Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১২ কার্তিক ১৪২৮, ২০ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

‘আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ’

বিভেদের খবর উড়িয়ে দিলেন তালেবান নেতৃবৃন্দ : মৃত্যুর খবর প্রত্যাখ্যান করে ভিডিও বার্তা বারাদারের

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০৫ এএম

গত সপ্তাহে অন্তর্র্বতীকালীন সরকার গঠনের পর থেকে তালেবানের মুখপাত্র জবিহুল্লাহ মুজাহিদ এবং হাক্কানি নেটওয়ার্কের সদস্য সহ তালেবানের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা গ্রæপের বিভিন্ন গোষ্ঠীর নেতৃত্বের মধ্যে বিভেদের খবর অস্বীকার করেছেন। এদিকে, কিছুদিন ধরে আফগানিস্তানের ভারপ্রাপ্ত উপপ্রধানমন্ত্রী মোল্লা আবদুল গনি বারাদারকে প্রকাশ্যে দেখা না যাওয়ায় তার মৃত্যুর গুজব ডালপালা মেলে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার এক ভিডিও সাক্ষাৎকারে হাজির হয়ে নিজের আহত হওয়া বা মৃত্যুর খবর অস্বীকার করেছেন বারাদার। এর আগে গত ৭ সেপ্টেম্বর তালেবানের মন্ত্রিসভার ঘোষণার পর এই দ্ব›েদ্বর খবর ছড়িয়ে পড়ে। দ্ব›েদ্বর জেরে সংঘর্ষে আফগানিস্তানের অন্তর্র্বতীকালীন সরকারের উপ-প্রধানমন্ত্রী ও তালেবানের রাজনৈতিক দফতরের প্রধান মোল্লা আবদুল গনি বারাদারের নিহত হওয়ার গুজব ছড়িয়েছিলো। পরে আবদুল গনি বারাদার এক অডিও বার্তায় এমন কোনো সংঘর্ষ ও তার নিহত হওয়ার কথা অস্বীকার করেন। পরে বুধবার এক টিভি সাক্ষাৎকারে কোনো প্রকার সংঘর্ষ ও মতবিরোধের কথা অস্বীকার করেন মোল্লা বারাদার। বুধবার তালেবানের এক সূত্রের বরাত দিয়ে ব্রিটেনভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসিতে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে জানানো হয়, ক্ষমতার অংশীদারিত্ব নিয়ে আবদুল গনি বারাদার ও শরণার্থী বিষয়ক মন্ত্রী খলিলুর রহমান হাক্কানির মধ্যে দ্ব›দ্ব চলছে। সরকারে ক‚টনীতিক ও যোদ্ধাদের মধ্যে কে প্রাধান্য পাবে, তা নিয়ে দুই নেতার মধ্যে দ্ব›েদ্বর খবর জানানো হয় বিবিসির প্রতিবেদনে। অন্তর্র্বতীকালীন সরকারের তথ্য উপমন্ত্রী ও তালেবানের মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদসহ বিভিন্ন নেতা এই খবরকে গুজব বলে অস্বীকার করেছেন।

অপরদিকে অন্তর্র্বতী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সিরাজউদ্দিন হাক্কানির ছোট ভাই আনাস হাক্কানি বুধবার এক বিবৃতিতে জানান, তালেবান নেতৃত্ব ঐক্যবদ্ধ রয়েছে। তিনি বলেন, ‘ইসলামি আমিরাত ইসলামি ও আফগানি মূল্যবোধের ভিত্তিতে ঐক্যবদ্ধ রয়েছে। আমাদের প্রিয় আফগানিস্তানে শান্তি, উন্নতি ও স্থিতিশীলতা নিয়ে আসতে আমরা সকলে ঐক্যবদ্ধ।’ ২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রে নাইন-ইলেভেনের সন্ত্রাসী হামলার জেরে তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডবিøউ বুশ হামলার জন্য আফগানিস্তানে আশ্রয়ে থাকা আলকায়েদা প্রধান ওসামা বিন লাদেনকে দায়ী করেন। ওই সময় আফগানিস্তানের ক্ষমতাসীন তালেবান সরকারের কাছে ওসামা বিন লাদেনকে মার্কিন প্রশাসনের হাতে তুলে দেয়ার দাবি জানান বুশ। তালেবান সরকার ওসামা বিন লাদেনকে তুলে দেয়ার পরিবর্তে যুক্তরাষ্ট্রে সন্ত্রাসী হামলার সাথে তার সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে মার্কিনিদের কাছে প্রমাণ চায়। প্রমাণ ছাড়া তারা ওসামা বিন লাদেনকে মার্কিন প্রশাসনের কাছে তুলে দিতে অস্বীকৃতি জানায়।

বুশ প্রশাসন ও তালেবানের মধ্যে বিরোধের জেরে ২০০১ সালের অক্টোবরে আফগানিস্তানে আগ্রাসন শুরু করে মার্কিন বাহিনী। অত্যাধুনিক সমরাস্ত্রসজ্জ্বিত মার্কিন সৈন্যদের হামলায় তালেবান সরকার পিছু হটতে বাধ্য হয়। তবে একটানা দুই দশক যুদ্ধ চলতে থাকে দেশটিতে। এরইমধ্যে আফগান যুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে ন্যাটো জোটের সদস্য দেশগুলোও যুক্ত হয়। মার্কিনিদের সমর্থনে নতুন প্রশাসন ও সরকার ব্যবস্থা গড়ে উঠে দেশটিতে। ২০১১ সালের ২ মে পাকিস্তানের অ্যাবোটাবাদে মার্কিন সৈন্যদের এক ঝটিকা অভিযানে নিহত হন ওসামা বিন লাদেন। ২০১৩ সালে অজ্ঞাতবাসে তালেবানের প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা মোহাম্মদ ওমরের মৃত্যু হয়। তা স্বত্তে¡ও তালেবান যোদ্ধারা আফগানিস্তানে মার্কিন নেতৃত্বাধীন বহুজাতিক বাহিনীর দখলদারিত্বের বিরুদ্ধে লড়াই অব্যাহত রাখে। দীর্ঘ দুই দশক আফগানিস্তানে মার্কিন নেতৃত্বের বহুজাতিক বাহিনীর দখলের পর ২০২০ সালের ফেব্রæয়ারিতে কাতারের দোহায় এক দ্বিপাক্ষিক চুক্তিতে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন বাহিনী প্রত্যাহার করতে সম্মত হয় যুক্তরাষ্ট্র। এর বিপরীতে আফগানিস্তানে শান্তি প্রতিষ্ঠায় অংশ নিতে তালেবান সম্মত হয়।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের ঘোষণা অনুসারে ৩১ আগস্ট আফগানিস্তান থেকে বহুজাতিক বাহিনীর সম্প‚র্ণ প্রত্যাহারের ডেডলাইন থাকলেও ৩০ আগস্ট সম্প‚র্ণ সৈন্য প্রত্যাহার সম্পন্ন হয়। মার্কিনিদের সাথে চুক্তি অনুসারে ক্ষমতাসীন থাকা মার্কিন সমর্থনপুষ্ট আফগান সরকারের সমঝোতার জন্য তালেবান চেষ্টা করলেও দুই পক্ষের মধ্যে কোনো সমঝোতা হয়নি। তালেবানের অভিযোগ, আশরাফ গনির নেতৃত্বাধীন আফগান সরকার দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠায় তাদের আহবানে সাড়া দেয়নি। এর পরিপ্রেক্ষিতে মে মাসে বহুজাতিক বাহিনীর প্রত্যাহারের মধ্যেই পুরো দেশের নিয়ন্ত্রণে অভিযান চালানো শুরু করে তালেবান। ৬ আগস্ট প্রথম প্রাদেশিক রাজধানী হিসেবে দক্ষিণাঞ্চলীয় নিমরোজ প্রদেশের রাজধানী যারানজ দখল করে তারা। যারানজ নিয়ন্ত্রণে নেয়ার ১০ দিনের মাথায় কেন্দ্রীয় রাজধানী কাবুলে পৌঁছে যায় তালেবান যোদ্ধারা। তালেবানের অগ্রসরে আশরাফ গনির কাবুল ছেড়ে পালিয়ে যাওয়ার জেরে আফগান প্রশাসন ভেঙে পড়ার পরিপ্রেক্ষিতে ১৫ আগস্ট কাবুলে প্রবেশ করে তালেবান যোদ্ধারা।
এদিকে, তালেবানের সহ-প্রতিষ্ঠাতা বারাদার বেশ কয়েকদিন ধরেই লোকচক্ষুর আড়ালে ছিলেন বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি। প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে বারাদারের সঙ্গে প্রভাবশালী হাক্কানি নেটওয়ার্কের অনুগতদের মধ্যে ঝগড়া হয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছিল আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম। সাক্ষাৎকারে বারাদার তালেবানের ভেতর অন্তর্দ্ব›েদ্বর খবর উড়িয়ে দিয়েছেন। ‘না, এটা সত্য নয়। আমি ঠিক আছি, সুস্থ আছি। আমি কাবুলের বাইরে ছিলাম, ভুয়া খবর অস্বীকার করতে ইন্টারনেটে ঢোকারও উপায় ছিল না,’ আহত হয়েছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে বলেন নতুন প্রশাসনের ভারপ্রাপ্ত এ উপপ্রধানমন্ত্রী।

দোহায় অবস্থিত তালেবানের রাজনৈতিক কার্যালয় বারাদারের সাক্ষাৎকারের ছোট এই ভিডিও ক্লিপটি টুইটারে প্রকাশ করে। ভিডিওতে তালেবানের সহ-প্রতিষ্ঠাতাকে সোফায় রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের হয়ে যিনি সাক্ষাৎকার নিচ্ছিলেন তার পাশে বসে থাকতে এবং কাগজ থেকে কিছু পড়তে দেখা গেছে। ‘আল্লাহকে ধন্যবাদ। আমাদের নিজেদের মধ্যে সম্পর্ক ভালো, আমরা একে অপরকে শ্রদ্ধা করি। আমাদের মধ্যে সম্পর্ক পরিবারের চেয়েও ভালো,’ অন্তর্দ্ব›েদ্বর খবর অস্বীকার করে বলেন বারাদার। তালেবানের এক কর্মকর্তা সম্প্রতি বিবিসিকে জানান, মোল্লা বারাদার ও শরণার্থী বিষয়ক মন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া, হাক্কানি নেটওয়ার্কের প্রভাবশালী নেতা খলিল উর-রহমান হাক্কানির মধ্যে তীব্র বাদানুবাদ হয়েছে, ওই সময় কাছেই তাদের সমর্থকদের মধ্যেও ঝগড়া শুরু হয়ে যায়। কাতারভিত্তিক একজন ঊর্ধ্বতন তালেবান সদস্য এবং ঝগড়ার ঘটনায় জড়িতদের সঙ্গে সম্পর্ক থাকা এক ব্যক্তিও ওই তর্কাতর্কির কথা বিবিসিকে নিশ্চিত করেন। তারা জানান, অন্তর্র্বতী সরকারের কাঠামো নিয়ে অসন্তুষ্ট ছিলেন নতুন উপপ্রধানমন্ত্রী বারাদার আর এ নিয়েই বিতর্ক শুরু হয়।

বলা হচ্ছে, আফগানিস্তানে জয়ের কৃতিত্ব তালেবানের কোন অংশ পাবে সেই মতবিরোধ থেকেই দ্ব›েদ্বর সূত্রপাত। বারাদারের বিশ্বাস এই কৃতিত্ব ক‚টনীতিরই পাওয়া উচিত যার নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি; অপরদিকে হাক্কানি গোষ্ঠীর সদস্য ও তাদের সমর্থকদের বক্তব্য, লড়াইয়ের মাধ্যমেই এই জয় এসেছে। বারাদার হচ্ছেন প্রথম তালেবান নেতা যিনি যুক্তরাষ্ট্রের একজন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে সরাসরি কথা বলেছেন। ২০২০ সালে ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে টেলিফোনে আলাপ করেন তিনি। এর আগে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের দোহা চুক্তিতে তালেবানের হয়ে তিনিই সই করেছিলেন। আর শক্তিশালী হাক্কানি নেটওয়ার্ক সাম্প্রতিক বছরগুলোতে আফগান বাহিনী ও তাদের পশ্চিমা মিত্রদের ওপর চালানো সবচেয়ে ভয়াবহ কিছু হামলার সঙ্গে জড়িত ছিল। এই গোষ্ঠীটিকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে তালিকাভুক্ত করেছে যুক্তরাষ্ট্র। হাক্কানি নেটওয়ার্কের নেতা সিরাজুদ্দিন হাক্কানি নতুন সরকারে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হয়েছেন। সূত্র : ডেইলি মেইল, ডন।

 



 

Show all comments
  • নূরুজ্জামান নূর ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৬:২৩ এএম says : 0
    আলহামদুলিল্লাহ, আপনারা ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে যান আল্লাহর সাহায্য থাকলে কেউ কিছু করতে পারবে না
    Total Reply(0) Reply
  • গাজী ফজলুল করিম ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৬:২৪ এএম says : 0
    তালেবানের জন্য শুভ কামনা। ষড়যন্ত্রকারীরা নিপাত যাক, তালেবান মুক্তি পাক।
    Total Reply(0) Reply
  • Sajib Khan ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৬:২০ এএম says : 0
    তালেবানকে নিয়ে ভারত যেভাবে অপপ্রচারে লিপ্ত আছে তাতে খুব সতর্ক থাকতে হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • নোমান মাহমুদ ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৬:২৩ এএম says : 0
    ঐক্যই মুসলমানের বড় শক্তি। ঐক্য ফাটল ধরানোর চেষ্টা চলছে নানা ভাবে।
    Total Reply(0) Reply
  • মোহাম্মদ দলিলুর রহমান ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:১৭ এএম says : 0
    শয়তান ভারতের চালাকি এই সব ভারত চাইতেছে একটি ধন্দ লাগানোর জন্য। এত এব তালেবানদের সাবধান থাকতে হবে। সবাই মিলে মিশে থাকতে হবে। আজকাল ইহুদিবাদরা দেখতেছে মুসলমানদের ইমান শক্ত তাই একটি ইসু তৈরি করে একেক জনকে একেক হাওয়া দিয়ে তোমাকে রাষ্ট্র প্রধান অথবা উজির নাজিরের পদ দিয়ে দিব তুমি সরে যাও ।এই দরনের হাওয়া দিয়ে আবার বরবাদ করতে চাইবে।তবে সাবধানে থাকতে হব তালেবানদের।
    Total Reply(0) Reply
  • MD. ZIAUL HOQUE ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৭:৫৭ এএম says : 0
    তারা সকলে সঙ্গব্ধ।
    Total Reply(0) Reply
  • Nurullah ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৮:৪৩ পিএম says : 0
    আলহামদুলিল্লাহ, আপনারা ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে যান আল্লাহর সাহায্য থাকলে কেউ কিছু করতে পারবে না
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: তালেবান


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ