Inqilab Logo

সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৩ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

জাপানের শততম প্রধানমন্ত্রী কিশিদার দায়িত্ব গ্রহণ

গঠন করলেন নতুন মন্ত্রিসভা

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৫ অক্টোবর, ২০২১, ১২:০০ এএম

আনুষ্ঠানিকভাবে জাপানের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন ফুমিও কিশিদা। গতকাল সোমবার তিনি দেশটির ১০০তম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নিলেন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এর আগে গত সপ্তাহে ক্ষমতাসীন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির হয়ে জাপানের পার্লামেন্টের উভয় হাইজে সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন ফুমিও কিশিদা। ৬৪ বছর বয়সী এই নেতাকে কঠিন কয়েকটি ইস্যুর সম্মুখীন হতে হবে। যার মধ্যে অন্যতম, করোনা মহামারি পরবর্তী অর্থনৈতিক কাঠামো পুনরুদ্ধার এবং উত্তর কোরিয়ার ক্রমবর্ধমান হুমকি মোকাবিলা।

করোনা মোকাবিলায় জনমত জরিপ হ্রাসের কারণে পদত্যাগ করেছেন আগের প্রধানমন্ত্রী ইয়েযোশিহিদে সুগা। তিনি মাত্র এক বছর এ পদে ছিলেন।

জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদা সোমবার পার্লামেন্টে ভোট দিয়েছেন, ক্ষমতাসীন দলের নেতৃবৃন্দ এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে এবং প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী তারো আসোর মিত্রদের মন্ত্রিসভা লাইন আপ উন্মোচন করেছেন।
প্রাক্তন পররাষ্ট্রমন্ত্রী কিশিদা দীর্ঘদিন ধরে তার প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আকাক্সক্ষার কথা বলে এসেছেন। পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে তিনি জাপানের যুদ্ধকালীন পতিতালয়ে কাজ করতে বাধ্য হওয়া ব্যক্তিদের নিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে একটি চুক্তি স্বাক্ষরের তদারকি করেন এবং প্রাক্তন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার পারমাণবিক বোমা স্মারক শহর হিরোশিমা সফরের ব্যবস্থা করেন।

কিশিদার পররাষ্ট্রমন্ত্রী হয়েছেন তোশিমিতসু মোটেগি। প্রধানমন্ত্রী ইয়োশিহিদে সুগার প্রশাসনে ৬৫ বছর বয়সী মোতেগি অর্থনীতি ও বাণিজ্যমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এর আগে ২০১৯ সালের মন্ত্রিপরিষদ রদবদলে আবে তাকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে মনোনীত করেছিলেন। বাণিজ্যমন্ত্রী হিসেবে তিনি ট্রান্স-প্যাসিফিক পার্টনারশিপ মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির জন্য আলোচনার মোকাবিলা করেন।

হার্ভার্ড এবং টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষিত, ইংরেজী ভাষাভাষী মোতেগি প্রথম তৎকালীন বিরোধী জাপান নিউ পার্টি থেকে ১৯৯৩ সালে নিম্নকক্ষে নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৯৫ সালে ক্ষমতাসীন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টিতে (এলডিপি) যোগদান করেন।

প্রতিরক্ষামন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন নোবু কিশি। তিনি প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের ছোট ভাই। ৬২ বছর বয়সী কিশিকে তার নিঃসন্তান চাচা, প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নোবুসুকে কিশির বড় ছেলে-জন্মের পরপরই দত্তক নিয়েছিলেন। ২০০৪ সালে রাজনীতিতে আসার আগে তিনি একটি ট্রেডিং ফার্মে নিযুক্ত হয়ে যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া এবং ভিয়েতনামে কাজ করেছিলেন।

কিশি, মতাদর্শগতভাবে তার রক্ষণশীল ভাই আবের সাথে যুক্ত, সাংবিধানিক সংশোধনের পাশাপাশি দৃঢ় প্রতিবেশী চীন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তাইওয়ানের সঙ্গে তার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে বলেও জানা যায়। তিনি ১৯৮১ সালে কেইও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে স্নাতক হন।

অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবেন শুনিচি সুজুকি। স্বল্প পরিচিত কিন্তু সুসংগঠিত রাজনীতিবিদ যিনি আগে অলিম্পিক মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সুজুকি বর্তমান অর্থমন্ত্রী তারো আসোর শ্যালক এবং সাবেক প্রধানমন্ত্রী জেনকো সুজুকির ছেলে। তিনি সরকারী লাইন থেকে বিপথগামী হওয়া এড়াতে এবং আর্থিক সংস্কারের সাথে প্রবৃদ্ধি ব্যয়ের ভারসাম্য রক্ষার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবেন বলে আশা করা হচ্ছে। ওয়াসেদা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক, তিনি প্রথম ১৯৯০ সালে সংসদে নির্বাচিত হন।

অর্থনীতি এবং বাণিজ্যমন্ত্রী হলেন কৈচি হাগিউদা। ৫৮ বছর বয়সী হাগিউদা সাবেক প্রধানমন্ত্রী আবে’র ঘনিষ্ঠ মিত্র। ২০১৯ সাল থেকে শিক্ষামন্ত্রী হিসাবে, তিনি আবে এবং সুগা উভয়ের অধীনেই কাজ করেন। পূর্ববর্তী সরকারী কাজের মধ্যে রয়েছে আবে প্রশাসনে উপ -প্রধান মন্ত্রিপরিষদ সচিব এবং ২০১৩ থেকে ২০১৫ পর্যন্ত তার বিশেষ উপদেষ্টা হিসেবে ভূমিকা পালন করা। ২০০৩ সালে সংসদের নিম্নকক্ষে প্রথম নির্বাচিত, তিনি এর আগে টোকিওতে স্থানীয় সরকারগুলির একটি অ্যাসেম্বলি সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

ভ্যাকসিন মিনিস্টার হয়েছেন নোরিকো হরিউচি। ৫৫ বছর বয়সী হরিউচি কিশিদার মন্ত্রিসভা লাইনআপে তিনজন মহিলার একজন হিসেবে তার প্রথম মন্ত্রী পদ গ্রহণ করবেন। তিনি পরিবেশ উপমন্ত্রী এবং সুগার অধীনে ক্যাবিনেট অফিসের প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। রাজনীতিতে তার পদচারণা শুরু হয় যখন তাকে অবসর গ্রহণের পর তার শ্বশুর এবং প্রাক্তন বাণিজ্যমন্ত্রী মিতসুও হরিউচির জেলার দায়িত্ব নিতে বলা হয়। তিনি প্রথম ২০১২ সালে নিম্নকক্ষে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

অর্থনৈতিক নিরাপত্তামন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়া হয়েছে তাকাযুকি কোবায়াশিকে। হার্ভার্ডের কেনেডি স্কুল এবং টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক, ৪৬ বছর বয়সী কোবায়াশি ২০১০ সালে রাজনীতিতে আসার আগে অর্থ মন্ত্রণালয়ে কর্মজীবন শুরু করেছিলেন, যার মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে জাপানের দূতাবাসে কর্মরত ছিলেন। ২০১২ সালে প্রথম নিম্নকক্ষে নির্বাচিত, তিনি আবে’র অধীনে সংসদীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী ছিলেন।

তার নিয়োগ এলডিপির নবনিযুক্ত মহাসচিব আকিরা আমারি এবং আবে মিত্রের প্রতিফলনকে প্রতিফলিত করবে, যিনি জাপানের অর্থনৈতিক নিরাপত্তা নীতির একজন স্থপতি যিনি চীন থেকে সংবেদনশীল প্রযুক্তি যেমন সাপ্লাই চেইন এবং সাইবার সিকিউরিটি রক্ষায় কাজ করেন।

অর্থনৈতিক পুনর্বিবেচনামন্ত্রী দাইশিরো ইয়ামাগিওয়া। কিশিদার মন্ত্রিসভায় ১৩ নতুন মুখের মধ্যে একজন, ইয়ামাগিওয়া ৫৩, টোকিও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পশুচিকিৎসায় স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পরপরই রাজনীতিতে কর্মজীবন শুরু করেন। ২০০৩ সালে তিনি নিম্নকক্ষের আইনপ্রণেতা হন এবং আবে সরকারের সময়ে সংক্ষিপ্তভাবে ভাইস ট্রেড মিনিস্টার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

ইয়ামাগিওয়াকে আমারির কাছাকাছি হিসাবে দেখা হয়, ২০১৭ সালে আসোর দলে তাকে অনুসরণ করার আগে তার গ্রুপে যোগদান করে। সূত্র : বিবিসি ও রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ