Inqilab Logo

শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২১ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

আফগান কোচ ক্লুজনারকে ঘিরে অনিশ্চয়তা দল কাবুলে, তিনি ডারবানে! টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ

স্পোর্টস ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ২ অক্টোবর, ২০২১, ১২:০০ এএম

পরিকল্পনা ছিল, বিশ্বকাপের আগে সংযুক্ত আরব আমিরাতে মাসখানেকের প্রস্তুতি ক্যাম্প করবে আফগানিস্তান। সে হিসেবে এর মধ্যেই সেখানে থাকার কথা ছিল রশিদ খানদের। তবে তালেবান আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর থেকেই বদলে গেছে সবকিছু। এরই মাঝে বদল এসেছে আফগানিস্তান ক্রিকেট বোর্ডে, টি-টোয়েন্টি দলের নেতৃত্ব ছেড়ে দিয়েছেন রশিদ। চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে আছেন আফগানিস্তান দলের হেড কোচ, সাবেক দক্ষিণ আফ্রিকান তারকা ল্যান্স ক্লুজনারও।
তালেবান সরকার গঠনের ঠিক আগ দিয়ে কাবুল ছেড়ে দক্ষিণ আফ্রিকায় ফিরেছিলেন ক্লুজনার। এরপর থেকেই ডারবানে নিজের বাড়িতে আছেন আফগানিস্তান কোচ। এখনো আরব আমিরাতের ভিসার ব্যবস্থা হয়নি দলের। দলের সঙ্গে ক্লুজনার কবে যোগ দেবেন, নিশ্চিত নয় সেটিও। আফগানিস্তান যখন কাবুলে ঢিমেতালে অনুশীলন চালাচ্ছে, ক্লুজনার তখন প্রায় ১২০০০ কিলোমিটার দূরে! এত দূরে থেকে এখন শুধু আশায় বুক বাঁধা ছাড়া আর কিছুই করার নেই ক্লুজনারের। এএফপিকে সাবেক প্রোটিয়া অলরাউন্ডার বলেছেন, ‘আমরা অন্তত এক মাস প্রস্তুতি ক্যাম্পের পরিকল্পনা করছিলাম আরব আমিরাতে। তবে সেটি হচ্ছে না, এখনো ভিসা পাওয়া যায়নি। যত দ্রুত সম্ভব সেখানে যেতে চাই আমরা।’
ক্লুজনার আফগানিস্তানের দায়িত্ব নিয়েছেন ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে। আফগানিস্তানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট না হলেও এ সময়ে প্রায় ছয়বার কাবুল আসা-যাওয়া করেছেন তিনি। দেশটির পরিস্থিতি তাই সামনাসামনি দেখেছেন ১৯৯৯ বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় ক্লুজনার, ‘সবকিছু বন্ধ হয়ে যাওয়ার দিন দু-এক আগে কাবুল থেকে ফিরেছি আমি। আমার ধারণা তালেবানের ক্ষমতা দখলের ব্যাপারটা আজ হোক কাল হোক হতোই। তবে বেশ আচমকাই ঘটে গেছে। দেশগুলো তো এভাবেই চলে। খেলাধুলার মানুষ হিসেবে এসব মেনে নিয়ে কাজ করা ছাড়া আমাদের আর কী-ইবা করার আছে!’
তালেবান সরকার ক্ষমতায় আসার প্রভাব ক্রিকেটে সরাসরিই পড়েছে। ক্রিকেট বোর্ডের চেয়ারম্যানের পর প্রধান নির্বাহীর পদে এসেছে পরিবর্তন। পাকিস্তানের সঙ্গে সিরিজ খেলার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত স্থগিত করা হয়েছে সেটি। মেয়েদের ক্রিকেট নতুন করে পড়ে গেছে শঙ্কার মুখে। মেয়েদের ক্রিকেটকে সহ্য করা হবে না— এমন ঘোষণার কারণে আফগানিস্তানের সঙ্গে টেস্ট সিরিজ বাতিল করার দ্বারপ্রান্তে অস্ট্রেলিয়া। নতুন কর্মকর্তাদের সঙ্গে এখনো কথা হয়নি ক্লুজনারের। তবে তালেবান ক্রিকেটের পাশে আছে বলেই ধারণা তার, ‘তালেবান ক্রিকেটের প্রচার করছে, সহায়তা করছে। সবদিক দিয়েই তারা আমাদের নিয়ে খুশি, ব্যাপক সহায়তাও করছে। তবে, দেশটা, দেশের মানুষগুলোর জন্য এ পরিবর্তনটা বিশাল। সবকিছু ঠিকঠাক হতে তো সময় লাগবেই।’
আপাতত নিজের কাজ নিয়েই ভাবছেন ক্লুজনার, ‘প্রায় আড়াই সপ্তাহ আমাদের দারুণ একটা ক্যাম্প হয়েছে। বছরের সে সময়টায় পিচ অনেক ভালো থাকে। তবে আবহাওয়া খুব বেশি চরমভাবাপন্ন। একবার শীতের মাঝামাঝি সময় ছিলাম আমি সেখানে। পিচগুলো তখন বরফে ঢেকে ছিল।’ সব মিলিয়ে আফগান ক্রিকেটের চ্যালেঞ্জগুলোও জানেন তিনি, ‘দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমাদের সব সময়ই দেশের বাইরে খেলতে হয়। এরপর করোনাভাইরাসের কথা চিন্তা করুন, সেটা বাড়তি ঝামেলা। সর্বশেষ মার্চে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলেছি আমরা।’
ক্লুজনারের জন্য অবশ্য আশার আলো দেখাচ্ছেন রশিদরাই। সঙ্গে মুজিব-উর-রহমান ও মোহাম্মদ নবী এই মুহূর্তে আইপিএল খেলতে আরব আমিরাতেই আছেন। নিজেদের স্পিন আক্রমণকে ‘বিশ্বসেরা’ মনে করেন ক্লুজনার। বলছেন, ‘একটুখানি বাঁকের দেখা মিললেই আমরা দলগুলোকে অনেক ঝামেলায় ফেলতে পারব। তবে আমাদের বড় চ্যালেঞ্জ ব্যাটিং। আমাদের নজরও সেদিকেই। আগে ব্যাটিং করলে যাতে লড়াই করার মতো কিছু করতে পারি, সেটিই নিশ্চিত করতে হবে আমাদের। ব্যাটিং নিয়ে চিন্তা থাকলেও অবশ্য বিশ্বকাপের দল ঘোষণার পর অধিনায়কত্বের বদল নিয়ে ভাবছেন না ক্লুজনার, ‘নবীর বোধ-বুদ্ধি দারুণ। সে বেশ স্থির প্রকৃতির। দলের সব সিনিয়র ক্রিকেটারই একত্রে কাজ করে। নবী দায়িত্ব নিতেও পছন্দ করে। আমার ধারণা সে নিজের সেরাটা দিতে পারবে।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন