Inqilab Logo

বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৩ জামাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরী

নৌকার দৌড়ে বিতর্কিতরা

ইউপি নির্বাচন নৌকা চান রোহিঙ্গাদের ভোটার করা চেয়ারম্যান, রাজাকারের নাতি, বিএনপি নেতা, নারী নির্যাতনের মামলার আসামি আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভা আজ

ইয়াছিন রানা | প্রকাশের সময় : ৭ অক্টোবর, ২০২১, ১২:০১ এএম

দ্বিতীয় ধাপের ৮৪৮টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচনে মনোনয়ন পেতে ত্যাগীদের পাশাপাশি বিতর্কিত ব্যক্তিরাও দৌড়ঝাপ করছেন। যেসব ব্যক্তিদের নামের তালিকা জেলা সংগঠন থেকে কেনেদ্র পাঠানো হয়েছে তাদের অনেকের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়, স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সদস্য, বিভাগীয় যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এবং সাংগঠনিক সম্পাদকদের কাছে অপকর্ম ও বিতর্কিত কাজের ফিরিস্তি তুলে ধরে অভিযোগ জানিয়েছেন তাদের প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা।

এসব অভিযোগের সূত্রে জানা গেছে, নৌকা চান রোহিঙ্গাদের ভোটার করা অভিযুক্ত চেয়ারম্যান, রাজাকারের নাতি, বিএনপি নেতা, নারী নির্যাতনের মামলার আসামীসহ মাদক ও সন্ত্রাসী মামলার আসামীরা, সাংবাদিক নির্যাতনকারী, দুর্নীতি কমিশন-দুদকের মামলার আসামীও, একই সঙ্গে হত্যার মামলার আসামীও রয়েছেন। চেয়ারম্যান হতে চান দলীয় নেতাকর্মী নির্যাতনকারী নেতারাও। আবার জেলা সাধারণ সম্পাদক আবদুল হাকিম হাওলাদারের স্বাক্ষর জাল করে কেন্দ্রে তালিকা পাঠানোর অভিযোগ উঠেছে পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএম আউয়াল। অন্যদিকে ‘ঝামেলা’ এড়াতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা চান না মাদারীপুর ও শরীয়তপুর জেলার এমপি-নেতারা। তারা লিখিতভাবে বিষয়টি দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার কাছে জানিয়েছেন।
জানা গেছে, দ্বিতীয় ধাপের ৮৪৮টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচনের দলীয় প্রার্থী চুড়ান্ত করতে আজ বৈঠকে বসছেন আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ড। সকাল সাড়ে দশটায় গণভবনে দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। ইউনিয়ন, থানা/উপজেলা এবং জেলা আওয়ামী লীগের রেজুলেশনে এবং বিভিন্ন সংস্থার রিপোর্টে ইতিবাচক পর্যবেক্ষণেই মিলবে নৌকা। দলের একাধিক সূত্র এমন তথ্য জানিয়েছেন। ৮৪৮ টি ইউনিয়নে গতকাল শেষ দিন পর্যন্ত মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন ৪ হাজার ৪৫৮ জন।

দলীয় সভানেত্রীর ধানমন্ডি কার্যালয় সূত্র জানায়, কক্সবাজারের রামু উপজেলার জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান কামাল শামসুদ্দিন আহমেদ পিন্স। তার বিরুদ্ধে দলীয় সভানেত্রীর কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক শামসুল আলম। পিন্সের বিরুদ্ধে দলীয় নেতাকর্মীদের হত্যাকারীদের মদদ প্রদান, প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয় প্রকল্পের ঘর প্রদানে প্রতিজন থেকে ১০ হাজার করে টাকা গ্রহণের অভিযোগ করেছেন। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনের মামলায় রয়েছে। বির্তকিত এই ব্যক্তিকে নৌকা না দেওয়ার জন্য দলীয় সভানেত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তিনি।
পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুল হাকিম হাওলাদারের স্বাক্ষর জাল করে কেন্দ্রে তালিকা জমা দেওয়া হয়েছে। সেখানে জেলার সভাপতি একেএম আবদুল আউয়ালের স্বাক্ষরও রয়েছে। তবে জেলার সভাপতি এ নিয়ে মুখ খোলেননি। সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষর জাল করার বিষয়টি প্রথমে বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল হোসেনকে জানিয়েছেন। পরে দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে অবহিত করেছেন। এ প্রসঙ্গে অ্যাডভোকেট আবদুল হাকিম হাওলাদার অভিযোগ করে জেলা থেকে যে তালিকা জমা দেওয়া হয়েছে সে তালিকায় আমি স্বাক্ষর করিনি। বিষয়টি নিয়ে জেলা সভাপতির সঙ্গে কথা বলার পরামার্শ দেন তিনি। এ প্রসঙ্গে জেলা সভাপতি একেএম আবদুল আউয়ালকে একাধিকার ফোন করা হলে তিনি ফোন ধরেননি।

জামালপুর সদরের ২নং শরীফপুর ইউনিয়নের বিতর্কিত চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম আলম আলীও আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান। রফিকুল ইসলাম বিধবা কার্ড করে দেওয়ার প্রলোভনে স্থানীয়দের কাছ থেকে ৫ হাজার করে টাকা নেওয়া, গরীবের চাল টাকায় বিক্রিসহ নানা অভিযোগের কারণে এলাকায় বিতর্কিত। হনুফা বেওয়া (৬৫) নামের এক নারী থেকে হাজার টাকা নিয়ে বিধবা কার্ড না দেওয়ায় টাকা ফেরত চাইলে তাকে মারধর করেন চেয়ারম্যান। ১১/৮/২০ তারিখের ওই মারধরের ঘটনায় হনুফা থানায় অভিযোগও করেছেন। যেটি এলাকায় বেশ সমালোচনার খোরাক হয়।

বান্দরবানের লামা উপজেলার রূপসীপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী বর্তমান চেয়ারম্যান ছাচিং প্রু মারমা। তার বিরুদ্ধে একটি লিখিত অভিযোগ জমা দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে গণমাধ্যমে প্রকাশিত নানা সংবাদের কপিও যুক্ত করা হয়েছে। ছাচিং প্রু মারমার বিরুদ্ধে ছয়টি অভিযোগ করা হয়েছে। এগুলো হলো ধর্ষণ, টাকার বিনিময়ে রোহিঙ্গাদের ভোটার করা ও জন্ম সনদ বাণিজ্য, ভূমিহীনদের ঘর দিতে ঘুষ নেওয়া, সাংবাদিক নির্যাতন, রাস্তার ক্ষতিপূরণের টাকা আত্মসাৎ, সৌর বিদ্যুতের প্যানেল বিতরণে বাণিজ্য। এর মধ্যে ধর্ষণ ও সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনায় মামলা হয়েছে।

২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার পূর্ব জুড়ী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হন সালেহ উদ্দিন আহমেদ। তিনি এর আগেও দুইবার একই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছিলেন। কিন্তু এবার তৃণমূল আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত প্রার্থী তালিকায় নাম নেই তার। স্থানীয় সংসদ সদস্য ও মন্ত্রীর সঙ্গে দূরত্ব থাকায় তাকে এই তালিকায় রাখা হয়নি বলে জানিয়েছে একাধিক সূত্র।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা ও সিলেট বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদকের কাছে আলাদা অভিযোগপত্র পাঠিয়েছেন সালেহ উদ্দিন। সেই অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেছেন, যারা নৌকা প্রতীকের বিরোধিতা করেছে, যারা ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের নির্যাতন করেছে তাদের নামও প্রস্তাবিত প্রার্থী তালিকায় রাখা হয়েছে। কিন্তু তাকে তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।

জানা গেছে, গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এবং কাপাসিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি এম এ খালেক কাপাসিয়ার টোক ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী ছিলেন। কিন্তু উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির সঙ্গে দ্বন্দ্ব থাকায় তৃণমূলের তালিকা থেকে নাম বাদ দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন এম এ খালেক।

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নবীদুল ইসলামের বিরুদ্ধে নানা অপকর্মের অভিযোগ কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে জমা দেওয়া হয়েছে। এসব অভিযোগের সঙ্গে বিভিন্ন জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত নবীদুলের চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড ও দুর্নীতির সংবাদের কাটিং যুক্ত করা হয়েছে। সিরাজগঞ্জ সদরের খোকশাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাশীদুল হাসান রশীদের বিরুদ্ধেও রাজশাহী বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি, সুদের ব্যবসা, দলের ত্যাগী ও পুরনো নেতাকর্মীদের ওপর জুলুম ও হয়রানির অভিযোগ দেওয়া হয়েছে।

সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজার উপজেলার দোয়ারাবাজার ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামী লীগের মনোনয়নপ্রত্যাশী আবুল মিয়া। আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে জমা দেওয়া একটি লিখিত অভিযোগে আবুল মিয়াকে রাজাকারের নাতি বলে উল্লেখ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে একজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও একজন মুক্তিযোদ্ধাকে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ তোলা হয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইউপি নির্বাচন


আরও
আরও পড়ুন