Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৬ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

ভারতের ‘অযৌক্তিক দাবি’তে নতুন করে সংঘাত হতে পারে: চীন

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ অক্টোবর, ২০২১, ৫:৩৩ পিএম

চীন সোমবার ভারতের দাবিকে ‘অযৌক্তিক ও অবাস্তব’ বলে অভিযুক্ত করেছে এবং দেশটিকে পরিস্থিতি সম্পর্কে ভুল ধারণা না করার আহ্বান জানায়। রোববার দুই পক্ষের কর্পস কমান্ডার-স্তরের আলোচনার ১৩ তম বৈঠক ভেস্তে যাওয়ার পরে চীন এই মন্তব্য করে।

চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মি (পিএলএ) ওয়েস্টার্ন থিয়েটার কমান্ডের মুখপাত্র সিনিয়র কর্নেল লং শাওহুয়ার মতে, মোল্ডো-চুশুল সীমান্ত বৈঠক পয়েন্টে চীনের পক্ষ থেকে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। আলোচনার পর এক বিবৃতিতে লং বলেন, চীন সীমান্ত পরিস্থিতি সহজ ও স্বাভাবিক করার জন্য ব্যাপক প্রচেষ্টা করেছে এবং দুই সামরিক বাহিনীর মধ্যে সম্পর্কের সার্বিক অবস্থা বজায় রাখার প্রতি আন্তরিকতা প্রদর্শন করেছে। ‘তবে, ভারত এখনও অযৌক্তিক এবং অবাস্তব দাবির উপর জোর দিয়েছিল, যা আলোচনাকে আরও কঠিন করে তুলেছিল,’ তিনি বলেছিলেন।

জাতীয় সার্বভৌমত্ব রক্ষায় চীনের সংকল্প দৃঢ় বলে উল্লেখ করে লং বলেন, ভারতকে চীন-ভারত সীমান্ত এলাকায় স্বাভাবিক পরিস্থিতি লালন করতে এবং দুই দেশ এবং সামরিক বাহিনীর মধ্যে প্রাসঙ্গিক চুক্তি ও ঐকমত্য মেনে চলার আহ্বান জানান। মুখপাত্র আশা প্রকাশ করেছেন যে, ভারত আন্তরিকতা দেখাবে, পদক্ষেপ নেবে এবং চীনের সাথে যৌথভাবে সীমান্ত এলাকায় শান্তি ও স্থিতিশীলতা রক্ষায় কাজ করবে।

ভারতীয় সেনাবাহিনীর জারি করা বিবৃতিতে মন্তব্য করতে গিয়ে চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ঝাও লিজিয়ান বলেন, ভারতীয় পক্ষের বক্তব্যের কোনো বাস্তব ভিত্তি নেই। ১৩ তম রাউন্ডের আলোচনার সময়, দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের সামগ্রিক স্বার্থ এবং সামরিক স্তরের সম্পর্কের সামরিক স্বার্থের কথা মাথায় রেখে, চীনা পক্ষ সীমান্ত পরিস্থিতি শিথিলকরণ এবং স্বাভাবিক করার জন্য ব্যাপক প্রচেষ্টা চালিয়েছিল এবং চীনের আন্তরিকতা পুরোপুরি প্রদর্শন করেছিল। যাইহোক, ভারতীয় পক্ষ এখনও অযৌক্তিক এবং অবাস্তব দাবির উপর অটল রয়েছে যা আলোচনায় অসুবিধা যোগ করেছে, তিনি আরও বলেন, ‘চীন জাতীয় সার্বভৌমত্ব রক্ষার সংকল্পে দৃঢ়।’

ঝাও লিজিয়ান মন্তব্য করেছিলেন যে, ভারতীয় পক্ষকে পরিস্থিতি ভুল বোঝা এড়ানো উচিত এবং সীমান্ত এলাকায় স্বাভাবিক পরিস্থিতি লালন করা উচিত। তিনি আরও বলেন, ‘ভারতীয় পক্ষের উচিত দুই দেশ এবং সামরিক বাহিনীর মধ্যে প্রাসঙ্গিক চুক্তি এবং ঐকমত্য মেনে চলা, আন্তরিকতা দেখানো এবং চীনের সাথে সীমান্তবর্তী এলাকায় শান্তি ও স্থিতিশীলতার যৌথ সুরক্ষার জন্য যৌথভাবে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা।’

এদিকে, চীনা বিশেষজ্ঞরা দুই দেশের মধ্যে একটি নতুন সংঘাতের ঝুঁকি সম্পর্কে সতর্ক করে বলেছেন যে, চীন কেবলমাত্র আলোচনার টেবিলে ভারতের ঔদ্ধত্যপূর্ণ দাবি মেনে নিতে অস্বীকার করবে না, বরং অন্য একটি ভারতীয় সামরিক আগ্রাসনের বিরুদ্ধে নিজেদেরকে রক্ষার জন্যও প্রস্তুত থাকবে।



 

Show all comments
  • মোহাম্মদ দলিলুর রহমান ১২ অক্টোবর, ২০২১, ৬:০৭ পিএম says : 0
    চীন একবার উচিত শিক্ষা দেওয়া,এরা পৃথিবীতে সর্ব শেষ্ট হারামি,এরা ইনসান নয়,একটি পশু যদি মারা যায় অন্য পশুটি চার পাশে দাঁড়িয়ে পিস পাস করে ,কিন্তু এই হারামজাদারা ছেলে অথবা মেয়ে মা বাবার মুখে আগুনের লুয়া দিয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়,এবং একটু নড়ে চড়ে উঠলে চল বল্লম দিয়ে আঘাত করে ছেপে দরে,এই জারুগা ধর্ম পৃথিবীতে নাই,এদের নিপাত করে দিয়ে পৃথিবীতে মানবের মরদেহ কে যথাযথভাবে সম্মান প্রদর্শন করা উচিত হবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: চীন


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ