Inqilab Logo

বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৫ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

‘চীনের ঋণ’ নিয়ে পাকিস্তানের কোন সমস্যা নেই: আসাদ উমর

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ৬ অক্টোবর, ২০২১, ৭:৪০ পিএম

পাকিস্তানের পরিকল্পনা ও উন্নয়ন মন্ত্রী আসাদ উমর বলেছেন, চীন-পাকিস্তান ইকোনমিক করিডোর (সিপিইসি) প্রকল্প অর্থায়ন সংক্রান্ত ‘চীনের ঋণ’ নিয়ে পাকিস্তানের কোন সমস্যা নেই। বুধবার ইসলামাবাদে এক সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী স্বীকার করেন যে, পাকিস্তানের জন্য ঋণ পরিবেশন এবং স্থায়িত্বের চ্যালেঞ্জ রয়েছে। কিন্তু তিনি জোর দিয়ে বলেন যে, ‘আমাদের চীনের ঋণ নিয়ে সমস্যা নেই।’

উমর একটি মার্কিন ভিত্তিক আন্তর্জাতিক উন্নয়ন গবেষণা ল্যাব, এইডডা-র সাম্প্রতিক প্রতিবেদনের জবাবে এই মন্তব্য করেন, যেখানে সিপিইসি-র সমালোচনা করা হয়েছিল। তিনি স্মরণ করিয়ে দিয়েছিলেন যে, প্রতিবেদনে সিপিইসি সম্পর্কে চারটি প্রধান বিষয় উত্থাপিত হয়েছিল: স্বচ্ছতার অভাব, পাকিস্তানে উপরে গোপন লোন আরোপ, ব্যয়বহুল হওয়া এবং সিপিইসির কারণে পাকিস্তানের ঋণ বিপজ্জনক স্তরে বেড়ে যাওয়া। তিনি উদ্বেগ উড়িয়ে দিয়ে বলেন, সিপিইসি প্রকল্পের তথ্য একাধিকবার শেয়ার করা হয়েছে এবং সেনেট ও জাতীয় পরিষদের কমিটি এমনকি তাদের প্রশ্নের উত্তরও দিয়েছে। তিনি বলেন, ‘এর উপর সংসদীয় নজরদারি রয়েছে।’

উমর বলেন, শক্তি এবং বিদ্যুৎ প্রকল্পের তথ্য ন্যাশনাল ইলেকট্রিক পাওয়ার রেগুলেটরি অথরিটির কাছে পাওয়া যায় এবং সরকার তার কর্মসূচির শুরুতে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলকে সিপিইসি সম্পর্কে তথ্য প্রদান করেছিল। গোপন লোন প্রদানের ব্যাপারে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘আমরা এটা নিয়ে চিন্তা করার চেষ্টা করেছি কিন্তু শুধুমাত্র একটি জিনিস আমাদের মনে আসে যে, তারা হয়তো কোনো লোন বা প্রকল্পের সার্বভৌম গ্যারান্টিকে গোপন বা লুকানো ঋণ বলে অভিহিত করছে।’

তিনি ব্যাখ্যা করেছিলেন যে, দেশী বা বিদেশী সমস্ত স্বাধীন বিদ্যুৎ উৎপাদনকারীদের সার্বভৌম গ্যারান্টি প্রদান করা হয়েছিল। এবং ‘এতে নতুন কিছু তৈরি হয়নি, এটি কোনও গোপন বিষয় নয়’। তিনি বলেন, আরও অনেক প্রকল্প রয়েছে যেখানে সরকার ব্যক্তিগত নগদ অর্থ বিনিয়োগের পরিবর্তে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত খাতকে সহায়তা করার জন্য সার্বভৌম গ্যারান্টি বা স্ট্যান্ডবাই ক্রেডিটের মতো ব্যবস্থা ব্যবহার করে।

উমর দাবি করেছেন যে, বেসরকারি বিদ্যুৎ প্রকল্পের জন্য সিপিইসি লোন বিশ্বব্যাংক বা এশীয় উন্নয়ন ব্যাংকের মতো অন্যান্য আন্তর্জাতিক সংস্থার লোনের তুলনায় তুলনামূলকভাবে সস্তা। অবকাঠামো প্রকল্পের জন্য লোন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তাদের অধিকাংশই দুই শতাংশ সুদে রেয়াত হারে নেয়া হয়েছে। উমর আরও বলেন, চীন বিভিন্ন সিপিইসি প্রকল্পের জন্য বিভিন্ন অনুদান প্রদান করেছে এবং যদি সেগুলো অন্তর্ভুক্ত করা হয় তাহলে ‘সরকার-থেকে-সরকারী লোনের গড় হার ২ শতাংশেরও কম’।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, তথ্যটি ‘আগেও’ শেয়ার করা হয়েছিল এবং মিডিয়াতে প্রতিবেদনটি হাইলাইট হওয়ার কারণে এটি পুনরাবৃত্তি করা হচ্ছে। পাকিস্তানের ঋণ ‘বিপজ্জনক পর্যায়ে’ পৌঁছানোর উদ্বেগের বিষয়ে তিনি বলেন, চীনের ঋণ দেশের সাধারণ ঋণের মাত্র ১০ শতাংশ (দেশী ও বিদেশী) এবং বহিরাগত ঋণের ২৬ শতাংশ। ‘সুতরাং ঋণের ৭৪ শতাংশ অর্থ আমরা বাকি বিশ্বের কাছ থেকে নিয়েছি - বেশিরভাগ পশ্চিমা এবং বহুপাক্ষিক সংস্থার কাছ থেকে - সেগুলো পাকিস্তানকে বিপদগ্রস্ত করে না কিন্তু এটি চীনের ২৬ শতাংশের কারণে হুমকির সম্মুখীন? এটি সম্পূর্ণ ভুল যুক্তি’।

উমর চীনা বিনিয়োগকারীদের অগ্রাধিকারমূলক আচরণ করা হচ্ছে বলে অস্বীকার করে বলেন, একই ধরনের শর্ত তৈরি করা হয়েছিল এবং বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপনের জন্য বিশ্বকে প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল। তিনি বলেন, ‘এই নীতিটি কেবল চীনাদের জন্য নয়, পুরো বিশ্বের জন্য তৈরি করা হয়েছিল। তবে শুধুমাত্র চীনা বিনিয়োগকারীরা (বিদ্যুৎকেন্দ্র) স্থাপন করতে এসেছিল।’ উমর স্থানীয় গণমাধ্যমকেও ‘যথাযথ যাচাই -বাছাই না করে’ তাদের কাছ থেকে তথ্য পাঠানোর পরিবর্তে বিদেশী রিপোর্ট নিয়ে প্রশ্ন তোলার আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘এটা না ভালো সাংবাদিকতা, না আপনি পাকিস্তানের সেবা করছেন।’

সিপিইসি প্রকল্পের অগ্রগতি সম্পর্কে উমর বলেন, সরকার ইতিমধ্যেই ‘বাস্তবতা এবং পরিসংখ্যান দিয়ে প্রমাণ করেছে যে বর্তমান প্রশাসনের অধীনে আগেরটির চেয়ে বেশি কাজ করা হয়েছে’। তিনি বলেন, পাকিস্তান এবং চীন উভয়ই সিপিইসিতে অন্যান্য দেশের অংশগ্রহণকে স্বাগত জানাবে এবং এটিকে একটি আঞ্চলিক করিডর হিসেবে গড়ে তোলা একটি ‘খুব ভালো ধারণা’ হবে এবং ‘পাকিস্তান এটিকে সম্পূর্ণ সমর্থন করবে’। মন্ত্রী আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আফগানিস্তানের সাথে আর্থিক সম্পর্ক বজায় রাখার এবং এর উন্নয়ন প্রক্রিয়ার অংশ হওয়ার আহ্বান জানান। সূত্র: ডন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: পাকিস্তান-চীন


আরও
আরও পড়ুন