Inqilab Logo

শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৮ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

লন্ডনে ‘নো টাইম টু ডাই’র রাজকীয় প্রিমিয়ার

বিনোদন ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১১:৪৭ এএম

লন্ডনে রাজকীয় ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার হয়ে গেল জেমস বন্ডের সিনেমা ‘নো টাইম টু ডাই’র। এই সিনেমায় শেষবারের মতো ড্যানিয়েল ক্রেগ-কে জেমস বন্ডের ভূমিকায় দেখা যাবে। এর পর তিনি আর বন্ড মুভি করবেন না। তারকার মেলায় সিনেমাপ্রেমীদের আলাদা আকর্ষণ ছিল ড্যানিয়েল ক্রেগ। গত বছর এপ্রিল মাসে মুক্তি পাওয়ার কথা থাকলেও বিশ্বজোড়া প্যানডেমিকের ধাক্কায় প্রায় দেড় পর অবশেষে আজ (৩০ সেপ্টেম্বর) মুক্তি পাচ্ছে বহু প্রতীক্ষিত সিনেমাটি।

এর আগে লন্ডনের স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) রয়্যাল আলবার্ট হলে সিনেমাটির রাজকীয় প্রিমিয়ার অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই প্রথমবার কোনও সিনেমার প্রিমিয়ারে ইংল্যান্ডের রাজ পরিবারের আলাদা আলাদা দুই প্রজন্মের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। এতে অংশ নেন ব্রিটিশ রাজ পরিবারের প্রিন্স উইলিয়াম ও কেট মিডলটন। সাথে প্রিন্স চার্লস তার স্ত্রী ক্যামিলাও এসেছিলেন।

প্রিমিয়ারে আরও উপস্থিত ছিলেন ‘নো টাইম টু ডাই’ সিনেমার পরিচালক ক্যারি জোজি ফুকুনাগা, প্রযোজক জুটি মাইকেল জি উইলসন, বারবারা ব্রকোলি এবং ড্যানিয়েল ক্রেগসহ অনেকে।

২০০ মিলিয়ন ডলার বাজেটের চলচ্চিত্র ‘নো টাইম টু ডাই’ এ দেখা যাবে, বন্ড জ্যামাইকা থেকে অবসর ভেঙে চলে এসেছেন, নতুন এক ভিলেনকে খুঁজে বের করতে। আর এই দুশ্চরিত্র ও শয়তান ভিলেনের ভূমিকায় রয়েছেন অস্কারজয়ী অভিনেতা রামি মালেক। ‘নো টাইম টু ডাই’-এ নতুন জিরো জিরো এজেন্ট ‘নোমি’ হিসেবে পর্দায় দেখা যাবে লাশানা লিঞ্চকে। এছাড়া একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেছেন লিয়া সেডো। সিনেমা সংশ্লিষ্টদের বিশ্বাস, জেমস বন্ড সিরিজের নতুন সিনেমা ‘নো টাইম টু ডাই’ আগের সব সিনেমার আয়ের রেকর্ড ছাড়িয়ে যাবে।

২০০৬ সালে ‘ক্যাসিনো রয়্যাল’ দিয়ে ব্রিটিশ সিক্রেট এজেন্ট ‘জেমস বন্ড’ হিসেবে যাত্রা শুরু করেন খ্যাতনামা অভিনেতা ড্যানিয়েল ক্রেইগ। এই ‘নো টাইম টু ডাই’ দিয়েই ১৫ বছরের সুদীর্ঘ যাত্রার ইতি টানলেন ক্রেইগ। তাই স্বভাবতই, 'নো টাইম টু ডাই' নিয়ে দর্শকদের আগ্রহ তুঙ্গে। নিজের অনুভূতির কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আজকের দিনটা খুবই স্বস্তিদায়ক। সিনেমার সকল কলাকুশলীদের সাথে এই দিনটা উদযাপন করা খুব গুরুত্বপূর্ণ ছিল আমার কাছে। এক বছর আগেও আমি ভাবতে পারিনি যে এমনটা হবে।’

উল্লেখ্য, ২০০৬ সালে ‘ক্যাসিনো রয়্যাল’ দিয়ে ব্রিটিশ সিক্রেট এজেন্ট ‘জেমস বন্ড’ হিসেবে যাত্রা শুরু করা ড্যানিয়েল ক্রেগ এর পর ‘কোয়ান্টাম অফ সোলেস’, ‘স্কাইফল’ এবং ‘স্পেক্টার’ ছবিতেও জেমস বন্ডের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন। জেমস বন্ড হিসেবে ড্যানিয়েল ক্রেগের আগের চার সিনেমায় যুক্তরাজ্যের বক্স অফিসে আয় ছিল ৩০৫ মিলিয়ন পাউন্ডের বেশি। বিশ্বজুড়ে আয় ছিল ২ দশমিক ৩ বিলিয়ন পাউন্ডের বেশি। ক্রেগের সবচেয়ে বেশি আয় করা বন্ড সিনেমা ২০১২ সালের ‘স্কাইফল’। সিনেমাটি ১০৩ মিলিয়ন পাউন্ড আয় করেছিল। আর সবচেয়ে কম সফল এবং কম আয় করা সিনেমা ‘কোয়ান্টাম অব সোলেস’। ২০০৮ সালে মুক্তি প্রাপ্ত সিনেমাটির আয় ছিল ৫১ দশমিক ২ মিলিয়ন পাউন্ড।

 



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হলিউড

৩ ডিসেম্বর, ২০২১
২৬ নভেম্বর, ২০২১
১২ নভেম্বর, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন