Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১২ কার্তিক ১৪২৮, ২০ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

পাঠ্য বইয়ে এত ভুল থাকা দুর্ভাগ্যজনক

ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণীর ‘বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়’ হাইকোর্টে এনসিটিবি’র চেয়ারম্যানকে তলব

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০২ এএম

ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণী পর্যন্ত একই বিষয়ের একটি পাঠ্য বই ভুলে ভরা। বইটি হচ্ছে ‘বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়’। আর পাঠ্য বইয়ে এত ভুল থাকা দুর্ভাগ্যজনক বলে মন্তব্য করেছেন হাইকোর্ট। গতকাল রোববার বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম এবং বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত ভার্চুয়াল ডিভিশন বেঞ্চ এ প্রশ্ন তোলেন।

হাইকোর্ট মহান মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের পাঠ্য বইয়ে মুদ্রিত ভুলের ব্যাখ্যা দিতে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের (এনসিটিবি) চেয়ারম্যানকে তলব করেন। আগামী ১০ নভেম্বর তাকে সশরীরে হাজির হতে বলা হয়েছে।

আদালত উপরোক্ত মন্তব্যের পাশাপাশি ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের এক শিক্ষার্থীর অভিভাবকের করা রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে রুলসহ এনসিটিবি চেয়ারম্যানকে তলব করেন। রুলে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের পাঠ্য বইতে থাকা ভুল সংশোধনে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না, তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট।

চার সপ্তাহের মধ্যে শিক্ষা সচিব, ন্যাশনাল কারিকুলাম অ্যান্ড টেক্সটবুক বোর্ডের চেয়ারম্যান, সদস্য (কারিকুলাম), সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের জবাব দিতে বলা হয়েছে। আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট আলী মুস্তফা খান। সরকারপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল বাগমার।
রিটে বলা হয়, সপ্তম শ্রেণীর বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় বইয়ে ১০ নম্বর পৃষ্ঠায় উল্লেখ করা হয়েছে-১৯৭০ সালের ১৭ ডিসেম্বর পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। “এই নির্বাচন ছিল শুধু পূর্ব পাকিস্তানের।” কিন্তু প্রকৃতপক্ষে পাকিস্তানের সব প্রদেশে প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন হয়েছিল।

৬ষ্ঠ শ্রেণীর বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় বইয়ে শিরোনাম-মুক্তিযুদ্ধের পটভূমি : ৩ নম্বর পৃষ্ঠায় লেখা হয়েছে, ‘‘এ সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো এক সাহসী, ত্যাগী ও দুরদর্শী নেতার ‘আর্বিভাব’ হয়।’’ অথচ প্রকৃত সত্য এই যে, বঙ্গবন্ধু হঠাৎ কোনো ‘আর্বিভূত’ নেতা নন। তিনি তিলে তিলে বাঙালি জাতির নেতা হয়ে উঠেছেন।
অষ্টম শ্রেণীর ‘বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়’ বইয়ের ১৩ নম্বর পৃষ্ঠায় ‘মাইল’ এর স্থলে ‘কিলোমিটার’ হবে। নবম-দশম শ্রেণীর বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় বইয়ের ২ থেকে ৯ নম্বর পৃষ্ঠা বিভিন্ন জায়গায় “শেখ মুজিব” লেখা হয়েছে। অথচ বর্তমানে সব ক্ষেত্রে “বঙ্গবন্ধু” লিখতে হবে। ২১ নম্বর পৃষ্ঠায় ‘মুজিবনগর সরকারের রাষ্ট্রপতি’ এর স্থলে ‘প্রজাতন্ত্রের রাষ্ট্রপতি’ হবে। ২৯ নম্বর পৃষ্ঠায় ‘প্রেসিডেন্ট ভবন’ এর স্থলে ‘বঙ্গভবন’ হবে।



 

Show all comments
  • M Abu Tariq ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:৪২ এএম says : 0
    এ ছাড়াও প্রত্যেক বিষয়ের ওপর নজর দেওয়ার দরকার। রাষ্ট্র ও নৈতিকতার ও বিভ্রান্ত বক্তব্য প্রকাশ ও হচ্ছে। আবার ধর্ম শিক্ষার ও বিভ্রান্ত বক্তব্য প্রকাশ হয।
    Total Reply(0) Reply
  • mozibur binkalam ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৫:২১ এএম says : 0
    যার যার দায়িত্ব নিষ্ঠার সাথে পালন করলে এমন হওয়ার কথা নয়।সব দোষতো আর বি এন পি জামায়েতের ঘাড়ে চাপানো যায় না।
    Total Reply(0) Reply
  • Abdur Amja ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৫:৪৯ এএম says : 0
    ভুল লেখাপড়া না শিকলে গাধা কিভাবে হবে । আমাদের আগামীতে গাধা দরকার
    Total Reply(0) Reply
  • Mahmudul Imran ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ৫:৫০ এএম says : 0
    এনসিটিবি ত দাদারা চালায়, ভুল হওয়ার কথা না!
    Total Reply(0) Reply
  • জুয়েল ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১:০৪ পিএম says : 0
    ভবিথ্যতে এই বিষয়টি নিয়ে সংশ্লিষ্টদের আরও বেশি সতর্ক থাকতে হবে।
    Total Reply(0) Reply
  • মোঃ আকতার হোসেন মীর ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ২:০৩ পিএম says : 0
    ভূলতো হবেই । যারা শুদ্ধ লেখতে জানে তাদেরকে লেখতে না দিয়ে দেওয়া হচ্ছে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীদের হাতে । এইসব ব্যবসায়ীরা স্কুল জীবনে লেখা- পড়া করেছে নকল করে আর কাজ পাইতেছে ঘুষ দিয়ে । যে সব কম'কতা' গন ওনাদেরকে কাজ দিচ্ছেন তাদের অবস্থা ব্যবসায়ীদের চেয়ে বেশি খারাপ ।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাঠ্য বই
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ