবি নিয়ে সন্দেহ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৭:৪৫ পিএম | আপডেট : ৮:৪৬ পিএম, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১

গত মাসে মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত আফগান ব্যক্তিটি যুক্তরাষ্ট্রের একটি মানবিক সংগঠনের একজন উৎসাহী, সকলের কাছে প্রিয় এবং দীর্ঘদিনের কর্মচারী ছিলেন বলে তার মার্কিন সহকর্মীরা জানিয়েছেন। তাদের এই প্রশংসা পেন্টাগনের দাবির সম্পূর্ণ বিপরীত চিত্র তুলে ধরে যেখানে বলা হয়েছে, তিনি ইসলামিক স্টেট গ্রুপের জঙ্গি ছিলেন।

এই ধারণা জোরালো হচ্ছে যে, মার্কিন সামরিক বাহিনী কাবুলে গত ২৯ আগস্ট ভুল লোককে লক্ষ্য করে ড্রোন হামলা চালিয়ে থাকতে পারে। এর পরিণতি ছিল ধ্বংসাত্মক। ওই হামলায় তার পরিবারের সাতজন শিশু এবং দুইজন প্রাপ্তবয়স্ক নিহত হন। পেন্টাগন বলছে, তারা এই হামলার বিষয়ে আরও তদন্ত করছে। কিন্তু সেনা প্রত্যাহারে পর যুক্তরাষ্ট্রের জন্য আফগানিস্তানের মাটিতে এটি করার কোনো উপায় নেই, যা প্রমাণ সংগ্রহের ক্ষমতাকে মারাত্মকভাবে সীমিত করেছে।

পরিবারের হিসাব, অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসের দেখা সহকর্মীদের দলিল, এবং তার বাড়ির দৃশ্য - যেখানে জেমারাই আহমদির গাড়ি হেলফায়ার ক্ষেপণাস্ত্র দ্বারা ধ্বংস হওয়া - সবই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দাবির তীব্র বিরোধিতা করছে বলে মনে হয়। এটি স্পষ্ট হয়েছে যে, নিহতরা ছিলেন এমন একটি পরিবার, যারা আমেরিকানদের জন্য কাজ করেছিলেন এবং তালেবানদের অধীনে তাদের জীবনের শঙ্কায় আমেরিকায় ভিসা পাওয়ার চেষ্টা করছিলেন।

নিহতের পরিবারটি চায় যুক্তরাষ্ট্র তাদের বিষয়টি শুনুক এবং বাস্তব ঘটনাগুলো দেখুক। ‘আমরা শুধু চাই তারা এখানে আসুক। দেখুন তারা কি করেছে। আমাদের সাথে কথা বলুক। আমাদের প্রমাণ দিন,’ জেমারাইয়ের ছোট ভাই এমাল আহমদি মার্কিন সেনাবাহিনী সম্পর্কে বলেন। কান্নার কাছাকাছি, তিনি ফোনে তার ৩ বছর বয়সী মেয়ে মালিকার একটি ছবি দেখান। আরেকটি ছবিতে দেখা গেছে যে, বোমা হামলায় নিহত হওয়ার পর তার মেয়ের দগ্ধ দেহাবশেষ।

মঙ্গলবার, মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেন স্বীকার করেছেন যে, তিনি জানতেন না ড্রোন হামলায় টার্গেট করা ব্যক্তি আইএস অপারেটিভ নাকি সাহায্যকারী। সিনেট ফরেন রিলেশন কমিটির শুনানিতে তিনি বলেন, ‘আমি জানি না কারণ আমরা এটি পর্যালোচনা করছি।’

আফগানিস্তানে মার্কিন উপস্থিতির শেষ দিনগুলোতে এই হামলা চালানো হয়েছিল, কারণ আমেরিকান সেনারা কাবুলের বিমানবন্দরে প্রত্যাহার অভিযান চালাচ্ছিল। এর মাত্র কয়েক দিন আগে, বিমানবন্দরে আইএসের আত্মঘাতী বোমা হামলায় ১৬৯ আফগান এবং ১৩ মার্কিন সেনা সদস্য নিহত হয়েছিলেন। পেন্টাগন বলছে, তাদের ড্রোন হামলা বিমানবন্দরে আইএসের আরেকটি হামলা রোধ করেছে। যুক্তরাষ্ট্র বেসামরিক হতাহতের খবর স্বীকার করেছে এবং বলেছে যে সেগুলি দ্বিতীয় বিস্ফোরণের কারণে হতে পারে।

জেমেরাই ১৫ বছর ধরে ক্যালিফোর্নিয়া ভিত্তিক অলাভজনক সংস্থা নিউট্রিশন অ্যান্ড এডুকেশন ইন্টারন্যাশনালে কাজ করছিলেন। তারা আফগানিস্তানে অপুষ্টি মোকাবেলার লক্ষ্যে কাজ করেছেন। তার ভাই রোমালও সেখানে কাজ করেছেন। হামলার মাত্র কয়েক দিন আগে, জেমেরাই এবং রোমাল মার্কিন প্রতিষ্ঠানে কাজ করায় বিশেষ ভিসার জন্য মার্কিন দূতাবাসে আবেদন করেছিলেন। তার ভাই, ইমাল এবং নিহত ভাতিজা আহমদ নাসের হায়দারি, মার্কিন সেনাবাহিনীর সাথে কাজ করার কারণে বিশেষ ভিসার জন্য আবেদন করেছিলেন।

এমাল এপি -কে তাদের ভিসা আবেদনপত্র, সুপারিশপত্র এমনকি একটি বিশেষ পদক দেখিয়েছিলেন যা হায়দারি একটি বিশেষ মার্কিন প্রশিক্ষিত এলিট স্পেশাল ফোর্সে তার সেবার জন্য পেয়েছিলেন। মার্কিন-ভিত্তিক মাল্টি কান্ট্রি সিকিউরিটি সলিউশন গ্রুপ থেকে হায়দারির একটি চিঠিও ছিল, যেখানে তিনি ঠিকাদার হিসাবে কাজ করেছিলেন, তাকে ‘মার্কিন বিশেষ বাহিনীকে সর্বোত্তম বিশ্বস্ত সেবা প্রদানের প্রতিশ্রুতির একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ’ বলে অভিহিত করা হয়েছিল। ‘তিনি একজন দুর্দান্ত কর্মচারী ছিলেন,’ ফার্মের সভাপতি টিমোথি উইলিয়ামস, যিনি রেফারেন্স লেটার লিখেছিলেন, তিনি এপিকে বলেন, ‘যে ঘটনা ঘটেছে তার কারণে আমি এই বিশ্বাস পরিবর্তন করতে যাচ্ছি না। আমি আমার কর্মীদের পাশেই দাঁড়াব।’

এনইআই-তে জেমারাইয়ের সহকর্মীরা তাকে একজন মেধাবী কর্মী হিসেবে বর্ণনা করেছেন যিনি একজন হ্যান্ডম্যান থেকে দক্ষ ইঞ্জিনিয়ার এবং অপরিহার্য কর্মচারী পর্যন্ত হয়েছিলেন। গত বছর, যখন কোম্পানি করোনভাইরাস মহামারীর কারণে কর্মচারীদের পুরো বেতনে বেতন দিতে পারছিল না, তখন কর্মচারীদের অন্য কোথাও ভাল বেতনের কাজের জন্য তাদের পদ ছেড়ে দেয়ার সুযোগ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু আহমদী যেতে অস্বীকার করে বলেন, ‘আমি এনইআই-তে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত থাকব, যতক্ষণ না আমরা আমাদের লক্ষ্য অর্জন করি,’ কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা এবং সভাপতি স্টিভেন কোওন এপিকে বলেন।

তিনি আরও মহিলাদের নিয়োগ এবং মহিলাদের কর্মসূচি তৈরির জন্য কোম্পানির প্রচেষ্টাকে সর্বদা সমর্থন করেছিলেন। ফলে তার সহকর্মীরা বলেছিলেন যে তিনি যে কোনও ধরণের চরমপন্থার সাথে যুক্ত ছিলেন এই ধারণা তাদের কাছে অযৌক্তিক বলে মনে হয়। তার নারী সহকর্মী সোনিয়া বলেন, ‘আমরা তার সম্পর্কে যা শুনছি তা খুব বিরক্তিকর এবং অযৌক্তিক। কারণ তার লোকদের প্রতি তার এমন ভালবাসা ছিল।’ তিনি বলেন, ‘সে কীভাবে রাতারাতি বদলে যেতে পারে এবং তার নিজের লোকদের হত্যা করতে চাইতে পারে। এর একেবারেই কোন মানে হয় না।’ সূত্র: এপি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: আফগানিস্তান-যুক্তরাষ্ট্র


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ