Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১০ কার্তিক ১৪২৮, ১৮ রবিউল আউয়াল সফর ১৪৪৩ হিজরী

লাখ লাখ অভিবাসী শিশু ইউরোপে নিখোঁজ

দায়িত্বশীলরা তাদের জন্য কিছুই করে না

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১২:০০ এএম

মানবাধিকারের কথা বলা হলে পশ্চিমা দেশগুলো তৃতীয় বিশ্বের দারিদ্র্যপীড়িত ও স্বল্পোন্নত দেশগুলোর দিকে ইঙ্গিত করে সেসব দেশের নিন্দায় সরব হয়ে ওঠে। শিশুশ্রম, নারীর অধিকার-এর মতো বিষয় নিজ নিজ দেশে বিকায় না বলে এসব সস্তা নসিহত রফতানি করে দেয় তৃতীয় বিশ্বের দিকে। তাদেরই অপরিণামদর্শী যুদ্ধবিগ্রহের শিকার হয়ে যারা পৃথিবীর দেশে দেশে বাস্তুচ্যূত হচ্ছে তাদের জন্য নেই তাদের কোন দয়ামায়া, নেই তাদের জন্য কিছু করার তাকিদ। এমনই ঘটনার দিকে ইঙ্গিত করে এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যুদ্ধবিগ্রহের কারণে বাস্তুচ্যূত হয়ে ইউরোপে প্রবেশ করা লাখ লাখ অভিবাসী শিশু নিখোঁজ হয়ে গেছে।

ইউরোপের কাউন্সিলের পার্লামেন্টারি অ্যাসেম্বলি-তে তুর্কি প্রতিনিধিদলের একজন সদস্যের মতে, ইউরোপে লাখ লাখ অভিবাসী এবং শরণার্থী শিশু নিখোঁজ রয়েছে, তাদের কী হয়েছে তা কেউ জানে না। গত শুক্রবার আনাদোলু সংস্থার সাথে কথা বলার সময় সেরাপ ইয়াসার বলেন, অভিবাসন ২০১১ সাল থেকে বিশ্বজুড়ে একটি আলোচিত বিষয় এবং আফগানিস্তানের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি দেখায় যে, এটি ভবিষ্যতেও এজেন্ডায় থাকবে। ‘এগুলো যুদ্ধ, সন্ত্রাস এবং অভ্যন্তরীণ অশান্তির কারণে স্থানান্তর। আমাদের আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে স্থানান্তরকে অবমূল্যায়ন করা উচিত নয়’।

ইয়াসার বলেন, ‘আমরা ইউরোপে নিখোঁজ অভিবাসী ও শরণার্থী শিশুদের বিষয়ে আমাদের রিপোর্ট ২০২০ সালের জানুয়ারিতে ইউরোপের কাউন্সিল -এ প্রকাশ করেছিলাম, যা ইউরোপ কাউন্সিলে নিবন্ধিত দেশের ডেপুটিরা সর্বসম্মতিক্রমে পাস করেছিল’।

‘প্রতিবেদন অনুসারে, ইউরোপে লাখ লাখ শিশু নিখোঁজ রয়েছে। তাদের কী হয়েছে তা স্পষ্ট নয়। আমি সংখ্যাটি তুলে ধরতে চাই: শত শত হাজার শিশু’।
‘কখনও কখনও পরিসংখ্যানটি বড় মনে হয়, কিন্তু আমি এটি তৈরি করিনি। এটি জাতিসংঘের রিপোর্টে মিলেছে। এটি ইউরোপ কাউন্সিল এবং অবশেষে আমার রিপোর্টে নির্ধারিত হয়েছিল, সিদ্ধান্তের সংখ্যা ২,৩২৪ ছিল। ৪৭টি দেশের কমপক্ষে একজন এমপি অংশ নিয়েছিলেন এ ভোটে এবং তারা পরিস্থিতি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। তারা সম্ভবত এটিকে তাদের নিজস্ব সংসদেও বহন করেছে’।

ইয়াসার বলেন, তারা শুধু সমস্যাটিই চিহ্নিত করেননি, প্রতিবেদনে সমাধানও দিয়েছেন।
তিনি বলেন, কোভিড-১৯ মহামারি তাদের রিপোর্টের পরে শুরু হয়েছিল এবং বিশ্বের এজেন্ডা অন্যান্য ইস্যুতে স্থানান্তরিত হয়েছিল।
‘যেকোনো পরিস্থিতিতে এসব শিশুর রক্ষা করা আমাদের কর্তব্য। তাদের রক্ষা করা তাদের অধিকার। তারা প্রথমে শিশু, তারপর অভিবাসী এবং শরণার্থী। প্রত্যেক নিখোঁজ শিশুর জন্য, যারা জানে তারা প্রত্যেকেই দায়ী। তিনি বলেন, প্রথমত, তাদের রক্ষা করা রাষ্ট্রের একটি দায়িত্ব।

ইউরোপোল বিজ্ঞপ্তি : ইউরোপীয় পুলিশ সংস্থার (ইউরোপল) যথাক্রমে নিখোঁজ ও মৃত শিশুদের জন্য হলুদ এবং কালো নোটিশ রয়েছে। ইয়াসার বলেন, অভিবাসী শিশুদের এই শ্রেণীর কোনোটিতেই অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি। তিনি বলেন, ‘ধরা যাক এসব শিশুর অধিকাংশই এতিম - অসহায়, তাদের সাথে কোন বাবা -মা নেই। এতিমদের জন্য ইউরোপীয় আইনি ব্যবস্থা এসব শিশুর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়। এই শিশুদেরও আপনার নিজের নাগরিকদের মতো অধিকার আছে, এ সুরক্ষা থেকে উপকার পাওয়ার অধিকার’।

ইয়াসার শেয়ার করেছেন যে, তুরস্কে অসহায় শিশুরা রাজ্যের এতিম ব্যবস্থা থেকে উপকৃত হয়। তিনি যোগ করেন, ‘তুরস্ক একটি ভাল উদাহরণ স্থাপন করেছে। যেসব রাজ্য এটি করছে তারা একটি দায়িত্ব পালন করছে। আন্তর্জাতিক আইনে এর একটি স্থান থাকা উচিত। এ মাসের শেষে, আমি আবার ইউরোপ কাউন্সিলের শরৎ অধিবেশনে থাকব। আমি উত্থাপন করব সমস্যাটি আবার। যখন আপনি বিষয়টি তুলে ধরেন, তখন সবাই সায় দেয়, কিন্তু যখন কিছু করার কথা আসে, তখন কোন সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ নেওয়া হয় না’।

মাইগ্রেশন ব্যবস্থাপনা : ইয়াসার দুঃখ প্রকাশ করেন যে, বিভিন্ন দেশ এবং আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠানগুলো এখনো শরণার্থী শিশুদের ব্যাপারে কোনো নেটওয়ার্ক স্থাপন করেনি।

অভিবাসন ব্যবস্থাপনায় তুরস্ক একটি মহৎ দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন: ‘তুরস্ক বিশ্বের বিবেক হয়ে উঠেছে। আমি এটা গর্বের সাথে বলছি। আমাদের একটি অভিবাসন ব্যবস্থাপনা ব্যবস্থা আছে যা মানবতা এবং অভিবাসনের ইতিহাসে লেখা থাকবে’। সূত্র : আনাদোলু, মিডল ইস্ট মনিটর।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: অভিবাসী শিশু ইউরোপে নিখোঁজ
আরও পড়ুন