Inqilab Logo

বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৪ কার্তিক ১৪২৮, ১২ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

শ্রমবাজারের প্রতিযোগিতায় বড় হুমকি কর্মী সঙ্কট

যুক্তরাজ্যের ফার্মগুলোর সতর্কতা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০০ এএম

ব্রিটিশ ব্যবসায়ীরা বলেছে যে, শ্রম বাজারের প্রতিযোগিতার জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি চলমান কর্মী সঙ্কটের প্রভাব। কনফেডারেশন অফ ব্রিটিশ ইন্ডাস্ট্রি (সিবিআই) পরিচালিত সা¤প্রতিক জরিপে, যুক্তরাজ্যের ৭৬ শতাংশ প্রতিষ্ঠান বলেছে যে, শ্রমের অ্যাক্সেসই মূল কারণ যা মানুষকে নিয়োগের জায়গা হিসাবে যুক্তরাজ্যের প্রতিযোগিতাকে হুমকির মুখে ফেলে, বর্তমানে এবং পাঁচ বছরে। ২০১৬ সালে প্রথম প্রশ্নটি মনে আসার পর থেকে এটি ছিল সর্বোচ্চ অনুপাত।
এর পেছনে, সিবিআই এই পদক্ষেপকে ‘অত্যাবশ্যক’ আখ্যা দিয়ে তাৎক্ষণিক মেয়াদে অভাবের ব্যবধান মেটাতে ব্যবসার জন্য আরো সহায়তার জন্য যুক্তরাজ্য সরকারের প্রতি আহŸান জানিয়েছে। তবে, গবেষণায় প্রকাশ পেয়েছে যে, যুক্তরাজ্যের চাকরির দৃষ্টিভঙ্গি কিছুটা শক্তিশালী হচ্ছে, ৫০ শতাংশ সংস্থার নিট ভারসাম্য আগামী বছরের মধ্যে তাদের কর্মশক্তি বৃদ্ধির প্রত্যাশা করছে।
১৬ থেকে ৩১ আগস্ট ২০২১ -এর মধ্যে জরিপে অংশগ্রহণ করা ৪২২ উত্তরদাতার মধ্যে ৮৭ শতাংশ বলেছেন, তারা প্রায় অর্ধেক নিয়োগের মাত্রা বাড়ার প্রত্যাশায় সক্রিয়ভাবে এ বছর স্থায়ী ভ‚মিকা নেওয়ার পরিকল্পনা করছেন। বিগত বছরের তুলনায় এ ধরনের ভ‚মিকার জন্য মাত্র ৯% নিম্নস্তরের নিয়োগ প্রত্যাশিত।
তথ্যে আরো দেখা গেছে যে, ১০টি কোম্পানির মধ্যে প্রায় সাতটি (৬৮%) মুদ্রাস্ফীতির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ বা তার ওপরে বেতন বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে - ২০০৯ সালে প্রথম প্রশ্নটি জিজ্ঞাসিত হওয়ার পর থেকে এটি সর্বোচ্চ বৃদ্ধি পেয়েছে। যুক্তরাজ্যে মুদ্রাস্ফীতি জুলাই মাসে ২% থেকে বেড়ে আগস্টে ৩.২%-এ পৌঁছেছে, যা ২০১২ সালের মার্চের পর সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে।
এদিকে, পাঁচটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে প্রায় তিনজন (৫৯ শতাংশ) বলেছে যে, তারা অফিসে ফিরে আসার জন্য কর্মীদের আস্থা অর্জনে কোভিড-১৯ নিরাপত্তা ব্যবস্থা রেখেছে। কর্মচারীরা ফিরে আসার সাথে সাথে ব্যবসাগুলো কাজের ধরনে পরিবর্তন প্রত্যাশা করছে।
প্রাক-মহামারী কাজের সাথে তুলনা করে, ইউকে-র তিন-চতুর্থাংশ কোম্পানি হাইব্রিড-এর ব্যবহার বাড়বে বলে আশা করে, ৪০ শতাংশ ফুল টাইম রিমোট ওয়ার্কিং বাড়ার আশা করে এবং ৫৫ শতাংশ তাদের প্রতিষ্ঠানে অনানুষ্ঠানিক নমনীয়তা বাড়ার আশা করে। কর্মীদের অভাবের পাশাপাশি, ব্যবসার জন্য উদ্বেগের অন্যান্য মূল ক্ষেত্রগুলো ছিল দক্ষতার অ্যাক্সেস এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন জুড়ে যুক্তরাজ্যের কর্মীদের স্থানান্তর করার ক্ষমতা।
সিবিআইয়ের প্রধান নীতি পরিচালক ম্যাথিউ ফেল বলেন, ‘একটি চ্যালেঞ্জিং বছরের পর চাকরির বাজার পুনরায় ফিরে আসা উৎসাহজনক। চাহিদা ফিরে আসার সাথে সাথে ছোট এবং বড় উভয় ব্যবসা তাদের নিয়োগ পরিকল্পনা বাস্তবায়িত করেছে। কিন্তু যেহেতু যুক্তরাজ্যের শ্রমবাজার একটি সঙ্কট থেকে বেরিয়ে এসেছে, এটি অন্যের মধ্যে ডুবে গেছে, অভাব বৃদ্ধিকে আটকে রেখেছে’।
‘যদিও আরো বিনিয়োগ এবং প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সংস্থাগুলো শ্রমিক ঘাটতি মেটাতে এগিয়ে চলেছে, এসব পদক্ষেপ সময় নেয় এবং সংস্থাগুলো এখন যে চাপের মুখোমুখি হচ্ছে তা হ্রাস করার জন্য খুব কম কাজ করে’। সূত্র : ইয়াহু বিজনেস।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ব্রিটিশ


আরও
আরও পড়ুন
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ