Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৬ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

ছাগলনাইয়া মেয়র প্রার্থী সাংবাদিক আব্দুল হালিমকে মাথা ফাটিয়ে অপহরণ, আড়াই ঘন্টার পর উদ্ধার

ছাগলনাইয়া (ফেনী) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ১০ অক্টোবর, ২০২১, ১০:০৩ পিএম

আগামী ২ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য ছাগলনাইয়া পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে প্রার্থী সাংবাদিক আব্দুল হালিমকে মনোনয়ন জমা দিতে আসলে মাথা ফাটিয়ে অপহরণ করে এবং তার পরিবারের উপর অতর্কিত হামলা চালায় দুর্বত্তরা। এসময় তার ভাবী, ভাইয়ের শ^শুড় ও ভাতিজাকেও মারধর করা হয়। অপহরনের দীর্ঘ আড়াই ঘন্টা পর পুলিশ তাকে বাঁশপাড়া এলাকা থেকে উদ্ধার করেছে। অপহৃত আবদুল হালিম ছাগলনাইয়া পৌরসভার পশ্চিম ছাগলনাইয়া গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা ছিদ্দিক উল্যাহর পুত্র। এব্যাপারে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। সাংবাদিক আবদুল হালিম ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, রবিবার মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিন দুপুরের পরে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে মেয়র পদে মনোনয়ন পত্র জমা দিতে আসলে ওঁত পেতে থাকা দুর্ত্তরা ডিবি পুলিশ ও ছাগলনাইয়া থানার পুলিশের সামনে সাংবাদিক আব্দুল হালিমকে গাড়ি থেকে নামিয়ে বেদড়ক পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে তার মনোনয়ন পত্র ছিনিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায় এবং তার বড় ভাবি সাজিদা আক্তার ও ছোট ভাতিজা আলভিকেও পিটিয়ে আহত করা হয়। আব্দুল হালিমকে মাথা ফাটিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যাওয়ার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। সন্ধ্যায় হালিমের বড় ভাবি সাজিদা আক্তার'র সাথে আলাপকালে বলেন, সাংবাদিক আব্দুল হালিমসহ আমার পরিবারের সদস্যরা মেয়র পদে মনোনয়ন জমা দিতে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে পৌঁছা মাত্রই কয়েকজন সন্ত্রাসী হালিমকে গাড়ি থেকে নামিয়ে পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে দিয়ে মনোনয়ন ছিনিয়ে তাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। আমার গলা চেপে ধরে মোবাইল ও প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র ছিনিয়ে নিয়ে যায় এবং আমার শিশুপুত্র আলভির উপরও তারা হামলা চালায়। এদিকে মেয়র প্রার্থী সাংবাদিক আব্দুল হালিমকে অপহরণের পর ছাগলনাইয়া সার্কেলের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার সোহেল পারভেজ'র দিকনির্দেশনায় ডিবি পুলিশ ও ছাগলনাইয়া থানার পুলিশের যৌথ অভিযানে সন্ধ্যা ছয়টায় আব্দুল হালিমকে পৌরসভার বাঁশপাড়া এলাকা থেকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়। এব্যাপারে আহত মেয়র প্রার্থী আব্দুল হালিম অভিযোগ করে বলেন, আজ শেষ দিন বিকালে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়ন পত্র জমা দিতে গেলে কয়েকজন সন্ত্রাসী তাকে অনেক মারধর করে মাথা ফাটিয়ে মনোনয়ন ছিনিয়ে নেয় এবং সে অজ্ঞান হয়ে পড়লে তাকে অপহরণ করে কোথায় নিয়ে যায় তিনি কিছুই জানেন না।উপজেলা নির্বাচন অফিসার জসীম উদ্দিন বলেন, বেলা ৩টা ২০/২৫ মিনিটের সময় আমি আমার অফিসে বসা ছিলাম, হট্রোগোল শুনতে পেয়ে আমি নিচে নেমে দেখি আমার অফিস থেকে ৫০ গজ দূরে ৩/৪টি ছেলে একটা লোককে টেনে হিছড়ে উপজেলা গেইটের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। ওই ব্যক্তিটিকে আমি ছিনিনাই। ছাগলনাইয়ার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার সার্কেল সোহেল পারভেজ বলেন, বলার ভাষা খুঁজে পাচ্ছিনা। বিষয়টি খুবই ন্যাক্কারজনক। আমি নির্বাচন অফিস থেকে সোয়া ৩টায় বের হয়ে যাই। তার কিছুক্ষণ পরই এই ঘটনা শুনি। এ ব্যাপারে অপরাধীদের বিরুদ্ধে কঠিন এবং কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। ছাগলনাইয়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) কাজী মোঃ রফিক আহমেদ জানান, ঘটনাস্থল থেকে শিশির ও মেজবা উদ্দিন নামের দুই যুবককে আটক করা হয়েছে। পৌর মেয়র এম মোস্তফা বলেন, ঘটনার সময় আমি এলাকায় ছিলাম না। খবর পেয়ে এসেছি। নির্বাচন কমিশনের ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী ১০অক্টোবর মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন। ১১অক্টোবর মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাই, ১২-১৪ অক্টোবর বাছাইয়ের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল। ১৬ অক্টোবর আপিল নিষ্পত্তি। ১৭অক্টোবর প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন। ১৮অক্টোবর প্রতীক বরাদ্ধ এবং ২নভেম্বর মঙ্গলবার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: অপহরণ


আরও
আরও পড়ুন