Inqilab Logo

মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৪ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

ঢাবি নৃবিজ্ঞান বিভাগের ৬ লাইনের বিজ্ঞপ্তিতে ২২ ভুল, ভাইরাল ফেসবুকে

সোশাল মিডিয়া ডেস্ক | প্রকাশের সময় : ১৫ অক্টোবর, ২০২১, ৮:৪৩ এএম

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) নৃবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারপারসন অধ্যাপক ড. শায়লা শারমিনের সই করা ভুলে ভরা একটি বিজ্ঞপ্তি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। গত বুধবার চেয়ারপারসনের সই করা ৬ লাইনের এই বিজ্ঞপ্তিতে অন্তত ২২টি বানানে ভুল পাওয়া গেছে৷ এ নিয়ে ফেসবুকে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়।

তবে বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন অধ্যাপক শায়লাও৷ বিভাগের অফিস সহকারী ভুল করেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, 'সই করার সময় ভুলগুলো খেয়াল করিনি।'

আলোচিত বিজ্ঞপ্তিটিতে বলা হয়, আগামী ১৮ অক্টোবর থেকে নৃবিজ্ঞান বিভাগে সশরীরে ক্লাস কার্যক্রম শুরু হবে৷ বিভাগের শিক্ষার্থীদের অন্তত করোনার প্রথম ডোজ টিকাগ্রহণের সনদ বা কার্ড দেখিয়ে ক্লাসে অংশগ্রহণ করতে বলা হয়েছে৷ মাস্ক ছাড়া কোনো শিক্ষার্থীকে ক্লাসে অংশগ্রহণ করতে দেওয়া হবে না এবং সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্লাসে আসতে হবে৷

ফেসবুকে সমালোচনা করে মোঃ গোলাম মোস্তফা লিখেছেন, ‘‘বাংলাদেশের অধিকাংশ উচ্চশিক্ষিত বাংলা বানানে কাঁচা, এর মূল কারণ বাংলা একাডেমির কিছুদিন পরপর বানানে বৈচিত্র আনা। আজ একটাকে সঠিক বলে তো কাল ওটা পরিবর্তন করে নতুন নিয়ম বানায়। নিয়মিত চর্চা করা ছাড়া শুদ্ধ বানানে লেখা কষ্টকর। আবার একেক পন্ডিত একেক বানানরীতি অনুসরণ করে। তাই নিজেদেরকে অতিপন্ডিত ভাবার কিছু নেই।’’

হেলাল উদ্দীন লিখেছেন, ‘‘ওনারা কি কাজে এত ব্যাস্ত থাকেন যে তিন লাইনের একটা কাগজ পড়ে দেখার সময় পান না! প্রায় ২ বছর পর বিশ্ববিদ্যালয় খুলছে। এটাই তো সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হওয়া উচিৎ। তবুও ধন্যবাদ দিব, তিনি ভুল স্বীকার করেছেন। বাংলাদেশে সরকারি লোকদের মধ্যে সরি বলার কালচার নেই।’’

কাজী কামরুন্নেসা মুন্নি লিখেছেন, ‘‘এখানে যে ভুলগুলির কথা বলা হয়েছে সেগুলি সচরাচর চোখে পড়ার কথা নয়। উনার জায়গায় অন্য কেউ হলে তিনিও কাগজটি স্বাক্ষর করে দিতেন। তার মানে এই নয় যে উনারা পড়ালেখা জানেন না বা বানান ভুল করেন। অনেক সময় নোটিশ এর মূল বিষয়বস্তু ঠিক আছে কিনা তা দেখে স্বাক্ষর করে দেন। উনি অত্যন্ত বিনয়ী তাই ক্ষমা চেয়েছেন। এই সুযোগে লাঞ্ছিতও কম হননি।’’

আব্দুল্লাহ আল মামুন লিখেছেন, ‘‘বাংলা একাডেমি হয়ত এবারা উক্ত বানানগুলোই তাদের সাইটে সঠিক বানান হিসাবে তুলে ধরবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বলে কথা। আরও বড়ো কথা হলো সবাই একই জায়গার ...।’’

মাহবুবুল ইসলাম লিখেছেন, ‘‘৩২ ব্ছর কেরানীগিরি করে কম করে হলেও এটা বুজতে শিখেছি যত দোষ নন্দ ঘোষ। আউল ফাউল যা পাবেন তাই স্বাক্ষর করবেন।আবার কেরানীর দোষ দিবেন এটা মেনে নওয়া যায় না। নিজেদের শিক্ষার ঘটতি আছে বলেই এ দায় আপনাকে নিতে হবে। বানানে কিছু কিছু জটিলতা থাকতেই পরে তবে সাধারন ভুলগুলো অমার্জিনিয়।’’

কে এম ইসারাত আলী লিখেছেন, ‘‘দায়িত্বশীল পদে থেকে দায়িত্ববান হওয়া জরুরী। নতুবা স্বনামধন্য প্রতিষ্ঠানের স্বকীয়তা নষ্ট হয়। আর মানুষ তা নিয়ে হাসি, ঠাট্টা -তামাশা করে।’’

ফায়েকা ইসলাম লিখেছেন, ‘‘তবে আজকে আমার কাছে ড.শায়লা শারমিনের বিনয়ী হওয়াটা ভীষণ ভালো লেগেছে। ভুল হতেই পারে এটি স্বাভাবিক, কেউ ভুলের ঊর্ধ্বে নয়। এত বড় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ড. শায়লা শারমিন এত ছোটভাবে বিনয়ী হওয়া আসলেই শেখার মতো। ধন্যবাদ, ম্যাম। ভালোবাসা জানবেন।’’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ভাইরাল

১৪ নভেম্বর, ২০২১

আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ