Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার , ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ১৭ রবিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

জনতার মুখোমুখি অনুষ্ঠানে সাঈদ খোকন পয়লা নভেম্বর ২ নম্বর ওয়ার্ডকে মাদকমুক্ত ঘোষণা করা হবে

প্রকাশের সময় : ১০ অক্টোবর, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ২ নম্বর ওয়ার্ডকে আগামী ১ নভেম্বর মাদকমুক্ত এলাকা হিসেবে ঘোষণা করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন। একই সঙ্গে চলতি অর্থবছরে ডিএসসিসি এলাকায় ৩৭ হাজার এলইডি লাইট স্থাপন করা হবে বলেও ঘোষণা দেন তিনি। গতকাল রোববার দুপুরে খিলগাঁওয়ে গোড়ান শেখ রাসেল ঈদগাহ ময়দান ও খেলার মাঠে আয়োজিত জনতার মুখোমুখি জনপ্রতিনিধি অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।
খিলগাঁওয়ের দক্ষিণ গোড়ান, উত্তর গোড়ান, পূর্ব গোড়ান, নবাবী মোড়, দক্ষিণ বনশ্রী, নবাবী মোড়, হাওয়াই গলি, সিদ্দিক বাজার, শান্তিপুর, আদর্শবাগ, ৮ ও ১০ নম্বর রোড নিয়ে ডিএসসিসির ২ নম্বর ওয়ার্ড গঠিত।
স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাবেক ছাত্রনেতা আনিসুর রহমান সরকার আনিসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ডিএসসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মোহাম্মদ বিলাল, প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শেখ সালাহউদ্দিন, প্রধান বর্জ্য ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা কমোডর এম কে বখতিয়ার, ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাকসুদ হোসেন মহসীন, বিএম সিরাজুল ইসলাম, সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ফাতেমা আক্তার ডলি, ডিএমপির উপ-কমিশনার (ট্রাফিক) পলি খানম, মতিঝিল জোনের এসি সাইফুল ইসলাম, খিলগাঁও থানার ওসি মাইনুল ইসলাম, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক রুবেল প্রমুখ।
গোড়ান ১০ নম্বর রোডের বাসিন্দা মোহাম্মদ মোস্তফার এক প্রশ্নের জবাবে সাঈদ খোকন বলেন, আগামী পয়লা নভেম্বরের মধ্যে আমরা এই ওয়ার্ডকে (২ নং গোড়ান) মাদকমুক্ত একটি মডেল ওয়ার্ড হিসেবে দেখতে চাই। এর জন্য যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এ সময় পুলিশের সহকারী কমিশনার সাইফুর রহমান বলেন, শহর মাদকমুক্ত রাখতে পুলিশ সবসময় চেষ্টা করে যাচ্ছে। আগামী দিনেও বিশেষ করে এই এলাকা সম্পূর্ণ মাদকমুক্ত করতে পুলিশ কাজ করে যাবে।
এরপর খিলগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাঈনুল ইসলাম বলেন, মাদকমুক্ত এলাকা গড়তে হলে প্রত্যেক মানুষকে পুলিশের ভূমিকা পালন করতে হবে।
এলাকার কয়েকটি ফার্মেসি থেকে স্থানীয় নাছিমা আখতারের স্বামী মাদক কিনে সেবন করেন, এসব ফার্সেসির বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেয়া হবে জানতে চান তিনি।
এ সময় মেয়র ওই সব ফার্মেসির বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর আশ্বাস দিয়ে পুলিশ কর্মকর্তাদের বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখার আহŸান জানান।
সিদ্দিক বাজারের এক ব্যক্তির প্রশ্নের জবাবে মেয়র বলেন, ওই এলাকায় গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের একটি খালি জায়গা রয়েছে, সেটা পাওয়া গেলে কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ করে দেয়া হবে। এছাড়া ৮ নম্বর রোডের বাসিন্দা আশরাফ পাটোয়ারী এলাকায় একটি কবরস্থান তৈরি করে দেয়ার দাবি জানালে মেয়র বলেন, এলাকাবাসী জমি দিলে কবরস্থান নির্মাণ করে দেয়া হবে।
হাওয়াই গলিতে ড্রেনের পানিতে পানিবদ্ধতা সৃষ্টির কথা জানালে সাঈদ খোকন আগামী ৪৫ দিনের মধ্যে কালভার্ট নির্মাণ করা হবে আশ্বাস দেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ