Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৩ কার্তিক ১৪২৮, ১১ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

জাতিসংঘে কথা বলতে পারবেন না তালেবান প্রতিনিধি

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০১ এএম

এটা প্রায় নিশ্চিত যে, আফগানিস্তানের তালেবান শাসকরা এ বছর জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বিশ্বনেতাদের সভায় কথা বলতে পারবে না। তালেবানরা আফগানিস্তানের প্রাক্তন সরকারের রাষ্ট্রদূতের শংসাপত্রকে চ্যালেঞ্জ করেছিল, যাদের তারা ১৫ আগস্ট ক্ষমতাচ্যুত করে এবং জাতিসঙ্ঘের উচ্চস্তরে সাধারণ বিতর্কে তারা দেশের প্রতিনিধিত্ব করতে চেয়েছিল। এটি গত মঙ্গলবার শুরু হয়ে আগামী সোমবার শেষ হবে। এদিন বক্তব্য রাখবেন আফগানিস্তানের প্রতিনিধি।

জাতিসংঘের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক বলেছেন, শুক্রবার পর্যন্ত আফগানিস্তানের বর্তমানে স্বীকৃত জাতিসংঘের রাষ্ট্রদূত গোলাম ইসাকজাই, যিনি সাবেক প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনির বর্তমান ক্ষমতাচ্যুত সরকারের প্রতিনিধিত্ব করেন, তিনি দেশের পক্ষে কথা বলার তালিকায় রয়েছেন।
মূল কারণ হল, সাধারণ পরিষদ কমিটি যা শংসাপত্রের চ্যালেঞ্জগুল্ েনিয়ে সিদ্ধান্ত নেয় তা পূরণ হয়নি এবং সপ্তাহান্তে বৈঠক হওয়ার সম্ভাবনা খুব কম। মুখপাত্র মনিকা গ্রেলে বুধবার বলেন, নয় সদস্যের কমিটি সাধারণত নভেম্বরে বৈঠক করে এবং ‘যথাসময়ে’ একটি রায় দেবে।

গত মাসে মার্কিন ও ন্যাটো বাহিনীকে সরিয়ে আফগানিস্তান দখল কর তালেবানরা যুক্তি দেয় যে, তারা এখন দায়িত্বে আছে এবং রাষ্ট্রদূত নিয়োগের অধিকার তাদের আছে। জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসকে লেখা একটি চিঠিতে তালেবানের নবনিযুক্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী আমির খান মুত্তাকি বলেছেন, ১৫ আগস্ট আশরাফ গনিকে ‘ক্ষমতাচ্যুত’ করা হয়েছে এবং সারা বিশ্বের দেশগুলো তাকে আর প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বীকৃতি দেয় না।
অতএব, মুত্তাকি বলেন, ইসাকজাই আর আফগানিস্তানের প্রতিনিধিত্ব করেন না এবং তালেবান জাতিসংঘের নতুন স্থায়ী প্রতিনিধি মোহাম্মদ সুহেল শাহীনকে মনোনীত করছে। কাতারে শান্তি আলোচনার সময় তিনি তালেবানের মুখপাত্র ছিলেন।

শাহিন বুধবার অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসকে বলেন, ‘সরকারের স্বীকৃতির জন্য আমাদের প্রয়োজনীয় সমস্ত প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। সুতরাং আমরা আশা করি, জাতিসংঘ একটি নিরপেক্ষ বিশ্ব সংস্থা হিসেবে আফগানিস্তানের বর্তমান সরকারকে স্বীকৃতি দেবে’।
১৯৯৬ থেকে ২০০১ পর্যন্ত তালিবান-১ শাসনামলে জাতিসংঘ তাদের সরকারকে স্বীকৃতি দিতে অস্বীকার করেছিল এবং তার পরিবর্তে আফগানিস্তানের আসনটি প্রেসিডেন্ট বুরহানউদ্দিন রাব্বানীর আগের যুদ্ধবাজ শাসিত সরকারকে দিয়েছিল, যিনি ২০১১ সালে একটি আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত হন।

তালেবান বলেছে যে, তারা যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটিকে পুনর্গঠনে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি এবং আর্থিক সাহায্য চায়। কিন্তু নতুন তালেবান সরকারের গঠন জাতিসংঘের জন্য একটি দ্বিধা তৈরি করেছে। মুত্তাকিসহ বেশ কিছু অন্তর্বর্তীকালীন মন্ত্রী জাতিসংঘের তথাকথিত আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসী এবং সন্ত্রাসবাদের অর্থদাতাদের কালো তালিকায় রয়েছেন।
শংসাপত্র কমিটির সদস্যরা আরো অধিকতর অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকারের জন্য চাপ প্রয়োগের জন্য তালেবান স্বীকৃতি ব্যবহার করতে পারে, বিশেষ করে যেসব মেয়েদের তাদের পূর্ববর্তী শাসনকালে স্কুলে যেতে বাধা দেওয়া হয়েছিল এবং যেসব মহিলা কাজ করতে পারেনি তাদের জন্য।

কমিটির সদস্যরা হল যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, চীন, বাহামা, ভুটান, চিলি, নামিবিয়া, সিয়েরা লিওন এবং সুইডেন।
মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের এক কর্মকর্তা এ সপ্তাহের শুরুতে বলেছিলেন যে, এ কমিটি ‘কিছু সময় নেবে’। তাই মনে হচ্ছে তালেবানদের অপেক্ষা করতে হবে এবং ইসাকজাই এমন একটি দেশের কথা বলবেন যেখানে তার প্রতিনিধিত্ব করা সরকার তার সেনাবাহিনীকে যুদ্ধ না করেই পালিয়ে গেছে। সূত্র : এপি।



 

Show all comments
  • md. imran mia ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৮:৩৫ এএম says : 0
    যে সংঘ মানবতার পক্ষে না গিয়ে ইহুদি নাছারাদের সার্থ রক্ষা করে সেখানে না যাওয়াই শ্রেয়।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: জাতিসংঘ


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ