Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৬ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

লুটেরাদের পরিবর্তে দিনমজুরদের কেন মামলায় ফাঁসানো হলো?

হাইকোর্টের প্রশ্ন

স্টাফ রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ৭ অক্টোবর, ২০২১, ১২:০০ এএম

সরকারি অর্থ লুটকারীদের পরিবর্তে নিরীহ দিনমজুরদের কেন মামলায় ফাঁসানো হয়েছে-জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। প্রতারকচক্রের ফাঁদে পড়ে মামলায় ফেঁসে যাওয়া দিনমজুরদের জামিন আবেদনের শুনানি কালে গতকাল বুধবার বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম এবং বিচারপতি মোহাম্মদ আলীর ভার্চুয়াল ডিভিশন বেঞ্চ উপরোক্ত মন্তব্য করেন।
পরে আদালত কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের নওদাবস গ্রামের দিনমজুর বিধবা ফুলমনি রানি, রণজিৎ কুমার, প্রভাস চন্দ্র, কমল চন্দ্র রায় ও নিখিল চন্দ্র বর্মনের এক বছরের জামিন দেন। দিনমজুরদের পক্ষে জামিন শুনানি করেন এডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির। শুনানিকালে তিনি বলেন,আমি যাদের জামিন আবেদন নিয়ে এসেছি, তারা সবাই সংখ্যালঘু স¤প্রদায়ের দরিদ্র মানুষ। তাদের বাড়ি কুড়িগ্রামে। তাদের করোনার প্রণোদনা দেয়ার কথা বলে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খোলা হয়। এভাবে ফাঁসানো হয়েছে।
তখন আদালত বলেন, মামলা তো হয়েছে গাজীপুর। আদালত জানতে চান তারা জেলে আছেন কতদিন? তখন আইনজীবী বলেন, তারা ৩ জুলাই থেকে কারাগারে রয়েছেন। তাদের কোনো অবলম্বন নেই। তখন জামিনের বিরোধিতা করে পক্ষের ডেপুটি এটর্নি জেনারেল অমিত দাস গুপ্ত বলেন, এটা ব্যাংকের টাকা আত্মসাতের মামলা। তখন হাইকোর্ট একটি অনলাইন পোর্টারে প্রকাশিত প্রতিবেদনসহ মামলার নথি দেখে বলেন, যারা লুটপাট করেছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হলো না। দিনমজুর সাধারণ মানুষকে কেন ফাঁসানো হলো? পরে আদালত প্রতারক চক্রের ফাঁদে পড়ে কারাগারে যাওয়া কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের নওদাবস গ্রামের ওই পাঁচজনকে এক বছরের জামিন দেন।
এর আগে গত ৩ অক্টোবর প্রতারক চক্রের ফাঁদে পড়ে কারাগারে যাওয়া ওই পাঁচজনের জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন এডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির। গত ১২ জুলাই একটি অনলাইন পোর্টালে ‘প্রণোদনার কথা বলে ফাঁসিয়ে দিল ৫ কৃষককে’ শিরোনামে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজেলার বড়ভিটা ইউনিয়নের নওদাবস গ্রামের বাসিন্দা রণজিৎ কুমার, প্রভাস চন্দ্র, কমল চন্দ্র রায়, সুবল চন্দ্র মোহন্ত।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হাইকোর্টের প্রশ্ন
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ