Inqilab Logo

শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৬ শাওয়াল ১৪৪৩ হিজরী

মালদ্বীপ ও ভারতের মধ্যে সন্দেহজনক খসড়া চুক্তির প্রতিবাদে বিক্ষোভ অব্যাহত

ইনকিলাব ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১২ অক্টোবর, ২০২১, ৯:০৯ পিএম

মালদ্বীপ ও ভারতের মধ্যে সন্দেহজনক খসড়া চুক্তি ছিল মালদ্বীপ উথুরুথিলাফালু (ইউটিএফ) এর কৌশলগত স্থানে প্রকল্প শেষ হওয়ার পর মালদ্বীপ ন্যাশনাল ডিফেন্স ফোর্সের (এমএনডিএফ) উপকূল রক্ষাকারী বন্দরের পাশাপাশি একটি ডকইয়ার্ড গড়ে তোলা। এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ অব্যাহত রয়েছে। -টন সাউথ এশিয়া ফোকাস

মালদ্বীপের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মারিয়া আহমেদ দিদি এবং ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. এস জয়শঙ্কর ভারতের রপ্তানি ও আমদানি ব্যাংকের ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের ক্রেডিট লাইন চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। মালদ্বীপ প্রেস ইউটিএফ চুক্তি নিয়ে অসংখ্য অভিযোগ করার পর সন্দেহজনক খসড়া চুক্তি প্রকাশিত হয়। দাবি করা হয় যে, চুক্তিটি মালদ্বীপের সার্বভৌমত্বের জন্য হুমকি। মালদ্বীপের একটি অনলাইন সংবাদমাধ্যম খসড়া চুক্তির অনুলিপিতে যা দাবি করেছে তা প্রকাশ করেছে। চুক্তির অধীনে দেশটিতে ভারতীয় সামরিক লোকজনের অবস্থান করার অনুমতি দিয়েছে। সংবাদমাধ্যমটি জানায় যে, কথিত অনুলিপি এমএনডিএফের একজন সিনিয়র অফিসার নাম প্রকাশ না করার শর্তে সরবরাহ করেন। প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উমর নাসিরও তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে চুক্তির স্ক্রিনশট শেয়ার করেছেন, খবরটি প্রকাশের কিছুক্ষণ পরে।

একটি কৌশলগতভাবে অবস্থিত দ্বীপ উথুরুথিলাফালহুতে একটি উপকূলরক্ষী কেন্দ্রের উন্নয়নে ভারতের সাথে দ্বিপাক্ষিক চুক্তির সন্দেহজনক খসড়া ফাঁস হওয়ার পর মালদ্বীপ সরকার ক্ষতি নিয়ন্ত্রণ কিভাবে করবে, তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। মালদ্বীপের সামরিক বাহিনী খবরটিকে ভুয়া বলে প্রতিবাদ করেছে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় একটি প্রেস রিলিজ জারি করেছে যাতে লেখা আছে, এটি এমন কোনো সিদ্ধান্তের অনুমতি দেবে না যা মালদ্বীপের জনগণকে নিরাপত্তা বা স্বাধীনতা ও জাতির সার্বভৌমত্বকে হুমকির মুখে ফেলতে পারে।

বিষয়টি নিয়ে জনসাধারণের মধ্যে হৈচৈ পড়ে গিয়েছিল, অনেকে মালদ্বীপের সংবিধান অনুসারে চুক্তিটি প্রকাশের জন্য অথবা কমপক্ষে একটি সংসদীয় কমিটির কাছে প্রকাশের আহ্বান জানিয়েছিল। মালদ্বীপের সংবিধান অনুযায়ী, জনপ্রতিনিধিদের একটি কমিটি নিরাপত্তা পরিষেবাগুলির কার্যক্রমের অব্যাহত তত্ত্বাবধানের জন্য প্রতিষ্ঠিত হবে। কমিটিতে জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিত্ব থাকবে। দেশটির সংবিধানের ২৫১ (ক) ধারার অধীনে কোন বিদেশী দল, মালদ্বীপের ভূখণ্ডের কোন অংশের মালিকানা বা মালিকানা পাবে না। একই ধারার অধীনে (গ) আছে যে, জনগণের প্রতিনিধিদের মোট সদস্যপদের সংখ্যাগরিষ্ঠের অনুমোদন ছাড়া মালদ্বীপের ভূখণ্ডের কোনো অংশ বিদেশী সামরিক কাজে ব্যবহার করা যাবে না।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ভারতীয় সেনাবাহিনীকে এই অঞ্চল থেকে বেরিয়ে যাওয়ার আহ্বান জানিয়ে জনসাধারণ তাদের অনুভূতি প্রকাশ করেছিল। নাগরিকরা দেশ থেকে ভারতীয় সামরিক কর্মীদের অবিলম্বে অপসারণের আহ্বান জানিয়ে রাজধানী মালেতে বিভিন্ন বিক্ষোভও করেছে। তারা ক্ষমতাসীন দল এমডিপিকেও আহ্বান জানিয়েছে, যার পার্লামেন্টে সর্বাধিক সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে, যাতে এই চুক্তিতে এমন কোন বিধান আছে, যা এই অঞ্চলে ভারতীয় সামরিক কর্মীদের উপস্থিতির অনুমতি দেয় কিনা তা খতিয়ে দেখার জন্য। ক্ষমতাসীন দলের নেতা মোহাম্মদ নাশিদও পার্লামেন্টারি কমিটিসহ চুক্তি প্রকাশের ব্যাপারে তীব্র বিরোধিতা করেছেন। বিরোধী রাজনীতিকরা চুক্তির বিরুদ্ধে জরুরি প্রস্তাব পেশ করার পর মালদ্বীপের পার্লামেন্টও বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক করে। সাবেক প্রতিরক্ষামন্ত্রী আদম শরিফ উমর যে প্রস্তাবটি জমা দিয়েছিলেন, তাতে অনুরোধ করা হয়েছিল যে, চুক্তির একটি অনুলিপি সংসদের ২৪১ সদস্যের কমিটিতে জমা দেওয়া হোক, না হলে এমডিপির সংসদীয় সর্বোচ্চ ক্ষমতাকে লঙ্ঘন করে।

মালদ্বীপ ন্যাশনাল ডিফেন্স ফোর্স চুক্তির উদ্বেগ মোকাবেলায় একটি সংবাদ সম্মেলন করে। কারণ, জন অসন্তোষ বৃদ্ধি পায় এবং সরকারের কঠোর সমালোচনা হয়। সংবাদ সম্মেলনে এমএনডিএফের শীর্ষ কর্মকর্তা এবং এমএনডিএফ নেতৃত্বের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুল্লাহ শামাল দাবি করেন যে, পরামর্শের পর এবং ভারতকে পরিকল্পিত কোস্ট গার্ড হারবার এবং ডকইয়ার্ড নির্মাণের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত নির্বাচিত করার পর চুক্তিটি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। চুক্তির মেয়াদ সম্পর্কে জানতে চাইলে প্রতিরক্ষা বাহিনীর ভাইস চিফ ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুল রহিম আবদুল লতিফ বলেছেন, বন্দর ও ডকইয়ার্ডের উন্নয়ন তিন বছরের মধ্যে সম্পন্ন করতে হবে। এদিকে চুক্তির শর্ত অনুসারে, প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা সর্বোচ্চ ১৫ বছর ইউটিএফ -এ থাকার অনুমতি পাবেন।

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুর রহিম আরও ঘোষণা করেন যে, একই তথ্য আগে জনসাধারণের কাছে প্রকাশ করা হয়েছিল। যেভাবেই হোক না কেন এটা লক্ষনীয় যে, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবদুল লতিফ বলেননি যে, চুক্তির মেয়াদ ১৫ বছর ছিল। মালদ্বীপ অনলাইন মিডিয়া আউটলেট "ধিয়েরেস" পরবর্তীকালে তথ্য অধিকার (আরটিআই) আইনের মাধ্যমে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে একটি অনুরোধ জমা দিয়েছিল যে, চুক্তির সময়কাল কত প্রকাশ করা হয়েছে? জবাবে মন্ত্রণালয় লিখেছিল যে, তারা সেই তথ্য প্রকাশ করতে পারে না। কারণ, চুক্তির সময়কাল প্রকাশ করা জাতীয় নিরাপত্তার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ।

চুক্তি অনুসারে তারা অন্যান্য কূটনৈতিক কর্মীদের চুক্তি অনুযায়ী মালদ্বীপে অবস্থানকালে কর, শুল্ক, শুল্ক পরিশোধ থেকে অব্যাহতি পাবে। টেকনিশিয়ানদের কেন ১৫ বছরের মেয়াদে কূটনৈতিক অনাক্রম্যতা দেওয়া হয়, জানতে চাইলে মেজর জেনারেল শামাল তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, কোনো বিদেশী নাগরিককে কূটনৈতিক অনাক্রম্যতা প্রদান করা রাষ্ট্রের সার্বভৌম অধিকার। এত দীর্ঘ সময় ধরে ইউটিএফ-এ তাদের ভূমিকা সম্পর্কে আর কোনও বিশদ বিবরণ দেওয়া হয়নি।

অনেকেই যুক্তি দিয়েছিলেন যে, চুক্তির তথ্য প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মদ সোলিহ, অ্যাটর্নি জেনারেল ইব্রাহিম রিফাথ এবং প্রতিরক্ষামন্ত্রী মেরিয়া দিদি দ্বারা উপস্থাপন করা উচিত। অনেকে দাবি করেন যে, এমএনডিএফ কর্মকর্তারা রাজনৈতিকভাবে প্রভাবিত ছিলেন। সামরিক কর্মকর্তা, সরকারের মন্ত্রী এবং রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান প্রধানদের বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার বেশ কিছু অভিযোগ ছিল। মামলা লগ করার জন্য একজন ব্যক্তি মালদ্বীপের দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কাছে একটি অভিযোগ করেছিলেন। অভিযোগটি করেছে মালদ্বীপ ন্যাশনাল ডিফেন্স ফোর্সের (এমএনডিএফ) উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা। উথুরুথিলায় মালদ্বীপ ন্যাশনাল ডিফেন্স ফোর্সের হারবার সিফাভারু স্বাক্ষর করার পূর্বে বিদেশী জাতির কাছ থেকে বড় ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ করেছেন।

দুদকে জমা দেওয়া অভিযোগ পত্রে বলা হয়েছে যে, এমএনডিএফের কিছু উচ্চপদস্থ জেনারেলদের জীবনযাত্রার মান অপ্রত্যাশিতভাবে উন্নত হয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। চিঠিতে কমিশনকে অনুরোধ করা হয়েছিল যে, গত ১২ মাসের মধ্যে তাদের স্ত্রী, সন্তান, ভাইবোন, বাবা-মা, চাচা এবং চাচীর সম্পত্তিতে যা কিছু সমৃদ্ধি এসেছে, তা খতিয়ে দেখা হোক। এমএনডিএফ ২০২১ সালের ১৬ মার্চ অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে এই দাবি সত্য বলে অস্বীকার করেছিল। যেহেতু সরকার এই বিষয়ে জনসাধারণকে যথাযথ উত্তর দিতে ব্যর্থ হচ্ছে, চুক্তিকে আরও সন্দেহজনক করে তুলছে। তাই মালদ্বীপের নাগরিকরা দেশে ভারতীয় সামরিক উপস্থিতির নিন্দা অব্যাহত রেখেছে। রাজধানী মালেতে "মাটিতে বুট নেই" স্লোগানে বেশ কয়েকটি বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয় এবং দেশে ভারতীয় সামরিক উপস্থিতি অপসারণের আহ্বান জানানো হয়। প্রতিবাদে হাজার হাজার মানুষ রাজধানীর রাস্তায় মিছিল করে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ