Inqilab Logo

শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৮ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

কমিটি বাতিলের দাবীতে রাজপথে মিছিল সমাবেশে সিলেট ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা

সিলেট ব্যুরো | প্রকাশের সময় : ১৪ অক্টোবর, ২০২১, ৭:৪৩ পিএম

পর্দার আড়ালে বসে সিলেট ছাত্রলীগ নিয়ে গেইম খেলেছেন সিলেট আওয়ামীলীগের কয়েকজন নেতা। সেই খেলায় কমিটিতে সফলও হয়েছেন তারা। ক্ষমতা কুক্ষিত করতে যেয়ে ছাত্রলীগ রাজনীতিকে দিয়েছেন বিগড়ে। চেইন অব কমান্ড ভেঙ্গেছে এখন সিলেট ছাত্রলীগ রাজনীতির। সেই কমান্ড গোপনে ভেঙ্গেছেন স্থানীয় আ্ওয়ামীলীগের শীর্ষ কয়েকজন। তাদের খেলায় কোনঠাসা হয়েছেন আরো কয়েকজন দাপুটে নেতা। বাস্তবিক অর্থে ছাত্রলীগ কমিটি নিয়ে দুই বলয়ে বিভক্ত সিলেট আ্ওয়ামীলীগ নেতৃত্ব। এর পরিনাম কোথায় যেয়ে ঠেকবে তার কোন ইয়ত্তা নেই। ঘোষিত কথিত কমিটি বাতিলের দাবীতে উত্তপ্ত সিলেট ছাত্রলীগের রাজনীতি-রাজপথ। গতকাল বৃহস্পতিবার কমিটি বাতিলের দাবীতে রাজপথে মিছিল সভা করেছে ছাত্রলীগের বৃহৎ দুইট বলয়। সেই বলয় রাজপথের রাজনীতিতে পরীক্ষিত। কিন্তু ঘোষিত কমিটিতে তাদের অবস্থা লেজে গোবরে। পদ পদবী কেবল নয়, গুঁড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা হয়েছে স্থানীয় রাজনীতিতে তাদের শক্তিমত্তাকে। গতকাল বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে নগরীর তেলিহাওর এলাকা থেকে জেলা শাখার সাবেক সভাপতি শাহরিয়ার আলম সামাদের নেতৃত্বে বিদ্রোহীরা বিক্ষোভ মিছিল শুরু করেন। অপরদিকে, মহানগর শাখার বিদ্রোহীরা চৌহাট্টার সড়ক ও জনপথ বিভাগের ভবনের সামনে থেকে মিছিল শুরু করে সিলেট সিটি করপোরেশনের সামনে এসে জেলার নেতাকর্মীদের সঙ্গে মিলিত হন। পরে চৌহাট্টা পয়েন্টে এসে মিছিল শেষ হয়। এসময় কমিটি বিরোধী বিভিন্ন শ্লোগান দেন তারা। মিছিল শেষে চৌহাট্টা পয়েন্টে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভা থেকে তারা অবিলম্বে কমিটি বাতিলের দাবি জানান। অন্যথায় তারা লাগাতার আন্দোলন চালিয়ে যাবেন বলে উচ্চারণ করে হুশিয়ারী। বিভিন্ন কারণে বিলম্বের প্রায় ৪ বছর পর মঙ্গলবার (১২ অক্টোবর) সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় কমিটি। সিলেট জেলা ছাত্রলীগের নতুন সভাপতি করা হয় মো. নাজমুল ইসলামকে ও সাধারণ সম্পাদক করা রাহেল সিরাজকে। অপরদিকে, সিলেট মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি রা হয় কিশোয়ার জাহান সৌরভকে ও সাধারণ সম্পাদক করা হয় নাঈম হাসানকে। কমিটির দায়িত্বশীলদের নাম ঘোষণার পর সভাপতির পদ পাওয়া দুটি বলয়ে উচ্ছ্বাস দেখা দিলেও ক্ষোভ দেখা দেয় সিলেট ছাত্রলীগের অন্য বলয়গুলোতে। ফলে দ্রোহের আগুন ছড়িয়েছে এখন সিলেট ছাত্রলীগে। টাকার বিনিময়ে এই কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেন সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সর্বশেষ কমিটির সভাপতি শাহারিয়ার আলম সামাদ। গত মঙ্গলবার বিকেল ৪টায় তেলিহাওর থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয় তার নেতৃত্বে। মিছিলটি নগরীর জিন্দাবাজার আল-হামরা মার্কেটের সামনে আসলে পুলিশ মিছিলকারীদের বাধা দেয়। পুলিশী বাধা উপেক্ষা করে মিছিলটি সামনে অগ্রসর হয়। চৌহাট্টা পয়েন্টে গিয়ে বিক্ষোভকারী নেতাকর্মীরা টায়ার জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করেন। কিছু সময় সড়ক অবরোধ শেষে ফিরে যান তারা। এছাড়া মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মহানগর কমিটিকেও প্রত্যাখ্যান করে বিক্ষোভ মিছিল ও সভা করেন নেতাকর্মীদের একাংশ। বিকাল সাড়ে ৫টায় মহানগর ছাত্রলীগের ‘বিদ্রোহী অংশ’ নগরীর চৌহাট্টা এলাকার সড়ক ও জনপথ বিভাগের ভবনের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। পরে সেটি বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে চৌহাট্টা পয়েন্টে এসে এক সভায় মিলিত হয়। এই দুই বিক্ষোভের পরপরই জেলা ছাত্রলীগের নবগঠিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজের বাসায় হামলার ঘটনা ঘটে। কমিটির জের ধরে ছাত্রলীগের তেলিহাওর গ্রুপের সাবেক ও বর্তমান একদল নেতাকর্মী এই হামলা করেছে বলে অভিযোগ করেন রাহেল সিরাজের ভাই গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক রুমেল সিরাজ। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নগরীর আম্বরখানা বড়বাজারস্থ রাহেল সিরাজের বাসায় এই হামলার ঘটনা ঘটে। পরবর্তীতে গত বুধবার সংবাদ সম্মেলন করে থেকে রাস্তায় টানা আন্দোলন কর্মসূচি পালনের ঘোষণা দেন সিলেট জেলা ছাত্রলীগের বিদ্রোহী অংশের নেতৃত্ব দান কারী সাবেক সভাপতি শাহরিয়ার আলম সামাদ।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ