Inqilab Logo

রোববার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২২ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

নজিরবিহীন জরুরি পরিস্থিতি মিয়ানমারে

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৩ অক্টোবর, ২০২১, ১২:০৫ এএম

মিয়ানমারে মানবিক সংকট মোকাবেলায় জাতিসংঘ আবারও ব্যর্থ হচ্ছে বলে সতর্ক করেছেন আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞরা। তাঁদের আশঙ্কা, মিয়ানমারে জাতিসংঘ প্রতিনিধিদলের বর্তমান নাজুক ভ‚মিকায় পরিস্থিতি আরো খারাপ হবে। মিয়ানমারে রাখাইন রাজ্যে ২০১৬ ও ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে নির্ম‚ল অভিযানের পর জাতিসংঘ গঠিত তদন্তেই তাদের বেশ কিছু ব্যর্থতার তথ্য উঠে আসে। দেশটিতে জাতিসংঘ আবারও ব্যর্থ হওয়ার ঝুঁকিতে আছে বলে মনে করেন জাতিসংঘের হয়ে অতীতে সেখানে মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে কাজ করা বিশেষজ্ঞরা। তারা মিয়ানমারবিষয়ক একটি বিশেষ পরামর্শক কমিশন গঠন করেছেন। ওই কমিশন সোমবার এক বিবৃতিতে বলেছে, আবারও ভুল করার ঝুঁকিতে আছে জাতিসংঘ। সামরিক জান্তার কারণে মিয়ানমারে দুর্দশা চলছে। এটি মোকাবেলায় জাতিসংঘের কার্যকর নেতৃত্ব ও উপযুক্ত কৌশল প্রয়োজন। মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ পরামর্শক কমিশনের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ইয়াংহি লি বলেছেন, মিয়ানমারের জনগণের ওপর সিনিয়র জেনারেল অং মিন হ্লাইংয়ের সহিংসতার মাত্রা ভয়ংকর। কোনো কিছুর ওপরই যে তার নিয়ন্ত্রণ নেই তা সহিংসতার মাত্রার মধ্যেই স্পষ্ট। তিনি বলেন, জান্তা মিয়ানমারে সহিংসতার কারণ। একে দুই পক্ষের মধ্যে সশস্ত্র সংঘাত বলা গুরুতর অপব্যাখ্যা। মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ পরামর্শক কমিশন বলেছে, গত ফেব্রুয়ারি মাস থেকে মিয়ানমারের জনগণের ওপর সামরিক বাহিনীর সহিংসতা দেশকে চরম সংকটে ফেলেছে। মিয়ানমারজুড়ে নজিরবিহীন জরুরি পরিস্থিতি চলছে। মিয়ানমারের জনগণ মনে করছে, জাতিসংঘ তাদের জন্য কিছুই করছে না। বিশেষ পরামর্শক কমিশন আরো বলেছে, মিয়ানমার নিয়ে জাতিসংঘ মহাসচিবের নেতৃত্বহীনতা এবং নিরাপত্তা পরিষদে অচলাবস্থা চলছে। এর ফলে মিয়ানমারে জাতিসংঘের ব্যর্থতার ইতিহাসে আরো আট মাস যোগ হয়েছে। এ ছাড়া জাতিসংঘের কর্মকর্তারা মিয়ানমারের সা¤প্রতিক সংকটকে সশস্ত্র সংঘাত হিসেবে অভিহিত করেছেন। মিয়ানমারবিষয়ক বিশেষ পরামর্শক কমিশন মনে করে, জাতিসংঘের কর্মকর্তাদের এমন বক্তব্য ও ভাবনা যথার্থ নয়। এর ফলে মিয়ানমারে সমস্যা আরো খারাপ হওয়ার ঝুঁকি বাড়বে। বিশেষ পরামর্শক কমিশন মিয়ানমারে জাতিসংঘের কর্মকান্ডে ধারাবাহিকভাবে সমস্যা দেখছে। রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: মিয়ানমার

৩১ অক্টোবর, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ