Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১২ কার্তিক ১৪২৮, ২০ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

আসামে মুসলিম ব্যক্তির লাশের ওপর নির্মম অত্যাচার

জনগণের সাথে রাহুল গান্ধীর একাত্মতা প্রকাশ

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৪:৫৮ পিএম | আপডেট : ৮:৫২ পিএম, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১

সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়ার পর টুইটারে আক্রমণের মুখে পড়েছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। যাতে দেখা গিয়েছিল যে, আসাম রাজ্যের স্থানীয়দের উপর পুলিশ গুলি চালাচ্ছে, তার আগে একজন ক্যামেরাপারসন একজনকে হামলার ফলে মাটিতে নিঃশব্দে পড়ে থাকে এবং লাশের উপর একজন তার উপর প্রচন্ড আঘাত করেছিল।-ডন

ভারতের প্রধান বিরোধী দলের নেতা রাহুল গান্ধী আসামের জনগণের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে বলেছেন, রাজ্যটি "রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতার আগুনে জ্বলছে"। তিনি আরও বলেন, ভারতের কোনো শিশুও এটা প্রত্যাশা করে না। পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের এমএনএ আন্দলিব আব্বাস টুইট করেছেন, হিন্দুত্ববাদী শাসন ভারতে মুসলমানদের প্রতি ঘৃণা, অসহিষ্ণুতা, গোঁড়ামি এবং তিক্ততায় অসুস্থ হয়ে পড়েছে। এদিকে তথ্যমন্ত্রী ফাওয়াদ চৌধুরী এই ঘটনাকে ভারত অধিকৃত কাশ্মীরের নৃশংসতার সঙ্গে তুলনা করেছেন।

ভিডিওতে দেখা যায়, সশস্ত্র পুলিশ সদস্যরা অনেক গাছের আড়ালে অদৃশ্য লক্ষ্যে নির্বিচারে গুলি চালাচ্ছে। যখন একজন লোক তাদের দিকে ছুটে আসে, তারা তাকে ঘিরে ধরে, রড এবং লাঠি দিয়ে তাকে আক্রমণ করে। দৃশ্যত বন্দুকের গুলির কারণে লোকটি মাটিতে লুটিয়ে পড়লে বা নিথর অবস্থায় পড়ে থাকলে একজন ক্যামেরাপারসন তার দিকে ছুটে আসে এবং বারবার তাকে লাথি মেরে তার উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে আঘাত করে।

ভারতীয় প্রকাশনা স্ক্রল.ইন -এর মতে, বৃহস্পতিবার আসামের দারাং জেলার সিপাজার এলাকায় ঘটে যাওয়া এই ঘটনায় কমপক্ষে দু'জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। যেখানে অধিকাংশ বাসিন্দা বাংলা বংশোদ্ভূত মুসলিম। গতকাল বৃহস্পতিবার উচ্ছেদ অভিযান চলাকালীন এমন অমানবিক দৃশ্য দেখা যায়। হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে যে, ভিডিওতে দেখা ক্যামেরাপারসনকে জেলা প্রশাসন নিযুক্ত করেছিল এবং পুলিশ তাকে বিজয় শঙ্কর বানিয়া বলে চিহ্নিত করে।

পরে আসামের ডিজিপি টুইট করেন যে, ক্যামেরাপারসনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

দারোলং পুলিশ সুপার সুশান্ত বিশ্ব সরমার উদ্ধৃতি দিয়ে স্ক্রল.ইন জানিয়েছে যে, এই ঘটনায় নয়জন পুলিশও আহত হয়েছে। এই ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের নাম মুসলিম নাম বলে চিহ্নিত করা হয়েছে। যাইহোক, তাৎক্ষণিকভাবে এটা স্পষ্ট নয় যে, ভিডিওতে হামলা করা লোকটি তাদের মধ্যে ছিল কিনা। এতে যোগ করা হয়েছে যে, আসাম সরকার হত্যাকাণ্ড এবং ঘটনার প্রেক্ষাপটে গৌহাটি হাইকোর্টের একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারককে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে।

হিন্দুস্তান টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আসামের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব সরমা উচ্ছেদ অভিযানের কথা উল্লেখ করে সাংবাদিকদের বলেন যে, "পুলিশ তাদের দায়িত্ব পালন করছে। আমার তথ্য অনুযায়ী, লোকেরা পুলিশকে বর্শা এবং অন্যান্য জিনিস দিয়ে আক্রমণ করেছে। স্ক্রোল.ইন -এর মতে, সরকার কয়েক সপ্তাহ ধরে এলাকায় উচ্ছেদ অভিযান চালাচ্ছিল এবং এই প্রক্রিয়ায় বাস্তুচ্যুতদের অধিকাংশই বাঙালি বংশোদ্ভূত মুসলমানও ছিল।

সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ডের পর ঘটনার ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপকভাবে শেয়ার করার পর টুইটারে রাজনীতিবিদ, সাংবাদিক এবং দলীয় কর্মীদের তীব্র সমালোচনার ঝড় ওঠে। সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে ভিডিওটি শেয়ার করার সময় পাকিস্তানের সমুদ্র বিষয়ক মন্ত্রী আলি জাইদি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে তার দেশকে "বর্বর রাজ্যে" পরিণত করার জন্য তিরস্কার করেন।

তিনি টুইট করেছিলেন, "অবিশ্বাস্য ভারত? সত্যিই? মোদী হিটলারের অধীনে এটি একটি সস্তা স্লোগান ছাড়া আর কিছুই নয়। তিনি (মোদী) এটিকে 'বর্বর ভারত'হিসেবে পরিণত করেছেন। এই ভিডিওটি স্পষ্টতই আসামের, যেখানে নিরীহ গ্রামবাসীদের ঠাণ্ডা মাথায় গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল! দেরী হওয়ার আগেই বিশ্বকে জেগে উঠতে হবে!"



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভারত


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ