Inqilab Logo

শুক্রবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২২, ১৪ মাঘ ১৪২৮, ২৪ জামাদিউস সানি ১৪৪৩ হিজরী

দুর্গা পূজায় লাগে ‘যৌনপল্লীর মাটি’ : দিতে চান না যৌনকর্মীরা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৪ অক্টোবর, ২০২১, ১১:৫৮ এএম

দুর্গা পূজায় ‘যৌনপল্লীর মাটি’ লাগে বলে উল্লেখ রয়েছে শাস্ত্রে। অতীতে আলাদা আলাদাভাবে এর বিরোধিতা করলেও এবার সেই রীতি মানার জন্য বারোয়ারি কমিটিগুলির পাশে আর দাঁড়াতে চায় না তারা। অতীতে এমন কথা উঠলেও এবার পুরো পশ্চিমবঙ্গের সব যৌনপল্লীই এক হয়েছে এই সিদ্ধান্তে।

ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের যৌনপল্লীর বাসিন্দারা; দুর্গা পূজায় অনেক বছরের রীতি মানতে আর ভারতীয়দের সহায়তা করতে চান না তারা।

যৌনকর্মীদের সংগঠন দুর্বার মহিলা সমন্বয় কমিটির সম্পাদক কাজল বসু বলেন, আগেও আমরা এই কথা বলেছি যে, আমাদের দরজার মাটি না পেলে পূজা হবে না, কিন্তু কেউ আমাদের ঘরের চৌকাঠ পার হলেই অপরাধী। কেন্দ্রীয় সরকারের নতুন আইনই সেটা বলেছে। তাই আমরা ঠিক করেছি, গোটা রাজ্যেই এ বার সব যৌনপল্লী এক সুরে বলবে, দরজার মাটি দেব না।

আনন্দবাজার পত্রিকা বলছে, কিন্তু কেন এই অভিমান? দুর্বারের বক্তব্য, সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকার যে মানবপাচার-বিরোধী আইন তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে তাতে এই পেশায় যুক্ত যৌনকর্মীরা বিপদের মধ্যে পড়বেন। এমনকি, এই পেশাই উঠে যেতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে।

প্রসঙ্গত,‘ট্র্যাফিকিং পার্সনস (প্রিভেনশন, প্রোটেকশন অ্যান্ড রিহ্যাবিলেটশন) বিল ইতিমধ্যেই লোকসভায় পাশ হয়ে গেছে। এখন রাজ্যসভার অনুমোদন পেলেই তা আইন রূপায়নের দিকে এগিয়ে যাবে। সেই বিলই সিলেক্ট কমিটি-তে পাঠানোর দাবি তুলে গত অগস্ট মাসে সংসদ চলাকালীনই সরব হয়েছিল দুর্বার।

সংগঠনের আইনজীবী অভিজিৎ দত্ত বলেন, ভারতে পাচারবিরোধী আইন রয়েছে। সেটির পরে এই বিলে কোথাও ইচ্ছুক-অনিচ্ছুক যৌনকর্মীদের কথা আলাদাভাবে উল্লেখ করা হয়নি। অর্থাৎ ইচ্ছাকৃতভাবেও যরা এই পেশায় আসবেন তাদের পুনর্বাসন দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু যারা স্বেচ্ছায় এই পেশায় এসেছেন তাদের তো বাধ্য করা যায় না। মানবপাচার রোধের নামে আসলে যৌনকর্মীদের পেশাটাকেই তুলে দিতে চাইছে কেন্দ্র। সেই রেশ টেনেই সর্বজনীন দুর্গাপুজোকে বয়কট করতে চাইছেন যৌনপল্লীর বাসিন্দারা।

সোনগাছি অর্থ্যাৎ যৌনপল্লীর সংগঠন দুর্বার অবশ্য নিজেদের পূজো করছে এবারও। তবে অতীতে সেই পূজোয় পুলিশের অনুমতি নিয়ে চাপে পড়তে হয়েছিল দুর্বারকে। সেই সময় কলকাতা হাই কোর্টের দ্বারস্থ হয়ে অনুমতি আদায় করেছিল দুর্বার।

এবার নিজেদের পুজোয় যৌনপল্লীর মাটি ব্যবহার করা হবে তো? জবাবে দুর্বারের সদস্য ও সোনাগাছির পুরনো বাসিন্দা বিমলা রায় বলেন, এত কাল তো আমাদের মাটি নিয়ে সবার পূজো হয়েছে। এ বার থেকে আমাদের মাটি, আমাদের পূজা। এটাই আমাদের পুজোর থিম বলতে পারেন।

কিন্তু সত্যিই কি দুর্গাপুজো বেশ্যদ্বার মৃত্তিকা ছাড়া সম্ভব নয়? এর জবাবে পুরোহিত প্রশিক্ষক তথা ‘দুর্গাপুজোর জোগাড়’ বইয়ের লেখক নবকুমার ভট্টাচার্য বলেন, ‘সবাই শুধু বেশ্যাদ্বার মৃত্তিকার কথা বলে। কিন্তু শাস্ত্র অনুযায়ী একই সঙ্গে পুজোয় রাজদ্বার, সর্বতীর্থ, বৃষশৃঙ্গ, গজদন্তের মৃত্তিকাও লাগে। কিন্তু সে সব তো আর পাওয়া যায় না। গঙ্গামাটিকে প্রতীকী হিসেবে ব্যবহার করা হয়। একান্তই মাটি না পাওয়া গেলে সে ক্ষেত্রে প্রতীকী ব্যবহারের অনুমোদন রয়েছে শাস্ত্রে।’ আনন্দবাজার



 

Show all comments
  • A.D. Asadullah ৪ অক্টোবর, ২০২১, ৬:২৩ পিএম says : 0
    যে দেবি যৌন পল্লীর মাটী ছাড়া তুষ্ট হয় না , তার পুজা না করাই উচিৎ ।
    Total Reply(0) Reply
  • Nazrul Islam Sohag ৪ অক্টোবর, ২০২১, ৬:২৪ পিএম says : 0
    এসব নোংরামী এখন থেকে বাদ দেওয়া উচিৎ
    Total Reply(0) Reply
  • Kamal ৪ অক্টোবর, ২০২১, ৬:২৫ পিএম says : 0
    আসলে দেবী বলতে চেয়েছেন সবাই করে নিয়ে জগত সংসার।বেশ্যা এবং রাজার গুরুত্ব দেবীর নিকট সমান।সবাই মানুষ।দেবী বুঝে পরিস্থিতির শিকার নাহলে কেউ বেশ্যা গিরি করেনা।হাজার বছর ধরে এভাবেই চলচে আমাদের জগত সংসার। কোন ধর্মের কোন দেবীই মানুষের অকল্যান হয়ে এমন কিছু বলেন নি।দেবী কোথায় বলেছেন আসামের মুসলমানদের ভিটার জমি কেড়ে নিয়ে মন্দির করতে হবে। দেবীরা অতটা স্বর্থপর নেয় যে আদম সন্তানের বাসস্থান কেড়ে নেয়া স্থানে দেবীর আরাধনা হবে।দে্বী তার শুনে ধন্য হবেন। তাদের এক একটা মোদি বানিয়ে দেবেন।অসুররা যুগে যুগে আসে।শুধু নামের পরিবর্তন হয়ে।কোনো অসুর, কখনোচেংগিসখান,কখনো মোদি।
    Total Reply(0) Reply
  • Jewel Hossain ৪ অক্টোবর, ২০২১, ৬:২৫ পিএম says : 0
    পশু-পাখী এবং সকল প্রানীকে বাদ দিয়ে,আল্লাহ মানুষজাতিকে শ্রেষ্ঠত্ব দিয়েছেন কারন আল্লাহ আমাদের জ্ঞান দান করেছেন,আল্লাহ অন্যান্য প্রানীদের পরিপূর্ণ জ্ঞান দেননি। হাতি,সিংহ, বাঘ,ইত্যাদি ভয়ংকর প্রানী গুলো মানুষের জ্ঞানের কাছে অসহায়। তাই পৃথিবীতে মানবজাতির রাজত্ব চলে,আর পশুপাখি, চিড়িয়াখানায় ও বনে জঙ্গলে। স্রষ্টার সৃষ্টিকে পূজা করতে নেই। সত্যি মানুষ হিসেবে খুব লজ্জা হয়,যখন অযুক্তিযুক্ত কিছু পড়ি,আর তা যদি হয় ধর্মের অন্তর্ভুক্ত।আল্লাহতালা মানবজাতিকে সঠিক ধর্ম বুঝার তৌফিক দান করুন। আমিন "!
    Total Reply(0) Reply
  • Billal ৬ অক্টোবর, ২০২১, ৯:২৯ এএম says : 0
    যে দেবি যৌন পল্লীর মাটী ছাড়া তুষ্ট হয় না , তার পুজা না করাই উচিৎ
    Total Reply(0) Reply
  • M Abdur Rob ৭ অক্টোবর, ২০২১, ১১:৪৩ এএম says : 0
    নিঃসন্দেহে আল্লাহর নিকট গ্রহণযোগ্য দ্বীন (ধর্ম) একমাত্র ইসলাম। (Ch 3, Ver. 19, আল-কোরআন)
    Total Reply(0) Reply
  • Abul Farah ১১ অক্টোবর, ২০২১, ২:৩১ এএম says : 0
    সভ‍্য জগতে এক নোংরা জাতি প্রাণী গুলো সারা পৃথিবী জানে ওরা মলমুত্র খাওয়া পোকামাকড়।
    Total Reply(0) Reply
  • TAWHID MOLLAH ৭ অক্টোবর, ২০২১, ৭:০৫ পিএম says : 0
    কোন ধর্ম কে আমি কটাক্ষ করব না। কিন্তু এই আধুনিক যুগে মানুষ যে দেব দেবীর পুজা করে এটা আমার মাথায় আসে না। নিজেরা মাকে বানিয়ে যা করে তা অাধুনিক জীবনে ধর্মের সাথে মানায় না। কাজেই আমি হিন্দু সহ সকল ধর্মের অনুসারীদের বলি আপনারা বিভিন্ন ধর্ম গ্রন্থ পড়েন আর নিজেকে যাচাই করেন কোন ধর্ম টি আধুনিক, সঠিক ও চিরন্তন। আল্লাহতালা মানবজাতিকে সঠিক ধর্ম বুঝার তৌফিক দান করুন। আমিন "!
    Total Reply(0) Reply
  • Utpol Dutt ৯ অক্টোবর, ২০২১, ৬:৪২ পিএম says : 0
    সময় এসেচে আমরা জেন এই প্রাচীন ভূতময় এই ধর্ম ছেড়ে মুহাম্মাদের দেখানো সরল পথে ফিরে আসি।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন